বিভাগ : প্রবন্ধ

আলোর দিশা খুঁজে পেয়েছি ইসলামী পত্রিকায় / জামিল আহমদ

কয়েকমাস পূর্বে আফনানের বোন মাফিজার বিবাহ হয়েছে গোপিনাথপুর গ্রামে। মাফিজা নতুন পরিবারের একজন অন্যতম সদস্য হয়েছে। তার পরিবারে এখন স্বীয় স্বামী, শশুর-শাশুড়ি ও ননদ আছে। নতুন পরিবেশে নতুন অতিথি পেয়ে মাফিজা যেমন খুশি তেমন আনন্দিত নতুন পরিবারের সকলেই। নাদিরা নামের মেয়েটি হল মাফিজার ননদ। আঠার বছরে কেবল পা রেখেছে সে। নব্য স্কুল ছেড়ে কলেজের দিকে

শবেবরাত : করণীয়-বর্জনীয় / উবায়দুল হক খান

শব শব্দটি ফার্সি। তার অর্থ রাত। আর বরাত শব্দটি আরবি। তার অর্থ মুক্তি। অতএব, শবেবরাত অর্থ হলো মুক্তির রাত। মধ্য শাবানের এ রাতে মহান আল্লাহ তাআলা প্রথম আসমানে এসে গোনাহের কাজে লিপ্ত, অভাব-অনটনে আচ্ছন্ন; রোগ-শোকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মুক্তির আহ্বান করেন। তাই এ রাতকে ‘শবেবরাত’ বা ‘মুক্তির রজনী’ বলা হয়। মহান আল্লাহ তাআলা এ রাতে বান্দাদের

ইসলামের বিশ্বজনীনতা / মাওলানা আহমদ মায়মূন

ইসলামের আবির্ভাব যুগে মদীনায় দুটি গোত্র বাস করত। একটির নাম ছিল আওস, আর অপরটির নাম ছিল খাযরাজ। এ দুটি গোত্র ছিল পরস্পরে প্রতিদ্বন্দ্বী। একটি অপরটির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত থাকত। যখন তারা রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আনীত দীনে তাওহীদের প্রকৃত পরিচয় লাভ করল এবং ইসলাম গ্রহণ করল তখন তাদের মধ্যকার পারস্পরিক লড়াই বন্ধ হয়ে গেল।

জ্ঞানবৃক্ষের ছায়াতলে / ড. মুহাম্মদ ঈসা শাহেদী

মানবজীবনের একটি সাধারণ ব্যাপার হল, নতুন কোথাও সফর করলে সফর অভিজ্ঞতা লেখার বা বলার খোরাক পাওয়া যায়। কিন্তু সেই দেশ বা অঞ্চলে যদি অনেক দিন বসবাস করা হয়, সে সম্পর্কে বলার বা লেখার রসদ খুঁজে পাওয়া মুশকিল হয়ে যায়। বড় কোনো ব্যক্তিত্বশালী মানুষের সাথে ঘনিষ্টভাবে মেশার পরও একই সমস্যা দেখা দেয়। এ কারণে মানুষ সফর

শ্রেষ্ঠ ও সুন্দরতম মানবজাতি / হাফেজ মাওলানা আবূ সালেহ

এই পৃথিবীর অসংখ্য-অগুনতি সৃষ্টির মাঝে মানবজাতি শেষ্ঠ এবং সুন্দরতর। অন্যান্য সকল সৃষ্টিকে মানবজাতির সেবায় নিয়োজিত করেছেন আল্লাহ তাআলা। এই শ্রেষ্ঠ সৃষ্টির শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ হিসেবেই আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কেবল মানবজাতি থেকেই নবী ও রাসূল নির্বাচিত করেছেন। সর্বশ্রেষ্ঠ মানব হিসেবেই মুহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে পার্থিব জগদ্বাসী হওয়া সত্ত্বেও সেই অপার্থিব অজানা ঊর্ধ্বলোকে তাঁর আরশের সংস্পর্শে

শিশুর অধিকারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর উত্তম আদর্শ / ড. মুফতী আবদুল মুকীত আযহারী

