বিভাগ : জান্নাতী কাফেলা

ইসলামে কর্মজীবী ও শ্রমিকদের অধিকার : উমর মুহাম্মদ মাসরুর

ইসলাম গৃহকর্মী ও শ্রমিকদের মর্যাদা প্রদান করেছেন, তাদের অবস্থান বিবেচনা করেছে, তাদের সম্মানিত করেছে এবং ইতিহাসে প্রথমবারের মতো তাদের অধিকারের স্বীকৃতি দিয়েছে। পূর্ববর্তী কোনো কোনো সমাজব্যবস্থায় কাজ ও শ্রমের অর্থ ছিলো দাসত্ব ও গোলামি। কোনো কোনো সমাজব্যবস্থায় কাজের অর্থ ছিলো হীনতা ও অপদস্থতা। কিন্তু ইসলাম সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে শ্রমজীবী মানুষের সার্বিক অধিকারের স্বীকৃতি

অসুস্থ ব্যক্তির আত্মিকসেবা ও ধর্মীয় অধিকার : মমিনুল ইসলাম মোল্লা

মুসলিম পরিবারের কেউ অসুস্থ হলে তাকে মুসলিম ডাক্তারের নিকট নিয়ে যাওয়া তার ধর্মীয় অধিকার। ভাল মুসলিম ডাক্তার পাওয়া না গেলে ভিন্ন কথা, তবে চিকিৎসা যদি ঝাড়-ফুঁক জাতীয় হয় তাহলে অবশ্যই চর্চাকারী মুসলিম হতে হবে। কুরআনের আয়াত বা সহিহ হাদিসের দুয়া দিয়ে ঝাড়-ফুঁক করা যেতে পারে। তবে মনে রাখতে হবে আরোগ্যদাতা একমাত্র আল্লাহ। রাসুলে আকরাম সাল্লাল্লাহু

রমযান বারিতে স্নাত হোক আমাদের আত্মা : হাবীবুল্লাহ সিরাজ

রমযান বেসেস্তী উৎসব। আকাশী সৌরভ। সৌরভান্বিত এর প্রতিটি সময়খ-। নূরের ফোয়ারায় চমকিত প্রতিটি প্রহর। স্বর্গীয় মৌতাতে সুবাসিত প্রতিটি সাঁঝ। আসমানী তাগিদে পরিপাটিত তারাবির মিলনমেলা। প্রেমের সরোবরে ডুবন্ত জায়নামাজের মালি। সুন্নতের জয়গান সেহরীরর কোলাহল। আবেগের উচ্ছ্বাসে ভরে উঠা প্রতিটি মুহূর্ত। রহমতের শবনমে শীতল প্রেমিক মুমিনের আত্মা। মাগফিরাতের ফাল্গুনিতে মৌ মৌ হাসিরব পাপীতাপ সকল বান্দা। নাজাতের হাতছানিতে

ঝড়-তুফান : দুর্যোগে যা করার নির্দেশ দেয় ইসলাম : আতিকুর রহমান নগরী

সম্প্রতি সিলেটসহ সারাদেশে এখন প্রবল বেগে বাতাস বইছে, কেউ বলছে ঘূর্ণিঝড় হচ্ছে। কেউ টর্নেডো, আইলা, সিডর আর নার্গিসের থাবার মত গত দু’দিনের ঝড়-তুফানকে মনে করছে। প্রবল বর্ষণ ও ভারী বর্ষণ আর শীলা বৃষ্টিতে আক্রান্ত দেশের মানুষ। দিনে গরম, বিকেলে মেঘলা আকাশ আর রাতে বজ্রের গর্জন শুনা যাচ্ছে। দিনের বেলা রাতের আধার নেমে আসছে। এসবই দুর্যোগের

