বিভাগ : জান্নাতী কাফেলা

স্বাধীনতার অপব্যাখ্যা : মানবতা আজ কোথায়? জামিল আহমদ

ঐতিহাসিক ২৬ শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়। ২৫ শে মার্চের সূর্য চোখ বন্ধ করে আঁধার নামিয়ে আনল। এ সময় পাকিস্তানী সেনাবাহিনী বাংলাদেশে প্রবেশ শুরু করল। ঘড়ির কাটা বারটায় পা রাখলে আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসারে তারিখ বদলে গেল। শুরু হয়ে গেল ঐতিহাসিক ২৬ শে মার্চ। এর বেশ কয়েক মিনিট

পর্দা বিধান : ফাতেমাতুন নূর

পর্দা-বিধান ইসলামী শরীয়তের প থেকে সাধারণভাবে সমাজ ব্যবস্থার এবং বিশেষভাবে উম্মতের মায়েদের জন্য অনেক বড় ইহসান। এই বিধানটি মূলত ইসলামী শরীয়তের যথার্থতা, পূর্ণাঙ্গতা ও সর্বকালের জন্য অমোঘ বিধান হওয়ার এক প্রচ্ছন্ন দলিল। পর্দা নারীর মর্যাদার প্রতীক এবং ইফফাত ও পবিত্রতার একমাত্র উপায়। অনেকে মনে করেন, পর্র্দা-বিধান শুধু নারীর জন্য। এ ধারণা ঠিক নয়। পুরুষের জন্যও

দেখা হবে জান্নাতে ইনশা আল্লাহ : হাজেরা সুলতানা হাসি

সকালে ঘুম থেকে ওঠে প্রতিদিনের ন্যায় বই পড়ার জন্য বারান্দায় যাবো ঠিক তখনই আপুর একজন সহপাঠী কল দিয়ে একটি অপ্রত্যাশী সংবাদ দিলেন। আমাদের মাদ্রাসায় এবার দাওরা (মাষ্টার্স) জামাতে অধ্যয়নরত একজন ছাত্রী ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহ! শুনার পর খুব বেশি কষ্ট হলো। ওর মায়াবী মুখের প্রতিচ্ছবি বারবার ভেসে ওঠেছিলা চোখের পাতায়। সে প্রায় দেড় মাস অসুস্থ ছিলো,

মাতা-পিতার অবাধ্য সন্তান জান্নাতে যাবে না : মুহাম্মদ দিলখোলাশা জাহিদ খান

আমাদের সমাজে অনেক সন্তান তার গর্ভধারিণী ও লালন-পালনকারী বৃদ্ধ মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে দিয়ে আসে। অথচ আল্লাহ তাআলা বাবা-মায়ের মর্যাদা সবার উপরে দিয়েছেন। যে বাবা-মায়ের কারণে আমি-আপনি, আমরা এই সুন্দর পৃথিবীতে এসেছি। সেই গর্ভধারিণী ও লালন-পালনকারী মা-বাবাকে যারা বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে তারা আর যাই হোক মানুষ নয়। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন, আমার হুকুম পালন করার

ঘরের তা’লীম ও এক বিস্ময়কর কন্যাশশিু : মাহমুদ আল হাসান

কাতারের এক মধ্যবিত্ত পরিবার৷ ঘরে নিয়মিত তা’লীম হয় ৷ পরিবারের সকল মাহরামই নির্ধারিত সময়ে তা’লীমের ঘরে এসে হাজির হয়ে যায় ৷ অশীতপির বৃদ্ধ থেকে কোলের শিশু পর্যন্ত কেউ বাদ থাকে না ৷ এভাবে প্রতিদিন রিয়াদুস সালিহীন, ফাযায়েলে আমাল, ফাযায়েলে রমজান, ফাযায়েলে হজ্ব ইত্যাদি কিতাবাদির তা’লীম চলে ৷ আর সকলেই আত্মিক উন্নতি লাভ করে করে আমলের

