বিভাগ : জানুয়ারি ২০১৫

রাসূলের প্রতি পূর্ণ আনুগত্য উম্মতের উপর ফরজ

Sampadokia-150x150

সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্য, যিনি আমাদেরকে তাঁর দিকে আহ্বানের জন্য অসংখ্য নবী ও রাসূল প্রেরণ করেছেন। যাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ হলেন মুহাম্মাদ সা.। দরুদ ও সালাম বর্ষিত হোক নবীকুল শিরোমণী মুহাম্মাদ সা. এবং তাঁর পবিত্র বংশধর ও সম্মানিত সাথীদের উপর। নবী রাসূলগণের উপর ঈমান আনা ফরজ। কারণ তা ঈমানের ছয়টি রোকনের একটি। তাঁদের একজনের প্রতি অবিশ্বাস

দ্বীনই একমাত্র মুক্তির পথ : আলিমুর রেজা

2232800607_64943c72fa

সূরা আল ফাতেহা হচ্ছে উম্মুল কুরআন বা কুরআনের মা। সূরা আল ফাতেহার মাঝে হযরত আদম আ. থেকে শুরু করে সমস্ত মু’মিন বান্দার মনের চাহিদা বা আকাক্সক্ষা প্রকাশিত হয়েছে। আর আল্লাহ তাআলা বান্দার মনের চাহিদা বা আকাক্সক্ষাকে পূরণ করতে কুরআনের অবশিষ্ট আয়াতগুলিকে নাযিল করেছেন। সূরা আল ফাতেহা একটি দোআ যা আল্লাহ তাআলা বান্দাকে শিখিয়ে দিয়েছেন। এ

জান্নাতের নেয়ামতরাজি ও তার বর্ণনা : মাওলানা যোবায়েরুল ইসলাম

al-jannatbd

‘জান্নাত’ শব্দের অর্থ- বাগান, পার্ক, গার্ডেন, উদ্যান ইত্যাদি। জান্নাতের বৈশিষ্ট হুবহু বর্ণনা করা তো দূরের কথা কল্পনা করাও অসম্ভব। মুসলিম শরীফের রেওয়াতে আল্লাহর রাসূল সা. বলেন, “তাতে আছে এমন জিনিস যা কোন চক্ষু কোন দিন দেখেনি, কোন কান কোন দিন শুনেনি, কোন অন্তর কোন দিন কল্পনাও করেনি” আল্লাহ বলেন, “তারা তাদের পার্শ্ব শয্যা থেকে আলাদা

যে সমস্ত আমল জান্নাত ও জাহান্নামে নিয়ে যাবে : সংকলনে : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

Islamic_Books

হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সা. বলেন, সবচেয়ে বেশি যে বস্তু মানুষকে জাহান্নামের দিকে নিয়ে যাবে তা দুটি ফাকা জায়গা আর তা হলো ১. লজ্জা স্থান ২. মুখ, অপরদিকে যে দুটি বস্তু অধিকপরিমাণে মানুষকে জান্নাতে নিয়ে যাবে সেগুলো হলো- ১. আল্লাহভীতি ২. সচ্চরিত্র। [ইবনে কাসীর] জান্নাতিদের অভ্যাস আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, তোমরা

অলৌকিক কুরআন ও মহাবিশ্বের সৃষ্টি : ডা. শাহ মুহাম্মাদ হেমায়েত উল্লাহ

quran

.মানব জাতির হেদায়েতের জন্য মহান স্রষ্টা নাযিল করেছেন আল কুরআন । এতে প্রায় ৭৫০টি আয়াত আছে বিজ্ঞান সম্পর্কীয়। কিন্তু  কুরআন কোন বিজ্ঞানের বই নয় বা বিজ্ঞান শিক্ষা দেয়ার জন্যও অবতীর্ণ হয়নি। এ সব আয়াতের মাধ্যমে মহান আল্লাহ মানুষকে ঈমান, কিয়ামত, হাশরের মাঠ, পুনরুত্থান, বেহেশত-দোযখের অস্তিত্ব এবং মহাবিশ্বের যাবতীয় বিষয়ে (অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ সম্বন্ধে) সুস্পষ্ট

সামাজিক অবক্ষয় নবী আর্দশই একমাত্র উত্তরণের পথ : মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম

1904049_1475373812713486_3803293563363009027_n

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন কুরআনে পাকে ইরশাদ করেন, জলে ও স্থলে যে সমস্ত অন্যায় সংগঠিত হয় সবি বান্দার নিজ হাতের অর্জন [ সূরা রোম-৪১] অর্থাৎ আমারা মন্দের উপযুুক্ত কাজ করলে মন্দ তো আমাদের পিছনে এসে হানা দিবেই, আবার যদি কোন ভাল কাজ করি তাহলে তার সুফল একা নয় দলে দলে ভোগ করার মত ঘটনাও অহরহ।

ধূমপানের ক্ষতিকর দিকগুলো : মাওলান আব্দুস সামাদ

Madok

ধুমপান একটি হারাম কাজ। কারণ ধূমপানে রয়েছে জীবননাসের মত  মারাত্মক ব্যাধি, অত্যন্ত ক্ষতিকর ও বিপদজনক রোগ। ধুম পানের দ্বারা তিলে তিলে নিজেকে হত্যা করা হয়। যা কুরআনের ভাষায় হারাম। কিন্তু তিক্ত হলেও সত্য বর্তমান দুনিয়ার অধিকাংশ মানুষ এ ধরণের একটি মারাত্মক ব্যধিতে আক্রান্ত। এর ভয়ানক পরিণতি সম্পর্কে জানেনা, এমন লোক খুব কমই আছে। ধূমপানের ক্ষতি

পরকীয়ার ভয়াল থাবা ইসলামী অনুসাশনই হতে পারে রক্ষা প্রাচীর : মুফতি পিয়ার মাহমুদ

Biye

নিজ স্ত্রী বা স্বামীকে রেখে পর নারী বা পুরুষের সাথে অবৈধ মিলনকে পরকীয়া বলে। দেশে ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়েছে এই পরকীয়া প্রেম। এই নিষিদ্ধ প্রেমের আগুনে জ্বলছে দেশ জাতি ও পরিবার। ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে সাজানো গোছানো সোনার সংসার। নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত আর মধ্যবিত্ত থেকে উচ্চবিত্ত পরিবার সর্বত্রই ভয়ানক ব্যাধি হিসাবে দেখা দিয়েছে এই অভিশপ্ত অভিসার।

মহিলা মাদরাসা রমনীর আদর্শ পাঠশালা : মিযানুর রহমান জামীল

Sirat 02

শুরু করছি মহান আল্লাহ তাআলার নামে যিনি পরম করুণাময় অতীব দয়ালু। সমস্ত প্রসংশা আল্লাহ তাআলার জন্য যিনি জগতসমূহের প্রতিপালক। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে জানে এবং যে জানেনা, উভয়ে এক না।’ আর হাদীসের মধ্যে এসেছে, ‘দীনি ইলম শিক্ষা করা প্রত্যেক নর-নারীর উপর ফরজ।’ ইসলাম শান্তি ও মানবতার ধর্ম। নর-নারী উভয়ের জন্য এর বিধানের রয়েছে

ইসলামে নারী জাতির মর্যাদা : আফরীন জাহান লাভলী

Porda

ইসলাম আগমনের পূর্বে তৎকালীন সমাজে এবং অন্যান্য ধর্মে নারীদের প্রতি যে অমানবিক আচরণ করা হত তার চিত্রটা সামনে রাখলে এবং ইসলাম তার প্রতিকার কিভাবে করেছে তা অনুধাবন করলে আকপটেই বুঝে আসবে ইসলাম নারী জাতির প্রতি কত অনুগ্রহ করেছে এবং নারী জাতিকে কতটা সম্মানের আসনে সমাসীন করেছে। ইসলাম পূর্বযুগে কন্যা সন্তানকে অপমানজনক মনে করা হত। ফলে

তাবলিগ জামাতের উজ্জ্বল নক্ষত্র হযরতজি মাওলানা যোবাইরুল হাসান রহ. : যোবায়ের বিন জাহিদ

najaf

বিশ্ব ইজতিমার আখেরী মুনাজাতে যার দো’আয় আমিন আমিন বলতো পৃথিবীর লাখো মুসলিম, যার অশ্র“ঝরা কান্না লক্ষ হৃদয়কে বিগলিত করে চোখে অশ্র“র বন্যা বইয়ে দিতো, সেই মহান বুজুর্গ, বিশ্ব তাবলিগ জামাতের অন্যতম মুরুব্বী হযরত মাওলানা যোবাইরুল হাসান কান্ধলবী রহ. আজ এ পৃথিবীর বুকে নেই। অসংখ্য ভক্ত ও শুভাকাঙ্খীকে শোক সাগরে ভাসিয়ে ১৮ মার্চ ২০১৪ খ্রিস্টাব্দে তিনি

