হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত।

হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক রাত্রে সন্ত্রস্ত হয়ে ঘুম থেকে জাগলেন। আর বলতে লাগলেন-“আজ রাতে কত রহমত নাযিল হল, আর অবতীর্ণ হল কত ফিতনা-বিপদ। কক্ষে অবস্থানকারীনীদের কে জাগিয়ে দিবে?” তিনি তাঁর বিবিগণের প্রতিই ইঙ্গিত করছিলেন। “যাতে তারা নামায পড়ে”। (রহমত অর্জন করবে আর ফিতনা ও বিপদ থেকে মুক্ত হবে)। “দুনিয়াতে সুশোভিত কত নারী আখেরাতে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হবে”।

{সহীহ বুখারী শরীফ, হাদিস নং-৫৮৬৪,৬৬৫৮, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদিস নং-৬৯১, আল মু’জামুল কাবীর, হাদিস নং-৮৩৫}

••• হাদিসের ব্যাখ্যা•••
রহমত ও বিপদ অবতীর্ণ হবার উদ্দেশ্য হল-যে পরিমাণ রহমতও বিপদ উম্মতের প্রাপ্য ছিল সে রাতে তা অবতীর্ণ হয়।

“দুনিয়াতে সুশোভিত অনেক নারী আখেরাতে উলঙ্গ হবে” মানে হল-

১ পৃথিবীতে তারা অনেক মূল্যবান কাপড় চোপড় পরিধান করবে অথচ পরকালের জন্য তাদের কোন আমল থাকবেনা।

২ তারা দুনিয়াতে ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে আল্লাহর স্মরণ থেকে বিমুখ হবে। ফলে আখেরাতে তাদের কোন মর্যাদা থাকবেনা।

৩ অনেক নারী পৃথিবীতে বড় মর্যাদা সম্পন্ন হবে-যেমন নবীদের স্ত্রী কিংবা মেয়ে। কিন্তু আমলের অবহেলার কারণে তারা সে মর্যাদা পাবেনা। সুতরাং দুনিয়ার সম্মান আখেরাতে কোন কাজে আসবেনা।

# এখানে শুধু নারী উদ্দেশ্য নয়। পুরুষরাও এতে শামিল।

* পড়া শেষে শেয়ার করতে ভুলবেন না। মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন, একটি অগ্নিশিখা থেকে জ্বেলে দিন লক্ষ আলোক প্রদীপ।

একটি মন্তব্য রয়েছেঃ হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত।

  1. aljnntbd says:

    হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক রাত্রে সন্ত্রস্ত হয়ে ঘুম থেকে জাগলেন। আর বলতে লাগলেন-“আজ রাতে কত রহমত নাযিল হল, আর অবতীর্ণ হল কত ফিতনা-বিপদ। কক্ষে অবস্থানকারীনীদের কে জাগিয়ে দিবে?” তিনি তাঁর বিবিগণের প্রতিই ইঙ্গিত করছিলেন। “যাতে তারা নামায পড়ে”। (রহমত অর্জন করবে আর ফিতনা ও বিপদ থেকে মুক্ত হবে)। “দুনিয়াতে সুশোভিত কত নারী আখেরাতে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হবে”।

    {সহীহ বুখারী শরীফ, হাদিস নং-৫৮৬৪,৬৬৫৮, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদিস নং-৬৯১, আল মু’জামুল কাবীর, হাদিস নং-৮৩৫}

    ••• হাদিসের ব্যাখ্যা•••
    রহমত ও বিপদ অবতীর্ণ হবার উদ্দেশ্য হল-যে পরিমাণ রহমতও বিপদ উম্মতের প্রাপ্য ছিল সে রাতে তা অবতীর্ণ হয়।

    “দুনিয়াতে সুশোভিত অনেক নারী আখেরাতে উলঙ্গ হবে” মানে হল-

    ১ পৃথিবীতে তারা অনেক মূল্যবান কাপড় চোপড় পরিধান করবে অথচ পরকালের জন্য তাদের কোন আমল থাকবেনা।

    ২ তারা দুনিয়াতে ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে আল্লাহর স্মরণ থেকে বিমুখ হবে। ফলে আখেরাতে তাদের কোন মর্যাদা থাকবেনা।

    ৩ অনেক নারী পৃথিবীতে বড় মর্যাদা সম্পন্ন হবে-যেমন নবীদের স্ত্রী কিংবা মেয়ে। কিন্তু আমলের অবহেলার কারণে তারা সে মর্যাদা পাবেনা। সুতরাং দুনিয়ার সম্মান আখেরাতে কোন কাজে আসবেনা।