ক্ষুদে মুক্তিযোদ্ধা : এ কে এইচ এম নকীবুল হক

মাঝরাত। চারদিকে অন্ধকার। নিরব নিস্তব্ধ। জহিরের একমাত্র ছেলে আমিনুল ঘুমিয়ে আছে। জহির যুদ্ধে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। যাওয়ার সময় জহির তার ছেলের শিয়রে দাঁড়িয়ে কপালে হাত রাখল। আলতো করে মুখে হাত বুলিয়ে বলল, তাদের জন্যই আজ যুদ্ধে যাচ্ছি। তার মতো শিশুদের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য। ছেলের মুখে হাত বুলিয়ে সকল মায়া- মমতা ত্যাগ করে চললেন

কুরআন মানব জাতির পথ প্রদর্শক : মমিনুল ইসলাম মোল্লা

কুরআন পাঠ উত্তম ইবাদত। আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. থেকে বর্ণিত তিনি বলেন যে, রাসুলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল কুরআনের একটি হরফ পাঠ করে সে উহার বদলে একটি নেকি লাভ করে আর একটি নেকি দশটি নেকির সমান [তিরমিযী শরীফ : হাদীস নং ২৯১০] তবে তা সুন্দর করে পড়তে হবে। কেউ ইচ্ছে

সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় রাসূল সা. : এইচ. এম. মুশফিকুর রহমান

সামাজিক আচার আচরণ ও মেলামেশা মানবজীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। ন্যায়বিচার হলো সামাজিক শান্তি, স্থিতিশীলতা ও শৃঙ্খলার সোপান। ন্যায়বিচারের মাধ্যমেই সমাজবদ্ধ জীবনের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়। যে দেশ ও সমাজে মজলুম মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয় সেখানে আল্লাহর আজাব ও আসমানী গজব নাজিল হয়। আখলাকুন্নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বা নবীচরিত্র একটি সামগ্রিক বিষয়। বিচারকার্যে নবীর

কিশোর অপরাধ ও আমাদের দায়বদ্ধতা : আতিকুর রহমান নগরী

একটি শিশু নিরপরাধ এবং মাসুম বেশে জন্মগ্রহণ করে। তার মধ্যে থাকে ল আশা। শিশুকে সুমানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব পরিবার, সমাজ এবং রাষ্ট্রের। পরিবারই শিশুর শিার মুখ্য ভূমিকা পালন করে। আমাদের মনে রাখতে হবে আজকের শিশু-কিশোররা আগামী দিনের সম্পদ। তাকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার সুযোগ দিতে হবে। উন্নত বিশ্বে শিশুদের কল্যাণ ও বিকাশের জন্য

হিদায়েতের পথে : জামিল আহমদ

আমার জীবনটা তেমন ভাল কাটেনি। বলা যায় অনেক বড় অপরাধী ও পরিবেশ দূষণকারী ছিলাম। যেমন এই ক্ষুদ্র পৃথিবীর মানুষের কাছে তদ্রুপ এ ধরণীর প্রতিপালকের নিকটও। এমনকি নিজের কাছেও নিজেকে বড় অপরাধী মনে হত। কিন্তু কিছুই করার ছিল না। কেননা, আমার মাঝে ছিল না কোন…….। পাঁচ বছর বয়সে স্কুলে ভর্তি করে দিলেন আব্বু। কিছুদিন ভালই চলছিল,

আঁধারে আলোর হাতছানি : হাজেরা সুলতানা হাসি

রাশেদ চৌধুরী পত্রিকা পড়ছিলেন। রহিম মিয়া সেই কখন চা দিয়ে গেছে সেদিকে তার কোন ইয়ত্তা-ই নেই। রাশেদ চৌধুরী ফরিদপুর এলাকার সাবেক চেয়ারম্যান। বয়স পঞ্চাশ ছুঁইছুঁই। দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জনক তিনি। ছেলেদুটো ভার্সিটিতে পড়ে। আর মেয়ে একটা নাইনে আর একটা এবার এস এস সি পরীা দেবে। দুই মেয়ে আর স্ত্রী পারভীনকে নিয়ে বেশ সুখেই

হিজাব : ফাতেমা আক্তার সিক্তু

সেতু ও মিতু দুইজন চাচাতো বোন। এগুলো ওদের ডাকনাম হলেও ভালো নাম সাবিকুন্নাহার সেতু ও মেহেরুন্নিসা মিতু। পাশাপাশি বাড়িতে বাস করে ওদের পরিবার। কিন্তু, চলেন-বলেন আকাশ-পাতাল ব্যবধান। মিতুর আম্মু আধুনিক ধ্যান-ধারণায় বিশ্বাসী এবং যুগের হাওয়ায় গা ভাসিয়ে চলতেই পছন্দ করেন। ছেলেমেয়েদের তিনি তেমনভাবে মানুষ করেছেন। মিতু মেয়ে হলেও জিন্স, টি-শার্ট এগুলো তার নৈমিত্তিক পোশাক। অপরদিকে,

একটি সাক্ষাৎকার : তামান্না বুশরা বিনতে মাও: রহমত উল্লাহ

প্রশ্ন : আপনার নাম? উত্তর : মাসিক আল জান্নাত। প্রশ্ন : আপনার বাসস্থান কোথায়? উত্তর : বাংলাদেশের সর্বত্র এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। প্রশ্ন : আপনার মধ্যে কি আছে? উত্তর : আমার মধ্যে আছে হিদায়াতি জ্ঞান যা হক এবং বাতিলের মধ্যে পার্থক্য তৈরি করে। প্রশ্ন : আপনার স্বার্থস্থল কোথায়?ৎ উত্তর : প্রতিটি চিন্তাশীল পাঠক-পাঠিকার হৃদয়ে। প্রশ্ন

কি হবে ক্ষুদ্র এই জীবন দিয়ে? :মার্জিয়া বিনতে মাও: শরিফুজ্জামান (জিহাদী)

মানুষের জীবনের পরিধি সামান্য। কিন্তু জীবনের সম্ভাবনা অসামান্য। জীবন তোমাকে দিতে পারে সামান্য কিছু সময়। আর তুমি জীবনকে দিতে পার অবিস্মরণীয় অনেক কীর্তি ও গৌরব। পৃথিবীতে যারা ওমর হয়েছেন জ্ঞানের জগতে, বিজ্ঞানের ভূবনে, মানব সেবার অঙ্গনে, ইলম ও আমলের প্রাঙ্গনে তাদের ইতিহাস দেখ। জীবনের কাছ থেকে তারা পেয়েছেন সামান্য কিছু সময়। কিন্তু জীবন ও জগত

ফেসবুক : আবদুল হান্নান জুলফিকার

সামাজিক যোগাযোগের ক্রমবর্ধমান চাহিদার আলোকে যোগাযোগের নতুন নতুন প্রযুক্তি ও বিশেষ করে ইন্টারনেট মাধ্যমের সুবাদে সামাজিক যোগাযোগের মাত্রা অতীতের চেয়ে অনেক গুণ বেড়েছে। ইন্টারনেট চালু হওয়া সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইটগুলো মানবীয় যোগাযোগের সর্বাধুনিক পদ্ধতি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। এইসব চ্যানেল গ্রাহকদের ব্যক্তিগত জগতকে পরস্পরের কাছে তুলে ধরছে এবং তাদের মধ্যে দূরত্বকে সর্বনি¤œ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। ওয়েব সাইট-কেন্দ্রিক

আল মসজিদুল আকসা : অতীত ও বর্তমান ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান

আল মসজিদুল আকসা বা বাইতুল মুকাদ্দাস ইসলামের তৃতীয় পবিত্রতম মসজিদ। এটি ইসলামরে প্রথম কেবলা এবং মক্কা ও মদিনার পর তৃতীয় পবিত্র স্থান।  এটির সাথে একই প্রাঙ্গণে কুব্বাত আস সাখরা, কুব্বাত আস সিলসিলা ও কুব্বাত আন নবী নামক স্থাপনাগুলো অবস্থিত। আল্লাহর নবী হযরত ইব্রাহীম আ. জেরুসালেম এ মসজিদটি  প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।  কাবা নির্মাণের চল্লিশ বছর পর (খ্রিষ্টপূর্ব

আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের বৈশিষ্ট্য ও গুণাবলী : মুহাম্মাদ মিনহাজ উদ্দিন

মানুষ সমগ্র সৃষ্টিজগতের সর্বশ্রেষ্ঠ জীব। জ্ঞান-গুণ, বিবেক-বোধ, বুদ্ধিমত্তা-তৎপরতা, কার্যদক্ষতা ও জীবনব্যবস্থা থেকে শুরু করে আনুসাঙ্গিক প্রতিটি ক্ষেত্রে মানুষ অপরাপর অন্যান্য সৃষ্টি থেকে ব্যতিক্রম ও প্রাগ্রসর। জীবন ও জগতের সকল কিছুতে মানুষের স্বকীয়তা-অনন্যতা ও বৈশিষ্ট্য দেদীপ্যমান। আল্লাহ তাআলা মানুষকে সমুজ্জ্বল ও প্রকৃষ্ট বহুবিধ গুণাবলী দ্বারা ঋদ্ধ করেছেন যা মানুষকে সৃষ্টিকুল থেকে সামগ্রিকভাবে বৈচিত্রময় ও আলাদা করে

হালাল উপায়ে ব্যাবসা ও মুনাফা : মমিনুল ইসলাম মোল্লা

ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ ব্যবসাকে হালাল এবং সুদকে হারাম করেছেন’। [সূরা বাকারা: আয়াত ২/২৭৫] অন্য আয়াতে বলা হয়েছে, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না, কেবলমাত্র তোমাদের পরস্পরের সম্মতিক্রমে যে ব্যবসা করা হয় তা বৈধ’। [সূরা নিসা: আয়াত ৪/২৯] উল্লিখিত আয়াতে  (তোমরা পরস্পরের ধন-সম্পদ অন্যায়ভাবে ভণ করো না) ‘অন্যায়ভাবে’ বলতে

ইসলামের ভুষণ উত্তম চরিত্র : উবায়দুল হক খান

বুখারী ও মুসলিম শরীফে বর্ণিত একটি হাদিসে আমাদের নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইসলামকে পাঁচটি স্তম্ভসম্পন্ন একটি গৃহের সাথে তুলনা করেছেন। এ পাঁচটি স্তম্ভ হলো: আল্লাহ ও তাঁর নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি ঈমানের স্যা, নামায, যাকাত, রোযা ও হজ। বুখারী ও মুসলিমে বর্ণিত অন্য একটি হাদিসে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ‘আল্লাহর হারামকৃত বিষয়সমূহকে এ

চলে যায় সময় বেলায় অবেলায়-: মুহাম্মদ আবু হানিফ

সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না। এবং অতিবাহিত হলে আর ফিরে আসে না। এভাবেই অতীত পর্দায় লুকিয়ে যায় মানুষের শৈশব ও কৈশোরের অবাধ চপলতা। অতীত কাহিনীতে পরিণত হয় যৌবনের উদ্দমতা। সময়ের গতিতে উপস্থিত হয় পৌঢ়ত্ব ও বার্ধক্যের গাম্ভীর্যতা। সময়ের সমীকরণ তখন বার্তা দেয় অনিবার্য মৃত্যুর। তখন মনে হয় চোখ খুললেই যেন ভেসে উঠল জীবন সমাপ্তির

পথশিশুর দরুন কুরআন-হাদীসের বাণী: জামিল আহমদ

“আমার খেতে ভাল লাগছে না, আমি এখন কিছু খাব না” বলে একটু চুপ রইল মেছবাহ। অনন্তর বলল, বর্তমান সময়টা আমার ভাল যাচ্ছে না, কিছু ভাল লাগছে না। আব্বু বাসায় না আসা পর্যন্ত আমি কিছুই মুখে দিব না। আম্মু হিসাবে মমতাজ বেগমের যতটুকু চেষ্টা করা দরকার তাতে তিনি  ত্রুটি করেন নি। আপু মারিয়াম এবং বড় ভাইয়া


Hit Counter provided by Skylight