আর আমরা দেখি আমাদের বর্তমান সমাজে শিশুদের উপর কেমন জুলুম-অত্যাচার করা হয়। একবার গাড়ি সারাতে গ্যারেজে গিয়েছিলাম। আমাদের দেশের গ্যারেজে অনেক শিশু কাজ করে। মূল মিস্ত্রিকে নানান জিনিস এগিয়ে দেয় এবং বিভিন্নভাবে সাহায্য করে। হেল্পার হিসেবে কাজ করে। তখন একটা শিশুকে বলা হলো, ঐটা নিয়ে আস। শিশুটি ঐ জিনিসটিই এনেছে। তারপরও শিশুকে একটা থাপ্পড় দিয়ে

এতিম নারীদের বিবাহ, মহর এবং মীরাস সংক্রান্ত জিজ্ঞাসা / মাওলানা মুজিবুর রহমান

সাহাবায়ে কেরামগণের অপর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ জিজ্ঞাসা ছিল এতিম নারীদের বিবাহ এবং মীরাস-সংক্রান্ত ব্যাপারে। এরশাদ হচ্ছে, ‘আর লোকেরা তোমার নিকট নারীদের বিষয়ে ব্যবস্থা জানতে চায়। বল, আল্লাহ তোমাদেরকে তাদের সম্বন্ধে ব্যবস্থা জানাচ্ছেন এবং এতিম নারীদের সম্পর্কে যাদের প্রাপ্য তোমরা প্রদান কর না, অথচ তোমরা তাদেরকে বিবাহ করতে চাও, এবং অসহায় শিশুদের সম্বন্ধে ও এতিমদের সঙ্গে তোমাদের

মৃত্যুদিবস পালন : শরয়ী দৃষ্টিকোণ / মুফতী পিয়ার মাহমুদ

জন্মদিবস পালনের মত মৃত্যুদিবস পালনও এখন ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। খ্রিস্টীয় মাসের যে তারিখে লোকটি মৃত্যুবরণ করেছিল প্রতি বছর সে তারিখ এলেই শুরু হয় মরহুমের আতীœয়-সজনের দৌড়-ঝাঁপ। গরু-খাশি জবাই করে বিশাল ডেকোরেশন করে আয়োজন করা হয় পোলাও-কোরমা, বিরিয়ানি, তেহারি, জর্দা ইত্যাদির। গরীব হলে অন্তত মোরগ-মুরগি এবং পোলাও, সাদা ভাত ইত্যাদির। যেন প্রচলিত কোন বিয়ের আয়োজন। এই

একই বৃন্তে দুটি ফুল / নাঈমা তামান্না

মানুষের জীবনে অন্যতম ও বিশেষ একটি অধ্যায় হচ্ছে বৈবাহিক জীবন। যেখানে ভিন্ন দুটি জীবনে বয়ে চলে একই ল্য। গড়ে ওঠে পারস্পরিক নিঃস্বার্থ সখ্য। দুটি প্রবাহ মিলে যায় একই মোহনায়। জীবনে বয়ে আনে পূর্ণতা। সুখে-স্বাচ্ছন্দ্যে ভরে উঠে চারপাশ। যদি এই জীবনে কেউ সফল হতে পারে তাহলে দুনিয়াটা হয়ে যায় তার জন্য স্বর্গ। অন্যথায় জীবনটা নরকের আজাবে

বিয়ে একটি ইবাদত, একটি দায়িত্ব / মুফতি মুহিউদ্দীন কাসেমী

নারী-পুরুষের মানুষসত্তা এক; লিঙ্গসত্তা ভিন্ন। মানুষ হিসেবে উভয়ের মর্যাদা ও অধিকার সমান। তবে সৃষ্টিগত দৈহিক ভিন্নতা, গুণাবলি ও বৈশিষ্ট্যের বিচারে পার্থক্য সুস্পষ্ট। এই পার্থক্য মানবজীবনের কল্যাণ ও প্রয়োজনের স্বার্থেই রাখা হয়েছে। মানবজীবনে এমনকিছু মুহূর্ত রয়েছে, যেখানের পুরুষের গুণাবলি অধিক কার্যকরী হয়; আবার কোনো েেত্র নারীসুলভ বৈশিষ্ট্যগুলো হয় অত্যন্ত ফলপ্রসূ। আর দু’জনের জীবনের সফলতা ও পূর্ণতা