    # এখানে শুধু নারী উদ্দেশ্য নয়। পুরুষরাও এতে শামিল।

    * পড়া শেষে শেয়ার করতে ভুলবেন না। মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন, একটি অগ্নিশিখা থেকে জ্বেলে দিন লক্ষ আলোক প্রদীপ।
    একটি অগ্নিশিখা থেকে জ্বেলে দিন লক্ষ আলোক প্রদীপ।, তারা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হবে। পুরুষগণ তাদের পরিবারের ব্যাপারে দায়িত্বশীল, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল। প্রতিটি ব্যক্তিই তার দায়িত্ব সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হবে। ইমামগণ দায়িত্বশীল, হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, হাদীস নং-১০৩ ছবি- mosque instanbul turkey wudhuman * পড়া শেষে শেয়ার করতে ভুলবেন না। মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন, হাদীস নং-২৯৩০ মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২৯৫১ মুসনাদে আব্দ বিন হুমাইদ, হাদীস নং-৪৪৮৯ সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৪৪৯৫ মুসনাদুল বাজ্জার, হাদীস নং-৪৮২৮ সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৫৩৭৭ মুসনাদুশ শামীন, হাদীস নং-৭৪৫ মুজামে ইবনে আসাকীর, হাদীস নং-৮৫৩ সহীহ মুসলিম
    মন্তব্য করুন

    aljnntbd নামে লগইন অবস্থায় আছেন। প্রস্থান করতে চান?

    মন্তব্য

    ব্লগে জান্নাতে আপনাকে স্বাগতম
    ব্লগে জান্নাতে ইসলাম বিষয়ক আপনার যাবতিয় চিন্তা ধারা তুলে ধরুন, ব্লগে জান্নাতে আপনি স্বাগতম। রেজিস্টার করুন!

    আল জান্নাতের অন্নান্য পাতা
    TwitterFacebookGoogle PlusRSS Feed

    সংরক্ষণাগার
    সেপ্টেম্বর 2012

    সকল বিভাগ
    উপন্যাস
    কবিতা গুচ্ছ
    কোরআনের আলো
    গৃহ বাবস্থাপনা
    জান্নাত
    জান্নাতে কাফেলা
    জাহান্নাম
    দেশ বিদেশ
    নির্বাচিত
    প্রবন্ধ
    প্রশ্ন ও উত্তর
    রম্য গল্প
    সম্পাদকীয়
    স্বাস্থ্য সমাচার
    হাদিস

    সাম্প্রতিক প্রকাশনাসমুহ
    হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল।
    নারীকে আল্লাহ বানিয়েছেন দুনিয়ার জান্নাত।
    আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশী মনে।
    এরকম একটা মেয়ে যদি আমাদের থাকত……………।
    হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত।
    নারীদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়া প্রসঙ্গ ..♥..
    Hello world!

    পাঠক সম্পর্কে তথ্য
    আজকের পাঠক: 3

    মোট পাঠক: 3

    অপারেটিং সিস্টেম: Windows Vista

    ব্রাউজার: Firefox 4

    আই.পি.: 116.193.174.242

    এই মুহুর্তে অনলাইনে আছেন: 1

    এই মাসের প্রচ্ছেদ
    আল জান্নাত । মাসিক ইসলামি ম্যাগাজিন

    আরও কিছু বিভাগ
    ইসলাম দর্শন
    ইসলামি উৎসব
    দৃঢ় করি ঈমান
    ভুল সংশোধন
    মাসলা-মাসায়েল
    ভ্রমণ কাহিনী
    মাস্তুরাত
    নির্বাচিত

    ভিডিও – হামদ নাত

    নির্বাচিত কিছু
    232323
    হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল।
    হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রাঃ) বলেন-আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি যে, তিনি বলেছেন-প্রতিটি ব্যক্তিই দায়িত্বশীল।
    22221
    নারীকে আল্লাহ বানিয়েছেন দুনিয়ার জান্নাত।
    তিনি স্বামীর জন্য প্রশান্তি, সন্তানের জন্য আশ্রয়। হাদীস শরীফে বর্ণিত হয়েছে-দুনিয়া হচ্ছে ক্ষণিক উপভোগের বস্ত্ত। আর
    4344334
    আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশী মনে।
    আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশী মনে।
    21
    এরকম একটা মেয়ে যদি আমাদের থাকত……………।
    এরকম একটা মেয়ে যদি আমাদের থাকত……………। হযরত ওমর রা. তাঁর খেলাফতকালে লোকজনের খোঁজখবর নেওয়ার জন্য রাতের বেলা
    1
    হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত।
    হযরত উম্মে সালমা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক রাত্রে সন্ত্রস্ত হয়ে ঘুম থেকে জাগলেন। আর বলতে
    21
    নারীদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়া প্রসঙ্গ ..♥..
    নারীদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়া প্রসঙ্গ ..♥.. প্রয়োজনীয় দ্বীন শিখা প্রতিটি নর-নারীর জন্য আবশ্যক। রাসূলুল্লাহ
    Hello world!
    Welcome to WordPress. This is your first post. Edit or delete it, then start blogging!

    ফেসবুকে জান্নাত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight