বিভাগ : বিশেষ প্রবন্ধ

বিশ্ব ইস্তেমা : দা‘ওয়াত ও তাবলীগ : মুফতি মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ

আরবী ‘ইস্তেমা‘ শব্দটির বাংলা অর্থ হচ্ছে, শ্রবণ-শোনা, মনোযোগসহ শ্রবণ। আর ‘ইজতেমা’ মানে হচ্ছে, সম্মিলন, সাক্ষাৎ, বৈঠক, সভা, সমাবেশ, সম্মেলন, সমাজ, সমাজবদ্ধতা, সামাজিকতা, সমাজজীবন। শব্দ দু’টির অর্থের প্রতি মনোযোগ দিলে ‘বিশ্ব ইস্তেমা’ ও ‘বিশ্ব  ইজতেমা’-বাক্যদ্বয়ের মর্মার্থ বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। অর্থাৎ বিশ্ব মুসলিমের মনোযোগসহ শোনার বিষয় বা অনুষ্ঠান; বিশ্বর মুসলমানদের সম্মিলন বা সম্মেলন বা সভা-সমাবেশ-বৈঠক।

ভোটের গুরুত্ব : মাওলানা জিয়াউল হকইসলামে

ভোট কি ও কেন? ভোট মূলত ইংরেজি শব্দ। সাধারণ ভাষায় এর মানে হলো; সর্মথন দান করা, মতামত প্রকাশ করা। কোন বিষয়, বস্তু, ব্যক্তি, কোন মত পথ বা পদ্ধতি, সম্মতি বা অসম্মতি জানানো। ভোট এমন একটি পদ্ধতি বা ব্যবস্থা যার দ্বারা বা যার মাধ্যমে এক বা একাধিক ব্যক্তি বা জনগোষ্ঠীর মতামত যাচাই করা হয়, তাদের সম্মতি

দেশ সাধীনতায় আলেম মুক্তি যুদ্ধা : তুহফা বিনতে আব্দুল কাইয়ুম

স্ব-অধীনতা থেকে স্বাধীনতা শব্দের উৎস যার অর্থ নিজের অধীনে হওয়া। অন্য কথায় নিজের ইচ্ছা অভিপ্রায় অনুযায়ী চলা। কিন্তু প্রকৃতার্থে কোন মানুষই স্বাধীন নয়। তাকে স্রষ্টার অধীনে থাকতে হয়। আবার নিজের স্বাধীনতা ভোগ করতে গিয়ে অন্যের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করাও স্বধীনতা বিরোধী কাজ। তাই মানুষ ইচ্ছে করলেই তার সকল কাংখিত জিনিস অর্জন করতে পারে না। পারে না

মোহর : নারীর অপরিহার্য অধিকার : মুফতী পিয়ার মাহমুদ

ইসলামের যে বিধানগুলো আল কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে বর্ণনা করা হয়েছে তার অন্যতম হলো স্ত্রীর মোহর। বিয়ের কারণে নারীর সতীত্ব রক্ষার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের খাতিরে ইসলাম স্বামীর উপর যে অর্থনৈতিক যিম্মাদারী আরোপ করেছে। তারই নাম মোহর। কুরাআন হাদীসে কোথাও একে “সিদাক” শব্দে উল্লেখ করা হয়েছে কোথাও বা আবার অন্য শব্দে। কত প্রসঙ্গে কত ভাবে যে মহাপ্রজ্ঞাময়

খতমে নবুওয়াত ও শেষ নবী : যোবায়ের বিন জাহিদ

আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সর্বশেষ নবী। তার পরে পৃথিবীতে আর কোন নবীর আগমন ঘটবে না। হযরত আদম আ. থেকে নিয়ে মানব জাতির হেদায়েতের  উদ্দেশ্যে যত নবী আল্লহ তায়ালা প্রেরণ করেছেন, তাদের সমাপ্তি হয়েছে বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মাধ্যমে। নবীদের ধারাবাহিকতার এ পরিসমাপ্তিকে বলা হয় ‘খতমে নবুওয়াত’। আর আমাদের

ধর্ষণ কেন ? নেপথ্যে কী ? : মুফতী মুহাম্মদ শোয়াইব

ভয়ানকরূপে বৃদ্ধি পাচ্ছে ধর্ষণ। কোমলমতি শিশু থেকে অশীতিপর বৃদ্ধ পর্যন্ত কেউই রেহাই পাচ্ছে না ধর্ষণের হাত থেকে। মানব সমাজের মরণব্যাধিরূপে আবির্ভূত ধর্ষণের স্টাইল ও কৌশলেও দিন দিন নতুন নতুন মাত্রা যোগ হচ্ছে। বৃদ্ধি পাচ্ছে তার ভয়াবহতাও। ধর্ষণের পর গলা টিপে বা স্বাস রুদ্ধ করে হত্যা করা এখন অতি মামুলি ব্যাপার। চার থেকে পাঁচ বছরের যে

একটি তাওবা ও আমাদের শিক্ষা : মাওলানা আমীরুল ইসলাম

১৯৬৫ সনের কথা। হজ্জের সফরে এক বৃদ্ধের সাথে আমার পরিচয়। খুবই সাদা মনের মানুষ। কথাবার্তায় অসাধারণ মাধুর্যতা। মদীনা মুনাওরায় তার একটি ছোট্ট রেস্তোরাঁ। জীবিকা হিসেবে এটাই তার একমাত্র সম্বল। খুব একটা জাঁকজমক না হলেও অনেক সাজানো গুছানো। খাবারের মানও খুব একটা খারাপ না। প্রথম পরিচয়েই তার সাথে আমার সখ্যতা গড়ে উঠলো। কথায় কথায় অনেক বন্ধুত্ব

ইসলামী ব্যাংকিং : সমস্যা ও প্রস্তাবনা : মুফতী মুআজ আহমদ

সুদভিত্তিক আধুনিক ব্যাংক ব্যবস্থার সুচনা হয় ষোড়শ শতকে। এরপর চলে যায় কয়েক শতাব্দি। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ১৯৬৩ সালে ড. আহমদ নজ্জারের উদ্যোগে মিসরের মিটগামারে সর্ব প্রথম প্রতিষ্ঠিত হয় ইসলামী ব্যাংক। বাংলাদেশে এর সুচনা হয় ১৯৮৩ সালে। এরপর শুরু হয় ক্রমবিকাশ। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে অদ্যাবধি এ স¦ল্প সময়ে ইসলামী ব্যাংকগুলোর সাফল্য ঈর্ষণীয়। ইসলামী অর্থনীতি ও ব্যাংকিংয়ের ভাবধারা

আধুনিক শিক্ষিত দীনদার ত্যাগ সারল্য ও বিড়ম্বনা: শরীফ মুহাম্মদ

দ্বীনদার বলতে সাধারণভাবে এখন আমরা বুঝি ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দ্বীনের ওপর অনুশীলনে অভ্যস্ত মানুষ। ইবাদত-আমল, বেশভূষা ও চালচলনে যারা ফরয ওয়াজিব ও সুন্নতের ওপর আমল করতে সচেষ্ট থাকেন, তারাই দ্বীনদার হিসেবে পরিচিত। এ সমাজে এ রকম দ্বীনদার মহলের মাঝে দুটি শ্রেণীর অস্তিত্বই বড় রকমভাবে দৃশ্যমান। একটি শ্রেণী হচ্ছেন দেশের আলেমসমাজ, যারা নিয়মতান্ত্রিক

রোহিঙ্গ মুসলিম হত্য : বিশ্ববিবেকের নিরবতা : আতিকুর রহমান নগরী

প্রান্তেই নজর দেবেন মুসলিম নির্যাতন কোথাও খুব বিরল নয়। বর্তমান দুনিয়ার সবচে স্বল্পমূল্য জিনিসগুলোর তালিকায় চলে এসেছে মুসলিমদের রক্ত। ধরাপৃষ্ঠের অন্য কোনো জাতি বা ধর্ম ইসলাম বা মুসলিমের মতো নির্যাতিত নয়। জগতের সবচে বড় নিগৃহিত জাতির নাম মুসলিম। আধুনিক দুনিয়ায় বসনিয়া-চেচনিয়া-জিংজিয়াং ও মিন্দানাওয়ের পর কাশ্মির-গুজরাট-আসাম, ফিলিস্তিন-আফগান-ইরাক ও মায়ানমারে চলছে মুসলিম নিধনযজ্ঞ। জাতিসঙ্ঘের ঘোষণা অনুযায়ী পৃথিবীতে

শরীয়তের দৃষ্টিতে কনে দেখা ও পাত্রপাত্রী নির্বাচন : মুফতি পিয়ার মাহমুদ

কনে দেখা: বিয়ে-শাদীর একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো পাত্র-পাত্রী নির্বাচন। দাম্পত্য জীবনের পরিধি যেমন অত্যন্ত ব্যাপক ও বিস্তৃত এর সমস্যাও তেমন খুবই বিস্তৃত, জটিল ও স্পর্শকাতর। এ জন্য বিয়ের পূর্বেই পাত্র-পাত্রী দেখে সকল দিক গভীরভাবে তলিয়ে দেখা জরুরী, যেন পরবর্তীতে এ সংক্রান্ত কোন সমস্যা দাম্পত্য জীবনকে দুর্বিষহ না করে তোলে। এ জন্য ইসলাম এর প্রতি

সত্যের অভাবিত বরকত : মুহাম্মদ শরীফুল আলম

মুসলিম জাতি দীর্ঘ সাতশ বছর শাসন করেছিল এই ভারত উপমহাদেশ। কিন্তু কালের আবর্তনে বৃটিশদের পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ হয়ে পড়ে তারা। গোটা ভারত উপমহাদেশে ইংরেজরা নিজেদের একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে। তাদের শাসন-শোষণের যাঁতাকলে পিষ্ট হয় আপামর জনতা। কতিপয় রাজার ভোগ-বিলাসিতা ও গাদ্দারদের বেইমানির কারণে মুসলমানরা নেতৃত্ব- কর্তৃত্ব-ক্ষমতা সব হারায়। হয়ে যায় একেবারে নিঃস্ব। তবু খাঁটি ঈমানদারগণ

আলেম সমাজ ও জনসাধারণের মাঝে সুসম্পর্ক সময়ের দাবী : মূল : মাওলানা রফিউদ্দিন হানীফ- হায়দারাবাদ, অনুবাদ : মুফতি মাহফুজুর রহমান

আজ গোটা বিশ্বে যেভাবে নাস্তিকতা, আশ্লীলতা, বেহায়াপনা পথভ্রষ্টতা ও বিপথগামিতা জ্যামিতিকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তা খুবই আশঙ্কাজনক। সাদাসিধা সরলমনা মানুষদেরকে তাদের অসচেতনতায় ইসলামী শিক্ষা ও সরলপথ থেকে বিচ্যুত করা হচ্ছে। সম্মোহিত ও বিমোহিত করা হচ্ছে বাহ্য চাকচিক্য দিয়ে। প্রভাবিত করা হচ্ছে প্রভাব প্রতিপত্তি দিয়ে। প্রতারিত করা হচ্ছে গলতকে সঠিক বলে, বিষকে প্রতিষেধক বলে। এক কথায় সরলমনা

ডিভোর্সের নেপথ্য কারণ : মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব

বিকারগ্রস্ত মানুষ সবসময় ছিল এখনও আছে। সময়ের প্রয়োজন ও প্রযুক্তির বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে এসব মানুষ বাড়ছে বৈ কমছে না। বিকারগ্রস্ত সমাজের একটি বড় ব্যাধি হলো ডিভোর্স। সামান্য থেকে সামান্যতম কারণে একটি সাজানো সংসার ভেঙ্গে খান খান। অতি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশঙ্কাজনক ভাবে বাড়ছে ডিভোর্সের হার। ঢাকার একটি প্রভাবশালী দৈনিকের পক্ষ থেকে ডির্ভোসের প্রবণতা নিয়ে

সন্ত্রাস নির্মূলে ইসলামের ভূমিকা : মাহবুবুর রহমান নোমানি

সন্ত্রাস বর্তমান বিশ্বের একটি বার্ণিং ইস্যু। সব চেয়ে আলোচিত বিষয় ও আতংকের নাম। এটি সমাজের দুষ্টক্ষত, মরণব্যাধি বিষফোঁড়া; যার অপারেশন ব্যতিরেকে সমাজের শান্তি, স্বস্তি বজায় রাখা সম্ভব নয়। ব্যক্তি সন্ত্রাস, সামাজিক সন্ত্রাস, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস, তথ্য সন্ত্রাস, রাজনৈতিক সন্ত্রাস, সাংস্কৃতিক সন্ত্রাস ইত্যাদি হরেক রকম সন্ত্রাসে ছেঁয়ে গেছে আজকের পৃথিবী। সন্ত্রাসের ভয়াবহ অভিশাপে দেশ-জাতি আজ