সোনালি বিচার / সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

ঘুষ ও দুর্নীতির প্রভাব : আব্বাসীয় খলীফা মাহদীর শাসনামলে আকেবা বিন ইয়াযীদ  বাগদাদে বিচারক হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এক দুপুরে হঠাৎ বিচারক খলীফা মাহদীর দরবারে পৌঁছলেন। আর তিনি ভেতরে প্রবেশের অনুমতি চাইলেন। খলীফার অনুমতিক্রমে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করলেন এবং সালামের পর আরজ করলেন, খলীফাতুল মুসলেমীন! সেই বিচারক পদে নিয়োগের অঙ্গিকারপত্র হাজির করার নির্দেশ দিন, কেননা এখন

পবিত্র কুরআনের আকর্ষণ / মুহাম্মদ শরীফুল আলম

মহান আল্লাহর অবিনশ^র কালাম হচ্ছে পবিত্র কুরআন। এটি অমর অজর অব্যয় অক্ষয়। বিশ^বাসীর কাছে এক মহাবিস্ময়। এ গ্রন্থের বাণী, মর্ম, আহ্বান ও আবেদন অতুলনীয়। তার অসাধারণ সৌন্দর্য ও আশ্চর্য আকর্ষণে যুগ যুগ ধরে পথহারা মানুষ পেয়েছে মুক্তির পথ ও সত্য-ন্যায়ের সঠিক দিশা। কী আছে এই কুরআনে? কীভাবে এতো আকর্ষণ করে আমাদের?  বক্ষ্যমাণ এ প্রবন্ধটিতে আমরা

হোলি আনন্দে বখাটেরা / এইচ. এম. মুশফিকুর রহমান

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কোথাও হোলি উৎসব আবার কোথাও এই উৎসবকে বলা হয় দোল পূর্ণিমা। চৈত্র মাসের শেষ পূর্ণিমাতে এই উৎসব পালিত হয়। হোলি উৎসবের ইতিহাস ও উৎপত্তি সম্পর্কে জানা যায়, হিন্দু ধর্ম অনুসারে চারটি যুগ : সত্যযুগ, ত্রেতাযুগ, দ্বাপরযুগ এবং কলিযুগ। বর্তমানে চলছে কলিযুগ। দ্বাপরযুগ থেকে শ্রীকৃষ্ণের দোলযাত্রা বা দোল উৎসব পালিত হয়ে আসছে। আবার ১৪৮৬

ইসলামে নারী শিক্ষার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা / হাবিবা সুহাইফা

মানবসমাজের জন্য শিক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এমনকি জাতির মেরুদ-ই হচ্ছে শিক্ষা। সুতরাং কোন জাতি শিক্ষা ছাড়া উন্নতির আশা করতে পারে না। সভ্যতা ও সম্মানের প্রথম সোপানই হলো শিক্ষা। মহানবীর সা.-এর নিকট প্রেরিত প্রথম বাণীই ছিল শিক্ষা সংক্রান্ত। যেমন : ‘পড় তোমার প্রভুর নামে যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন।’ [সূরা আলাক : আয়াত ১] ইসলামের পূর্বে গোটা

সত্য ও ন্যায়ের পথে / হাজেরা সুলতানা হাসি

মা-বাবাকে হত্যা করল কিশোরী, ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ বাবার মৃত্যু, মায়ের হাতে শিশু খুন। এই কথাগুলো কোনো কাল্পনিক গল্প-উপন্যাসের নয়। সাম্প্রতিক কালের সংবাদ পত্রিকার শিরোনাম। তবে আশ্চর্যজনক সত্য হল, ওপরের কথাগুলো গল্প-উপন্যাসে পড়লে আমরা যতটুকু ব্যথিত বা মর্মাহত হই, তার অনেকাংশ অনুভূতি বাস্তব খবর পড়ে আসে না। কিংবা একেবারেই আসে না। যেন সবাই এমন ‘অতি

আদর্শ সমাজ গঠনে মহানবী সা. / আয়েশা সিদ্দিকা আতিকা

আরবসহ সমগ্র বিশ্বে যখন মনুষ্যত্ব ও মানবতার চরম দুর্দিন চলছিলো, হতাশার কালো ছায়ার মেঘে যখন চারপাশ ছিলো আচ্ছন্নময়, ঠিক তখনই প্রেরিত হন জাহেলী সমাজের আমূল পরিবর্তনের জন্য কোরআনের উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা নিয়ে মানবতার মুক্তিদূত, আমাদের দয়ার প্রিয়নবী রাহমাতুল্লিল আলামীন মুহাম্মদ সা.। অন্ধকার যুগে সত্যদর্শনের এমন জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত কেউই ছিলো না। তিনি সুপরিচিত ছিলেন ‘আল আমীন’ হিসাবে।

