Tag Archives: হাদীস নং-১০৩ ছবি- mosque instanbul turkey wudhuman * পড়া শেষে শেয়ার করতে ভুলবেন না। মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন

হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল।

হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল।

আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশী মনে।

আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশী মনে।

এরকম একটা মেয়ে যদি আমাদের থাকত……………।

এরকম একটা মেয়ে যদি আমাদের থাকত……………। হযরত ওমর রা. তাঁর খেলাফতকালে লোকজনের খোঁজখবর নেওয়ার জন্য রাতের বেলা মদীনা মুনাওয়ারায় টহল দিতেন। এক রাতে তাহাজ্জুদের পর টহল দিচ্ছিলেন। হঠাৎ লক্ষ করলেন, একটি ঘর থেকে কথাবার্তার শব্দ শোনা যাচ্ছে। সাধারণ অবস্থায় কারো ব্যক্তিগত কথা আড়ি পেতে শোনা জায়েয নয়। কিন্তু দায়িত্বশীল ব্যক্তির জন্য প্রয়োজনের ক্ষেত্রে অনুমতি আছে।

হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত।

হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক রাত্রে সন্ত্রস্ত হয়ে ঘুম থেকে জাগলেন। আর বলতে লাগলেন-“আজ রাতে কত রহমত নাযিল হল, আর অবতীর্ণ হল কত ফিতনা-বিপদ। কক্ষে অবস্থানকারীনীদের কে জাগিয়ে দিবে?” তিনি তাঁর বিবিগণের প্রতিই ইঙ্গিত করছিলেন। “যাতে তারা নামায পড়ে”। (রহমত অর্জন করবে আর ফিতনা ও বিপদ থেকে মুক্ত হবে)। “দুনিয়াতে সুশোভিত

নারীদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়া প্রসঙ্গ ..♥..

নারীদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়া প্রসঙ্গ ..♥.. প্রয়োজনীয় দ্বীন শিখা প্রতিটি নর-নারীর জন্য আবশ্যক। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ছিলেন সেই দ্বীনের বাহক। তাই রাসূলুল্রাহ (সাঃ) এর সময়ে যেহেতু সময়ে সময়ে দ্বীনের বিধান অবতীর্ণ হতো, তাই পুরুষ সাহাবীদের সাথে মহিলা সাহাবীরাও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর দরবারে এসে সেই দ্বীন শিখতে চেষ্টা করতেন। সেখানে পুরুষ নারী এক সাথে


Hit Counter provided by Skylight