বিভাগ : জান্নাত

জান্নাতবাসীদের মর্যাদা ।। সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

সত্তর হাজার লোক বিনা হিসাবে জান্নাতে যাবে হযরত আবু হুরায়রা রা. বলেন, নবী করিম সা. এরশাদ ফরমান, ‘আমার উম্মতের একদল লোক জান্নাতে যাবে। তাদের সংখ্যা হবে সত্তর হাজার। তাদের চেহারা হবে ১৪ তারিখের রাতের চাঁদের ন্যায় উজ্জ্বল। হযরত উকাশা ইবনে মহসীন রা. আরজ করেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ, আপনি দোয়া করুন যাতে আমাকে তাদের মধ্যে গণ্য করা

জান্নাতবাসীদের মর্যাদা : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

হাফেজে কুরআনের মর্যাদা হযরত আবু সাঈস খুদরী (রাঃ) বলেন নবী করিম (সঃ) বলেন- হাফেজে কুরআন যখন জান্নাতে প্রবেশ করবে তখন তাকে বলা হবে যে, পড়ে যাও এবং উপরে উঠতে থাক। তখন সে পড়তে থাকবে এবং প্রতি আয়াত পড়ে একধাপ উপরে ওঠতে থাকবে। অতঃপর পবিত্র কুরআনের শেষ পর্যন্ত পড়ে সর্বোচ্চ স্থানে উঠে যাবে। মুজাহিদগণের মর্যাদা হযরত

জান্নাতীদের জান্নাতের নেয়ামত : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

একজন নিম্নমানের জান্নাতীর ৭ টি মহল হবে নবী কারীম সা. বলেন, জান্নাতীদের মধ্যে সর্বনিম্নের জান্নাতীদের মর্যাদা এমন ব্যক্তি হবে যার মহল হবে সাতটি। একটি মহল হবে রৌপ্যের, একটি মোতির, একটি  যবরযদের, একটি  ইয়াকুতের, আরেকটি মহল এমন হবে যা কোন চক্ষু অনুভব করতে পারবে না। আরেকটি মহল হবে আরশের রঙের। প্রতিটি মহলে আবার অলংকারাদী/ পোষাক পরিচ্ছদ

আমলের বিনিময়ে জান্নাতীদের জান্নাতে অবস্থান : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

সর্বনি¤œ জান্নাতীর অবস্থান হযরত মুগিরা ইবনে শোবা রা. নবী কারীম সা. থেকে ইরশাদ করেন- হযরত মুসা আ. আল্লাহর কাছে জানতে চাইলেন যে, জান্নাতে সর্বনি¤œ জান্নাতী কে হবে? আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ ফরমান, জান্নাতীরা জান্নাতে প্রবেশের পর সর্বশেষ এক ব্যক্তি এলে আল্লাহ পাক আদেশ করবেন তুমিও জান্নাতে চলে যাও। সে আরয করবে, হে আল্লাহ! লোকেরা নিজ নিজ

জান্নাতীদের জান্নাতের অবস্থান ও সঙ্গী গ্রহণ : সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

4 (4)

কাফেরদের জান্নাতের অংশ মুসলমানদের দেয়া হবে। হযরত আবু  হুরায়রা রা. বলেন নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন- তোমাদের প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য দু’টি স্থান রয়েছে একটি জান্নাতে অপরটি জাহান্নামে। যখন কোন কাফের মারা যায় এবং জাহান্নামে চলে যায় তখন জান্নাতবাসী উক্ত কাফেরের জান্নাতের অংশের অংশীদার হয়ে যায়। জান্নাতে অংশীদারিত্ব থেকে যারা বঞ্চিত থাকবে হযরত আনাস