মাতা পিতা সন্তানের জান্নাতের পথ : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

সন্তানের কাছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় নেয়ামত হল মা বাবা। আর মা বাবার কাছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় নিয়ামত হলো সন্তান। মাকে সন্তুষ্ট করতে হবে, তাহলে দুনিয়া-আখেরাতের কোথাও আটকাবে না। মা ছাড়া সন্তানের কোনো গতি নেই। মা যেমনই হোক মায়ের দোআ যারা পাবে জীবনে তাদের কোনো ভয় নেই। মানুষ তো মূল্যবান সম্পদ অনেক পয়সা খরচ করে অর্জন

জান্নাত কোথায় অবস্থিত ? : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ ফরমান, হুজুর সা. হযরত জিবরাইল আ. কে আরেকবার তার আসল ছুরতে দেখেছিলেন, সিদরাতুল মুনতাহার নিকটে যার কাছে অবস্থিত বসবাসের জান্নাত। [নাজম ১৩-১৫] বিশেষ আলোচনা : বড়ই বৃক্ষকে বলা হয় সিদরুন, মুনতাহা বলা হয় চুড়ান্ত গন্তব্য স্থানকে। সুতরাং হাদীস শরীফে এসেছে যে, সপ্তম আকাশে ইহা একটি বড়ই বৃক্ষ। উর্ধ্ব জগৎ থেকে যে সমস্ত

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড একটি পর্যালোচনা : মুফতী আলী হুসাইন

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড কথাটি স্বতসিদ্ধ একটি বাণী। ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের শ্লোগান এটি। কিন্তু কী এর মর্ম, কিইবা এর দাবী? অনেকেরই হয়ত ভেবে দেখার সুযোগ হয়নি! কাজেই আসুন এ নিয়ে একটু ভেবে দেখি। দেখুন একজন মানুষের সমস্ত শক্তিমত্তার মূল হল এই শিক্ষা নামক মেরুদণ্ড। যে মানুষের মেরুদণ্ড নেই, তার কোন সৌর্য-বির্য নেই, নেই মাথা উচু

গুনাহের ইহকালীন শাস্তি : মাওলানা মাকসুদুর রহমান

আমরা আল্লাহ তাআলার বান্দা। আল্লাহ তাআলা আমাদের মাবূদ। তিনি আমাদের সৃষ্টিকর্তা পালনকর্তা রিযিকদাতা। তার অসংখ্য অগণিত নেয়ামত আমরা প্রতিমূহুর্তে ভোগ করছি। তাই বান্দা হিসেবে আমাদের একান্ত কর্তব্য হল, সদা তার হুকুমমত চলা এবং তার নাফরমানি থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহ তাআলা তার অনুগত্যের উপর আমাদের জন্য পুরুষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন, আর অবাধ্যতা ও নাফরামনীর উপর দিয়েছেন বহু

মহিলা মাদরাসা রমনীর আদর্শ পাঠশালা : মিযানুর রহমান জামীল

শুরু করছি মহান আল্লাহ তাআলার নামে যিনি পরম করুণাময় অতীব দয়ালু। সমস্ত প্রসংশা আল্লাহ তাআলার জন্য যিনি জগতসমূহের প্রতিপালক। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে জানে এবং যে জানেনা, উভয়ে এক না।’ আর হাদীসের মধ্যে এসেছে, ‘দীনি ইলম শিক্ষা করা প্রত্যেক নর-নারীর উপর ফরজ।’ ইসলাম শান্তি ও মানবতার ধর্ম। নর-নারী উভয়ের জন্য এর বিধানের রয়েছে

উম্মতের ফিকিরে হযরত ইলিয়াছ রহ. : হাকীমুত্ব তুল্লাব মুফতী হাবীবুল্লাহ

বনী আদম দুনিয়াতে আল্লাহর খলীফা। ইলম ও জ্ঞান হতে বঞ্চিত অসংখ্য সৃষ্টির মাঝে সে এক জ্ঞানবান সৃষ্টি। তার জ্ঞান চর্চার সঠিক ও উত্তম পাত্র হলো, আল্লাহর জ্ঞান ও তার মারেফত হাসিল করা। যেই দৌলতের কারণে তাকে যমীনের খেলাফত দান করা হয়েছে সেই দৌলত ও নেয়ামত লাভের প্রথম সিঁড়ি হলো তার রবের উপর পূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন


Hit Counter provided by Skylight