ভাবনাগুলো এলোমেলো / ফাতেমা আক্তার সিক্তু

স্বপ্নগুলো উদ্দেশ্যহীন, ভাঙাচোরা। পথ হাঁটি আর ভাবতে থাকি, ভাবতে থাকি আর পথ চলি। কখনো স্টেশনে সিগন্যাল পড়ে, থমকে দাঁড়াই। সবুজ, হলুদ বা লাল আলো জ্বলে – আমি আনমনে চলতেই থাকি। আমি সেই উপগ্রহ যার কোন কপথ নেই। আমি সেই ঢেউ যে তীরে পৌঁছে যাবার আগেই বিলীন হয়ে যায়। তবু তো চলতেই হয়। আকাশের রঙচটা রঙটা

সুখের ছোঁয়া স্বর্গীয় অনুভবে / আহমাদ আব্দুল্লাহ

জীবনভর সফলতার মুখ দেখবার জন্য অবিরাম চেষ্টায় রত আমরা। একটুখানি হাসির ঝলক আর আনন্দের ছিটেফোঁটা পাবার আশায় মন অস্থির রাখি। অনুপম ভালোবাসা সমৃদ্ধ শিল্প কায়া অনুভবে বারংবার নাড়া দিয়ে ওঠে। ব্যথিত জল্পনা থেকে মুক্তির মন্ত্র খুঁজে বেড়াই আপন মহলের চারোপাশ। স্বপ্নময়ী শন্তনা সুখিময় কল্পনা হৃদয়ের মাঝেই আবন্ধ থাকে চিরকাল। ‘বাস্তবরূপ’ সেতো অনেক দূর। স্বতঃস্ফূর্ত শান্তনা

সান্নিধ্যের অনুভবে কুরআন তেলাওয়াত / ড. মুহাম্মদ ঈসা শাহেদী

কুরআন মজীদ আল্লাহর কালাম। আমরা আল্লাহকে দেখি নি, এই দুনিয়াতে আল্লাহকে দেখা সম্ভবও নয়; তবে আল্লাহ পবিত্র বাণী কুরআন মজীদ আমাদের মাঝে আছে। এর একেকটি আয়াত আল্লাহর নিদর্শন। এর সাহায্যে আমরা আল্লাহর পরিচয় পেতে পারি। নগণ্য বান্দা আল্লাহর সঙ্গে গড়ে তুলতে পারে গভীর বন্ধন। এতবড় কাজ কীভাবে সম্ভব তার বাস্তব দৃষ্টান্ত পাওয়া যায় আল্লাহর দু’জন

স্বাধীনতার উজ্জ্বল দৃশ্য / হাফেজ মাওলানা আবূ সালেহ

স্বাধীন, স্বাধীনতা ও স্বাধিকারের সংজ্ঞা বাংলা অভিধানে ‘স্বাধীন’ শব্দের অর্থ লেখা হয়েছে স্বাধীনগতি, সার্বভৌম, বাধাহীন, স্বচ্ছন্দ, মুক্ত, আজাদ, বিদেশী দ্বারা শাসিত নয় এমন। আর ‘স্বাধীনতা’র অর্থ বর্ণনা করা হয়েছে: স্বচ্ছন্দতা, বাধাহীনতা, আজাদী ইত্যাদি। (বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধান, পৃ; ১১৮৮, ঢাকা) এখানে স্বাধীনতা বা স্বাধীনের বিপরীত অর্থ লিখেও ‘স্বাধীন’ শব্দের অর্থ বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

শিশুর অধিকারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর উত্তম আদর্শ [১ম পর্ব] ড. মুফতী আবদুল মুকীত আযহারী

ইসলামে যে শিশু অধিকারের কথা উল্লেখ হয়েছে তার শুরুটা হয়েছে শিশু জন্মগ্রহণ করার আগ থেকে। ১ম অধিকার : শিশু জন্মের আগেই আদর্শ মা র্নিবাচন করা। ২য় অধিকার : জন্মের পরে একটি ভালো নাম নির্বাচন করা । ৩য় অধিকার : শিশুর জন্যে খুশি প্রকাশ করে আকিকা প্রদান করা। ৪র্থ অধিকার : শিশুর দুধপানের ব্যবস্থা করা। ৫ম


Hit Counter provided by Skylight