বিনয়: উত্তম আদর্শের প্রতীক: মুফতী মাহদী হাসান

1904049_1475373812713486_3803293563363009027_n

বিনয় আর নম্রতা মানুষকে প্রকৃত মানুষ বানিয়ে দেয়। বিনয়ের গুরুত্বপূর্ণ পথ অবলম্বন করা ছাড়া মানুষ তার অভিষ্ট লক্ষে পৌঁছতে সক্ষম হয়না। বিনয় জীবনের এমন এক অনুষঙ্গ যে, যদি কেউ তা অবলম্বন না করে তাহলে তার জীবনমরুতে অহংকার বালু তপ্ত হয়ে উঠে। সুতরাং যে কোন মূল্যে হোক জীবনের খালী মাঠে বিনয়ের সবুজ বৃক্ষ রোপণ করতে হবে।

অবাক করা তিনটি প্রশ্ন এবং তার উত্তর : আশরাফুল ইসলাম

va.jpg

কয়দিন ধরে বিনিদ্র রজনী যাপন করছেন রাজা। তিনটি প্রশ্ন তার মগজে সর্বদা কিলবিল করছে। প্রশ্নগুলোর কোন উত্তর খুঁজে পাচ্ছেন না তিনি। দরবারে ডেকেছেন উজির নাজির শত্র“মিত্র সহ সব সভাসদের। সবার কাছে রাখলেন প্রশ্ন তিনটি। ঘোষণা করলেন, যে ব্যক্তি প্রশ্নগুলোর সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারবে, তাকে রাজকন্যা এবং রাজ্যের অর্ধেক অংশ দান করে দেবেন। একেকজন একেক রকম

ফরিয়াদ : সৈয়দা সুফিয়া খাতুন

Dua

ওগো দয়াময় রহমানুর রহীম, তুমি সত্য তুমি অনন্ত অসীম। তোমার করুণা আর দয়ায় আছি  আমি এখনো তোমার যমীনে। তোমার করুণায় আমি খাই, ঘুমাই, হাটি, অজু করি, নামায পড়ি, রোযা রাখি, হজ্জ করি ইত্যাদি ভাল কাজ করে থাকি। আর শয়তানের ফেরেবে পরে যে খারাপ কাজ করে থাকি আশা করি তুমি তাওবার  দ্বারা, তোমার করুণা ও দয়া

ওদের জন্য ভালবাসা : মাওলানা আবু সালেহ

3 Taka Horse Ride_ Dhaka Zoo_ Mirpur

১. দিনটি ছিল বুধবার। আসরের নামায পড়ে মাদরাসা থেকে বের হলাম। একটু ঘুরবো, হাটা হাটি করব। ঠিক অন্য সব দিনের মত মাদরাসা থেকে বের হয়ে খানিকটা দূরে চলে গেলাম। হঠাৎ মনে পড়ল এক বন্ধুৃর কথা। ফোন করলাম ওকে, বললাম কোথায় আছিস? বলল, গুলিস্তান, আসবি নাকি জিজ্ঞেস করল আমায়। অনেক দিন পর ওর সাথে দেখা হবে,

উম্মতের ফিকিরে হযরত ইলিয়াছ রহ. : হাকীমুত্ব তুল্লাব মুফতী হাবীবুল্লাহ

najaf

বনী আদম দুনিয়াতে আল্লাহর খলীফা। ইলম ও জ্ঞান হতে বঞ্চিত অসংখ্য সৃষ্টির মাঝে সে এক জ্ঞানবান সৃষ্টি। তার জ্ঞান চর্চার সঠিক ও উত্তম পাত্র হলো, আল্লাহর জ্ঞান ও তার মারেফত হাসিল করা। যেই দৌলতের কারণে তাকে যমীনের খেলাফত দান করা হয়েছে সেই দৌলত ও নেয়ামত লাভের প্রথম সিঁড়ি হলো তার রবের উপর পূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন

আর্তনাদ : আমি ঢাকার কল্যাণপুরের সুমাইয়া বলছি : বিশ্ব নারী মুক্তির উপায় থেকে সংগ্রহিত

al-jannatbd

সুমাইয়া নামক জনৈক রুগী ডাক্তারের কাছে যান। তার প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার জন্য ডাক্তার তাকে নির্দিষ্ট একটি ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে যেতে বলেন। এতে তার অনেক টাকা লেগে যায়। সুমাইয়া বলেন সরকারি হাসপাতালে আমার ভাই চাকরি করে। সেখানে গেলে অনেক কম টাকায় পরীক্ষাগুলো করানো যায়। কিন্তু ডাক্তার তাতে রাজি নন। এভাবে জেলা-উপজেলা শহরেও স্বাস্থ্য সেবার নামে চলছে অনেক ধরণের

শয়তানের ডায়েরি : মোছাঃ উম্মে হাবিবা

ec95_polar_ice_crystal_clear_ice_cube_tray_ice

পির আলী: আচ্ছা এই বোকা মুছল্লীর জীবিকা নির্বাহের কি সম্বল আছে? শয়তান: হুজুর পূর্বে এই মুছল্লীর অর্থিক অবস্থা খুব ভাল ছিল। বহু  একর জমি নিজের চাষে ছিল। কিন্তু মাসান্তে এক একটি বিবাহের রুচী থাকায় উহার পিছনেই সর্বস্ব হারাইয়াছেন। বর্তমানে মাত্র ৪/৫ একর জমি আছে। উহা নিজেই চাষাবাদ করেন। আর একটি গাভী আছে উহার দুগ্ধ বিক্রয়

দেশ-বিদেশের খবর

Des-Bideser Khobor copy

ইসলাম বিদ্বেষী প্রচারণায় চাকরি হারালো ইহুদি সাংবাদিক : ফ্রান্সজুড়ে হৈচৈ ফ্রান্সকে সম্ভাব্য গৃহযুদ্ধ থেকে বাঁচাতে মুসলিম জনগোষ্ঠীকে বহিষ্কারের পরামর্শ দেয়ার পর একজন সুপরিচিত টিভি অ্যাংকরকে চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে। কিন্তু আই টেলে নামের সংবাদ ভিত্তিক এই টিভি চ্যানেলের পদক্ষেপের পক্ষে-বিপক্ষে ফ্রান্স জুড়ে  শুরু হয়েছে তীব্র বিতর্ক। ব্রিটেনের দৈনিক দি ইন্ডিপেন্ডেন্টে প্রকাশিত খবর মতে, এরিক জেমোর নামে

কবিতাগুচ্ছ : রাতের আকাশ, ঘুমন্ত রাত, পরামর্শ, ভাষার তরে, বিল্লাল বেঁছে আছে

Kabita

[রাতের আকাশ] মুনিরুল্লাহ রাইয়ান : জোছনা-ধোয়া আকাশ দেখি দেখি তারার মিলনমেলা, আকাশ জুড়ে তারায় তারায় আলো এবং আলোর খেলা! অগণিত তারার মাঝে রূপালী ওই চাঁদের হাসি, নিঝুম রাতে চাঁদের আলো ভালোবাসি ভালোবাসি! ভাবতে বসি আকাশটাকে কে সাজালো নিপুণ হাতে; কে দিলো ওই তারার মালা- মায়াবী চাঁদ নিঝুম রাতে? জোনাক-পোকা প্রদীপ জ্বালে ভালো লাগে ভালো লাগে,

জীবন জিজ্ঞাসা

Sowal Jowab

মাও. আবুল কাসেম, নেত্রকোণা প্রশ্ন: কোনো ব্যক্তি যদি রমযান মাসে মারা যায়, তাহলে কবরে সওয়াল জওয়াব হবে কিনা? সাথে সাথে না হলে রমযানের পরে হবে কিনা? ঐ ব্যক্তি গুনাহগার হলে, কবরে আযাব হবে কিনা এবং সে জান্নাতি হবে নাকি জাহান্নামী? উত্তর: ইনশাআল্লাহ তার সাথে দয়া ও অনুগ্রহের আচরণ করা হবে। রমযানেই সওয়াল-জওয়াব হবে। তবে কিয়ামত


Hit Counter provided by Skylight