জান্নাতীরা হবেন বিশেষ অতিথি : সৈয়দা সুফয়া খাতুন

al-jannatbd

ফেরেশতারা জান্নাতীকে জান্নাতে ভ্রমণ করাবে হযরত যহ্হাক রা. বলেন মুমিন লোক জান্নাতে প্রবেশ করার পূর্বে একজন ফেরেশতা প্রবেশ করবে। এই ফেরেশতা তাকে জান্নাতের অলিগলি ভ্রমণ করাবে। তাকে বলা হবে তুমি যত দেখতে পার দেখ। জান্নাতী তখন বলবে অধিকাংশ মহল সোনা -রোপা ও একই রকম দেখতে পাচ্ছি। ফেরেশতারা বলবে এ সব আপনার জন্যই তো। অতঃপর জান্নাতী

জান্নাতিদের আনন্দ : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd

বিশালকায় উঠের উপর আরোহীগন আল্লাহ তাআলা বলেন, আমি পরহেযগার লোকদিগকে অতিথিরূপে দয়াময়ের মেহমান বানাব। [মারইয়াম: ৮৫] এই আয়াতের   তাফসীরে হযরত নোমান ইবনে সাদ বর্ণনা করেন যে, তোমাদের জানা উচিৎ আল্লাহর কছম, এ সমস্ত সম্মানিত লোকদেরকে মেহমানরূপে পদব্রজে চলতে দেয়া হবে না বরং তাদের কাছে এমন উট পেশ করা হবে যার তুলনা কোন কালেও কোন মাখলুকাত

জান্নাতের অপরূপ নিয়ামতের বর্ণনা : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

Jannater porichoi

কারা জান্নাতের সুঘ্রাণ থেকে বঞ্চিত থাকবে হযরত ইবনে আমের রা. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম  সা. ইরশাদ করেন, যে মুসলমান চুক্তিবদ্ধ জিম্মি কাফেরকে হত্যা করেছে সে জান্নাতের সুঘ্রাণ থেকে বঞ্চিত হবে। অথচ জান্নাতের সুঘ্রাণ পাওয়া যাবে সত্তর বছরের  দূরত্ব থেকে। হযরত মাকাল ইবনে ইয়াসার রা. থেকে বর্ণিত হুজুর সা. বলেন, যে ব্যক্তিকে আল্লাহ তাআলা তার প্রজা

জান্নাতের বালাখানার বর্ণনা : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd

প্রশিদ্ধ তাবেয়ী হযরত মুজাহিদ রহ. বলেন, জান্নাতের ভূমি হবে রৌপ্যের। হযরত সাহল বিন সাদ রা. বলেন, নবী কারীম সা. ইরশাদ করেন, জান্নাতের যমীন হবে গড়াগড়ি খাওয়ার জায়গা। তা হবে কস্তুরীর। তোমাদের জন্তুগুলোর গড়াগড়ি খাওয়ার জায়গার ন্যায়। জান্নাতের দেয়াল হবে সোনা রুপা ও কস্তুরীর হযরত আবু হুরায়রা রা. বলেন, জান্নাতের চারটি দেয়ালের একটি ইট স্বর্ণের, আরেকটি

ধন সম্পদের বিনিময়ে জান্নাতের মহল ক্রয় : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

sign4

জাফর ইবন সুলায়মান রহ. বলেন যে, একদা আমি এবং মালেক ইবন দিনার একসঙ্গে বসরা শহরে গেলাম। ঘুরতে ঘুরতে আমরা একটি আলিশান মহলের কাছে গিয়ে এর ভিতরে প্রবেশ করে দেখলাম যে, মিস্ত্রী ও অন্যান্য শ্রমিকরা কাজ করতেছে। মহলটির একপাশে বসে আছে অত্যন্ত সুন্দর সুদর্শন  এক যুবক। এরকম সুন্দর পুরুষ আমরা আগে কখনও দেখিনি। যুবকটি মহল নির্মাণ

আসহাবুল আরাফ : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

আরাফের পরিচয় : জান্নাতবাসী এবং জাহান্নামবাসীদের মাঝখানে একটি দেয়াল থাকবে তার নাম আরাফ। সেখানে কিছু মুসলমাকে অস্থায়ীভাবে রাখা হবে, যাদের নেকি বদি সমান সমান হবে। তারা আরাফের উপর থেকে জান্নাত জাহান্নাম দেখতে পাবে, তারা জান্নাতি এবং জাহান্নামিদের দেখে চিনবে এবং তাদের সাথে কথা বলবে। যার বিবরণ কুরআন শরীফের সূরা আরাফে বিস্তারিত আলোচিত হয়েছে। আল্লাহ তাআলা

হাশরের ময়দানে উপস্থিতদের বিভিন্ন অবস্থা : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

জাহান্নামে অধিকাংশ মহিলা এবং সম্পদশালীরা যাবে হযরত ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, আমি জান্নাতে উঁকি দিয়ে দেখলাম, তার অধিকাংশই দরিদ্র এবং আমি জাহান্নামে উঁকি দিয়ে দেখলাম, তার অধিকাংশই সম্পদশালী এবং মহিলা। [তারগীব] এক বর্ণনায় আছে, রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, আমি জান্নাতে প্রবেশ করলাম, দেখলাম মর্যাদাবান জান্নাতি গরীব মুহাজির এবং মোমিনদের নাবালেগ

জান্নাতে প্রবেশের প্রাথমিক অবস্থা : সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

Deobond Madrasah

সারওয়ারে কায়েনাত রাসূলুল্লাহ সা. জান্নাতের দরজা খুলবেন রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন, কেয়ামতের দিন সমস্ত পয়গম্বর থেকে আমার অনুসারী বেশি উপস্থিত হবে। আমি সর্বপ্রথম জান্নাতের কড়া নাড়াব। [মুসলিম শরীফ] রাসূলুল্লাহ সা. আরো ইরশাদ করেন, কেয়ামতের দিন আমি জান্নাতের দরজায় এসে দরজা খুলতে বলব। জান্নাতের দারোগা প্রশ্ন করবে, আপনি কে? জওয়াব দিব আমি মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া

হাশরের ময়দানে শাফায়াত ও আমল অনুযায়ী নুরের বণ্টন সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

তাজাল্লি হযরত আবু সাঈদ খুদরি রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা রাসূলুল্লাহ সা.-এর দরবারে আরজ করলাম, ইয়া রাসূলাল্লাহ, আমরা কি কেয়ামতের দিন আল্লাহ পাককে দেখতে পাব? রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, হ্যাঁ (অবশ্যই দেখতে পাবে)। আচ্ছা, তোমাদের কি দুপুর বেলায় সূর্য দেখতে কোন কষ্ট হয়? যখন কোন মেঘ থাকে না। আকাশ একেবারে পরিস্কার থাকে। চৌদ্দ তারিখের

হাশরের ময়দানে শাফায়াত ও আমল অনুযায়ী নূরের বন্টন : সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

অভিশাপকারীরা শাফাআতের মর্যাদা লাভ থেকে মাহরূম হবে হযরত আবু দারদা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, লানত (অভিশাপ) দেওয়ায় অভ্যস্ত লোকেরা কেয়ামতের দিন সাক্ষীও হবেনা এবং শাফাআতকারীও হবে না। এ বদ অভ্যাসের কারণে তাদের সাক্ষ্য দান এবং শাফাআত করার অধিকার দেয়া হবেনা, অথচ তা বড় সৌভাগ্য এবং ইজ্জতের বিষয়। [মুসলিম] মুজাহিদের শাফাআত তিরমিযী শরীফের

বান্দার আমলের ওজন : সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

আল্লাহর রহমতে মাফ করা হবে হযরত আবু সাঈদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, কস্মিনকালেও কেউ আল্লাহর রহমত ছাড়া জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না। সাহাবায়ে কেরাম আরজ করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আপনিও কি আল্লাহর রহমত ছাড়া জান্নাতে প্রবেশ করতে পাররবেন না? জওয়াবে রাসূলুল্লাহ সা. হাত মাথায় রেখে বলেন, আল্লাহ তাআলা স্বীয় রহমত দ্বারা আমাকে

বান্দার আমলের ওজন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

এক বান্দার আমলের ওজন হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, নিশ্চয়ই কেয়ামতের দিন আল্লাহ তাআলা সমস্ত মাখলুকের সামনে পুরো উপস্থিতি থেকে আমার এক উম্মতকে আলাদা করবেন। তার সামনে নিরানব্বইটি দফতর খুলে দেয়া হবে। প্রত্যেকটি দফতর এমন হবে যার পরিধি দৃষ্টিসীমার বাইরে থাকবে (এ সবগুলো দফতরই গুনাহের হবে)। এরপর আল্লাহ পাক

সকল প্রাণীর বিচার হবে আমলের ভিত্তিতে সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

Bichar

আমলনামা  : কেয়ামতের দিন  আমলনামা পেশ করা হবে। দুনিয়াতে বান্দা যে কাজ করে, কেরামান কাতেবীন তা লিপিবদ্ধ করে রাখেন। কেয়ামতের দিন সেটাই পেশ করা হবে। সূরা জাসিয়ায় উল্লেখ হয়েছে- “এবং (সেদিন) আপনি প্রত্যেক দলকে (ভয়ের কারণে) নতজানু হয়ে পড়ে থাকা অবস্থায় দেখতে পাবেন, প্রত্যেক দলকে তার আমলনামার দিকে ডাকা হবে এবং তাদের বলা হবে, আজ

বান্দার হক আদায়ে নেকি বদির লেনদেনসংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

সহজ হিসাবহযরত আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, একদা রাসুলুল্লাহ সা. নামাযের মধ্যে দু’আ করছিলেন- ‘হে আল্লাহ আমার সহজ হিসাব নিও।’ আমি আরজ করলাম, ইয়া রাসুলাল্লাহ সা. ‘সহজ হিসাব’ কথার উদ্দেশ্য কি? হুযুর সা. এরশাদ করেন, আমলনামার মধ্যে শুধু নজর বুলিয়ে নেয়া (ভালভাবে পর্যবেক্ষণ না করা)। যার হিসাব ভালভাবে নেয়া হবে সে ধ্বংস হবে। [মুসনাদে আহমদ] কঠিন

হাশরের ময়দানে উপস্থিতদের বিভিন্ন আমলের হিসাব নেওয়া হবে : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

পূর্ব প্রকাশিতের পর… আল্লাহ তাআলা বলেন, আর প্রত্যেক প্রাণীই তার কর্মফল পুরোপুরি পাবে। [সুরা জুমার : ৭০] নিয়তের উপর বিচার হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, নিশ্চয়ই কেয়ামতের দিন যেসব লোকের ব্যাপারে সর্বপ্রথম ফয়সালা করা হবে তাদের মধ্যে এমন এক ব্যক্তিও থাকবে, যাকে (জেহাদে নিহত হওয়ার কারণে) শহীদ মনে করা হত,

বিচারের অপেক্ষায় : সংকলন : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

al-jannatbd.com, আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন, al-jannatbd.com, quraner alo, মাসিক জান্নাত, islamer alo, www.al-jannatbd.com, al-jannat, bangla islamic magazine, bd islam, islamic magazine bd, ব্লগে জান্নাত, জান্নাতের পথ, আল জান্নাত,

মানুষদের নিজ নিজ পিতার নামে ডাকা হবে হযরত আবু দারদা রা. থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন, কেয়ামতের দিন তোমাদের নামের সাথে তোমাদের বাবার নাম যোগ করে ডাকা হবে। এজন্য তোমরা ভাল নাম রাখ। [মুসনাদে আহমাদ, আবু দাউদ] কেয়ামত উচুঁ-নীচু কারী আল্লাহ তাআলা এরশাদ করেনÑ “যখন ঘটনা ঘটার তখন ঘটে যাবে, তা ঘটার মধ্যে কোন


Hit Counter provided by Skylight