পবিত্র কুরআন ও বিজ্ঞান : আবদুল হান্নান জুলফিকার

“আমি আমার বন্দার প্রতি যা অবতীর্ণ করেছি, তাতে তোমাদের বিন্দু মাত্র সন্দেহ থাকলে, তোমরা তার অনুরূপ কোন সূরা আনয়ন কর। এবং তোমরা যদি সত্যবাদি হও তাহলে আল্লাহ ব্যাতীত তোমাদের সকল সাহায্যকারীকে নিয়ে আস। যদি আনয়ন না কর তবে সেই আগুনকে ভয় কর, কাফিরদের জন্য যা প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। [সূরা বাকারা : আয়াত ২৩,২৪] এটা

দ্বীনের প্রতি উৎসাহ প্রদান : এস এম আরিফুল কাদের

দ্বীন-ধর্মের উপর আমল করা অবশ্যই কর্তব্য। পাশাপাশি নিজের পরিবারস্থ সকলকে উৎসাহ প্রদান করাও অবশ্য কর্তব্য। নিজেকেসহ পরিবারের সকলকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচাতে বলেছেন মহান আল্লাহ। কুরআনের ভাষায়, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা নিজেকে এবং পরিবারের সকলকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচাও”। পিতা-মাতা, ভাই-বোন, পুত্র, স্বামী সবাইকে আল্লাহর দ্বীনের প্রতি উৎসাহ প্রদান করা অবশ্য কর্তব্য। সে ক্ষেত্রে মেয়েরা এ

কোথায় আজ সভ্যতা মানবতা? আজমল হুসেন

চোখের পানি নয়, এখন প্রয়োজন জিহাদের আগুন! কলমের কালি নয়, এখন প্রয়োজন বুকের তাজা খুন। দুুর্বলের ফরিয়াদ নয়, এখন প্রয়োজন বজ্রের গর্জন। কিন্তু! আমার মত ভীরু-কাপুরুষ ফরিয়াদ ও আর্তনাদ ছাড়া আর কি করতে পারে? আমার বুকে তো নেই ঈমানের কুওয়ত, আমার দিলে তো নেই মুজাহিদের হিম্মত। আমার শিরায় তো নেই রক্তের সেই উচ্ছাস! আমি শুধু

অন্ধকার থেকে গভীর অন্ধকারে : নুশরাত জাহান রেশমী

স্কুলে যাওয়ার জন্য দু’তিন পা বাড়াল মাত্র, বাবা পেছন থেকে ডাক দেয় রবিন এদিকে আয়। কি হয়েছে বাবা? দেরি হয়ে যাচ্ছে তো। বাবা! এই নে তোর নাস্তার টাকা। প্রতিদিন ব্যাগে রাখো আজ হাতে দিলে যে? বাবা, আমার ইচ্ছে হল আজ নিজের হাতে ছেলেকে নাস্তার টাকা দেব, তাই। ছেলেকে কাছে টেনে আদর করে বাবা হাকিম মিয়া।

লাশ : ফারহানা সিরাজ

সুফিয়া আজই ফেরার কথা। সেই কাক ডাকা ভোরে রওয়ানা হবে। একটু সকাল হলেই আবার জ্যামে পড়তে হবে। এদিকে সুফিয়ার ছোট বোন আয়েশা গতকাল থেকে উল্লাসে উচ্ছ্বাসে বিভোর। বড়বোন আসবে। ঈদের নতুন পোশাক আনবে। জুতা আনবে। সাজগোজের জিনিস আনবে। সেই কি আনন্দ আর মাতামাতি। বারবার মাকে বলে সুফিয়াপু কখন আসবে? কখন আসবে? আমার যে আর ত্বর

র্স্বাথপর মা : মুহাম্মদ দিলখোলাশা জাহিদ খান

বলতো আমি কে? তোমার গর্ভে রাতের আঁধারে লুকিয়ে জন্ম নেয়া আমি সেই হতভাগা সন্তান। আমি সেই যাকে লোক লজ্জার ভয়ে নর্দমায় একটা পাটের ছালার বস্তার ভেতরে করে জীবিত ফেলে এসেছিলে। জানো মা? তুমি চলে আসার পর আমার সাথে কি হয়েছিল? তুমি যখন বস্তা বন্দি করে আমায় ফেলে আসলে, আমি চোখ খুলে দেখি তুমি নেই। এদিক

ভালোবাসা এভাবেই উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পায় : আল জান্নাত

সাধারণত ছেলে সন্তানেরা শৈশব থেকেই মাতা-পিতার সাথে যেমন খুশী তেমন জীবন-যাপন করে। তাদের সুন্দর জীবন যাপনের সময় তারা পরিচালকদের সুদৃষ্টির ছায়ায় থাকে। তাই তখন তারা নিজের মনের চাহিদা অনুযায়ী চলতে অভ্যস্ত হয়ে যায়; কিন্তু যখন তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে যায় তখন তাদের চিন্তা-চেতনায় পরিবর্তন হওয়া উচিত। আর প্রত্যেককে এদিকে দৃষ্টি রাখা উচিত যেন তার

স্বাধীনতার অপব্যাখ্যা : মানবতা আজ কোথায়? জামিল আহমদ

ঐতিহাসিক ২৬ শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়। ২৫ শে মার্চের সূর্য চোখ বন্ধ করে আঁধার নামিয়ে আনল। এ সময় পাকিস্তানী সেনাবাহিনী বাংলাদেশে প্রবেশ শুরু করল। ঘড়ির কাটা বারটায় পা রাখলে আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসারে তারিখ বদলে গেল। শুরু হয়ে গেল ঐতিহাসিক ২৬ শে মার্চ। এর বেশ কয়েক মিনিট

পর্দা বিধান : ফাতেমাতুন নূর

পর্দা-বিধান ইসলামী শরীয়তের প থেকে সাধারণভাবে সমাজ ব্যবস্থার এবং বিশেষভাবে উম্মতের মায়েদের জন্য অনেক বড় ইহসান। এই বিধানটি মূলত ইসলামী শরীয়তের যথার্থতা, পূর্ণাঙ্গতা ও সর্বকালের জন্য অমোঘ বিধান হওয়ার এক প্রচ্ছন্ন দলিল। পর্দা নারীর মর্যাদার প্রতীক এবং ইফফাত ও পবিত্রতার একমাত্র উপায়। অনেকে মনে করেন, পর্র্দা-বিধান শুধু নারীর জন্য। এ ধারণা ঠিক নয়। পুরুষের জন্যও

দেখা হবে জান্নাতে ইনশা আল্লাহ : হাজেরা সুলতানা হাসি

সকালে ঘুম থেকে ওঠে প্রতিদিনের ন্যায় বই পড়ার জন্য বারান্দায় যাবো ঠিক তখনই আপুর একজন সহপাঠী কল দিয়ে একটি অপ্রত্যাশী সংবাদ দিলেন। আমাদের মাদ্রাসায় এবার দাওরা (মাষ্টার্স) জামাতে অধ্যয়নরত একজন ছাত্রী ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহ! শুনার পর খুব বেশি কষ্ট হলো। ওর মায়াবী মুখের প্রতিচ্ছবি বারবার ভেসে ওঠেছিলা চোখের পাতায়। সে প্রায় দেড় মাস অসুস্থ ছিলো,

মাতা-পিতার অবাধ্য সন্তান জান্নাতে যাবে না : মুহাম্মদ দিলখোলাশা জাহিদ খান

আমাদের সমাজে অনেক সন্তান তার গর্ভধারিণী ও লালন-পালনকারী বৃদ্ধ মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে দিয়ে আসে। অথচ আল্লাহ তাআলা বাবা-মায়ের মর্যাদা সবার উপরে দিয়েছেন। যে বাবা-মায়ের কারণে আমি-আপনি, আমরা এই সুন্দর পৃথিবীতে এসেছি। সেই গর্ভধারিণী ও লালন-পালনকারী মা-বাবাকে যারা বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে তারা আর যাই হোক মানুষ নয়। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন, আমার হুকুম পালন করার

ঘরের তা’লীম ও এক বিস্ময়কর কন্যাশশিু : মাহমুদ আল হাসান

কাতারের এক মধ্যবিত্ত পরিবার৷ ঘরে নিয়মিত তা’লীম হয় ৷ পরিবারের সকল মাহরামই নির্ধারিত সময়ে তা’লীমের ঘরে এসে হাজির হয়ে যায় ৷ অশীতপির বৃদ্ধ থেকে কোলের শিশু পর্যন্ত কেউ বাদ থাকে না ৷ এভাবে প্রতিদিন রিয়াদুস সালিহীন, ফাযায়েলে আমাল, ফাযায়েলে রমজান, ফাযায়েলে হজ্ব ইত্যাদি কিতাবাদির তা’লীম চলে ৷ আর সকলেই আত্মিক উন্নতি লাভ করে করে আমলের

ক্ষুদে মুক্তিযোদ্ধা : এ কে এইচ এম নকীবুল হক

মাঝরাত। চারদিকে অন্ধকার। নিরব নিস্তব্ধ। জহিরের একমাত্র ছেলে আমিনুল ঘুমিয়ে আছে। জহির যুদ্ধে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। যাওয়ার সময় জহির তার ছেলের শিয়রে দাঁড়িয়ে কপালে হাত রাখল। আলতো করে মুখে হাত বুলিয়ে বলল, তাদের জন্যই আজ যুদ্ধে যাচ্ছি। তার মতো শিশুদের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য। ছেলের মুখে হাত বুলিয়ে সকল মায়া- মমতা ত্যাগ করে চললেন

কুরআন মানব জাতির পথ প্রদর্শক : মমিনুল ইসলাম মোল্লা

কুরআন পাঠ উত্তম ইবাদত। আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. থেকে বর্ণিত তিনি বলেন যে, রাসুলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল কুরআনের একটি হরফ পাঠ করে সে উহার বদলে একটি নেকি লাভ করে আর একটি নেকি দশটি নেকির সমান [তিরমিযী শরীফ : হাদীস নং ২৯১০] তবে তা সুন্দর করে পড়তে হবে। কেউ ইচ্ছে

সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় রাসূল সা. : এইচ. এম. মুশফিকুর রহমান

সামাজিক আচার আচরণ ও মেলামেশা মানবজীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। ন্যায়বিচার হলো সামাজিক শান্তি, স্থিতিশীলতা ও শৃঙ্খলার সোপান। ন্যায়বিচারের মাধ্যমেই সমাজবদ্ধ জীবনের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়। যে দেশ ও সমাজে মজলুম মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয় সেখানে আল্লাহর আজাব ও আসমানী গজব নাজিল হয়। আখলাকুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বা নবীচরিত্র একটি সামগ্রিক বিষয়। বিচারকার্যে নবীর

কিশোর অপরাধ ও আমাদের দায়বদ্ধতা : আতিকুর রহমান নগরী

একটি শিশু নিরপরাধ এবং মাসুম বেশে জন্মগ্রহণ করে। তার মধ্যে থাকে ল আশা। শিশুকে সুমানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব পরিবার, সমাজ এবং রাষ্ট্রের। পরিবারই শিশুর শিার মুখ্য ভূমিকা পালন করে। আমাদের মনে রাখতে হবে আজকের শিশু-কিশোররা আগামী দিনের সম্পদ। তাকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার সুযোগ দিতে হবে। উন্নত বিশ্বে শিশুদের কল্যাণ ও বিকাশের জন্য

হিদায়েতের পথে : জামিল আহমদ

আমার জীবনটা তেমন ভাল কাটেনি। বলা যায় অনেক বড় অপরাধী ও পরিবেশ দূষণকারী ছিলাম। যেমন এই ক্ষুদ্র পৃথিবীর মানুষের কাছে তদ্রুপ এ ধরণীর প্রতিপালকের নিকটও। এমনকি নিজের কাছেও নিজেকে বড় অপরাধী মনে হত। কিন্তু কিছুই করার ছিল না। কেননা, আমার মাঝে ছিল না কোন…….। পাঁচ বছর বয়সে স্কুলে ভর্তি করে দিলেন আব্বু। কিছুদিন ভালই চলছিল,


Hit Counter provided by Skylight