সুস্থ থাকতে খাওয়া দাওয়া

26807.imgcache

সঠিক খাওয়া দাওয়ার চারটি প্রাথমিক নিয়ম :
প্রথমত : সকালে উঠেই বেড টি বা কফি খাওয়ার অভ্যাস ছাড়ুন। এর পেছনে একটা কারণ রয়েছে। রাতে যখন আমরা ঘুমাই তখন আমাদের রক্তে চিনির মাত্রা নেমে যায়। ফলে সকালে আমরা দুর্বলবোধ করি। তাই আমাদের উচিত, এমন খাবার খাওয়া যা রক্তচাপ বাড়িয়ে তোলে। সকালে উঠেই চা খেলে শরীর এক ধাক্কায় জেগে ওঠে। ফলে হৃদস্পন্দনের হার, শ্বাস-প্রশ্বাসের হার এবং রক্তচাপ তাড়াতাড়ি বেড়ে ওঠে। তৈরি হয় মানসিক চাপ। এছাড়া চা বা কফি পুষ্টির কোন জোগান দেয় না। শরীরে ক্যালরি ঘাটতি তৈরি করে। সেজন্যে প্রথমে নাস্তা করুন, তারপর চা খান। শরীর ও মন দুই-ই ভাল থাকবে।
দ্বিতীয়ত : প্রতি দু’ঘণ্টা অন্তর কিছু না কিছু খান। সকালে উঠেই চা খাওয়ার পর ক্ষুধা মরে যায়। আরো এক কাপ চা খাওয়ার পর লাঞ্চ খেতে ইচ্ছা করে না। ফলে বিকেলে এত খাওয়া হয়ে যায় যে, স্বাস্থ্যকর খাওয়া-দাওয়ার প্রতিজ্ঞা ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায়। দু’ঘণ্টা অন্তর অন্তর পরিমিত খেলে প্রচন্ড ক্ষুধা পায় না। অন্যদিকে পেট সহজে হজম করতে পারে।
তৃতীয়ত : যখন বেশি সক্রিয় থাকবেন তখন বেশি খান। কম সক্রিয় থাকলে কম খান। নিজের কর্মকান্ড অনুযায়ী খাবার পরিকল্পনা করা ভীষণ জরুরি। ঠিক যেমন গাড়ি বেশি চালালে বেশি পেট্টোল লাগে, ঠিক তেমনি কাজের চাপ থাকলে শক্তি বেশি লাগে। খাবারের প্রয়োজনও বেড়ে যায়। দিন যত গড়ায় শরীরের পরিপাক হারও তত বেড়ে যায়। সূর্য ডুবে যাওয়ার পর পরিপাক হারও কমতে থাকে। ফলে বিকেলের চেয়ে সকালে খাবার-দাবার অনেক বেশি লাগে। সেজন্য সুস্থ, সুন্দর থাকতে হলে ঠিক সময়ে সঠিক পরিমাণ খাবার খাওয়া খুব জরুরি।
চতুর্থত : শুতে যাওয়ার ঠিক দু’ঘণ্টা আগে খাওয়া শেষ করুন। সন্ধ্যা থেকেই খাওয়া কমিয়ে দেয়া উচিত। সাধারণত সন্ধ্যাবেলার দিকে আমরা কাজ শেষ করে বিশ্রাম করতে শুরু করি। টিভি দেখা ও বই পড়ার জন্য তো বেশি ক্যালরি খরচ হয় না ফলে খুব বেশি খাওয়ারও প্রয়োজন নেই। সবচেয়ে ভাল হয় যদি সন্ধ্যা ছ’টা-সাড়ে ছ’টা নাগাদ ভাল করে খেয়ে নিয়ে রাতের দিকে হালকা খাবার খান। তাহলে শুতে যাওয়ার আগেই খাবার ঠিকমতো হজম হয়ে যাবে। এতে ঘুম ভাল হবে। শরীর সহজে তার নিজের কাজ করতে পারবে যার মধ্যে ফ্যাট বার্ণ করা অন্যতম।
সকালে নাস্তা কখনই বাদ দেবেন না। সকালে বের হওয়ার আগে তৃপ্তি করে খান। কাজে বল পাবেন। একবারে পেট ভরে না খেয়ে বারেবারে খান। দিনে দু’য়েকবার চা-কফি খেতেই পারেন। কিন্তু তার বেশি নয়।
পাঠিয়েছে : মো. আশরাফুল ইসলাম।

একটি মন্তব্য রয়েছেঃ সুস্থ থাকতে খাওয়া দাওয়া

  1. Sharif Uddin Ahmed says:

    Ami Niomito pori, khub valo.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight