সাস্থ্য সমাচার : যে খাবারগুলো নিয়ন্ত্রণ করবে মেদভুঁড়ি

সবুজ চা
কোমরের মাপ ঠিক রাখা আর পেটের নানা প্রদাহের সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য দারুণ এক পানীয় এই সবুজ চা। সবুজ চায়ে থাকা ফ্লেভোনয়েড প্রদাহ রোধে খুবই কার্যকর। এ ছাড়া বহু গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত সবুজ চা-পান পুরো শরীরকেই মেদমুক্ত রাখতে সহায়তা করে।

ওমেগা-থ্রি
গবেষণায় দেখা গেছে, বেশী মাত্রায় ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডসমৃদ্ধ এবং সঙ্গে কিছুটা ওমেগা-সিক্সসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রদাহ কমানোর জন্য খুবই কার্যকর। ওমেগা-থ্রিসমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে আছে আখরোট, তিসি ও তিসির তেল, স্যালমন মাছ ইত্যাদি।

রসুন
প্রাকৃতিক রোগ প্রতিরোধক এবং রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রক হিসেবে নিয়মিত রসুন খান। রক্তে শর্করা ও ইনসুলিনের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে শক্তি উৎপাদনের জন্য শরীরে জমতে থাকা চর্বি পোড়ানোটা সহজ হয়। এ ছাড়া খাবারদাবার হজমে সহায়ক হিসেবে রসুন খুবই কার্যকর। এভাবে মেদভুঁড়ি কমাতে রসুন আপনাকে ভালোই সাহায্য করতে পারে।

পুদিনাপাতার রস
কিছু পুদিনাপাতা থেঁতলে নিয়ে এক কাপ গরম পানিতে ছেড়ে দিন, এক টেবিল-চামচ মধু এবং খানিকটা কাঁচা মরিচ মিশিয়ে ভালো করে নাড়–ন। পাঁচ মিনিট রেখে দিয়ে পুদিনার রসের এই দাওয়াই পান করুন। পুদিনার রস যেমন পাকস্থলীকে প্রশান্তি জোগাবে, তেমনি মধু আর মরিচ পরিপাকে সহায়তা করে মেদ কমাবে।

তরমুজ
তরমুজের ৮২ ভাগই পানি। কিন্তু রসাল এই ফল আপনার ক্ষুধা নিবারণ করে পাকস্থলীকে শান্ত রাখতে পারে। ভিটামিন-সিসমৃদ্ধ তরমুজের নানা স্বাস্থ্য সুফল রয়েছে। খাবারদাবারের বিষয়ে স্বাস্থ্য সচেতন হয়ে উঠতে শুরু করলে আপনার খাদ্যতালিকায় তরমুজ রাখতে পারেন। এ ছাড়া এটা মধ্যাহ্নের নাশতা হিসেবেও খুবই কার্যকর।
আপেল
জনপ্রিয় ফল আপেল নানা রোগ মোকাবিলায় কার্যকর। পাশাপাশি এটা পেটে জমতে থাকা মেদ ঝরাতেও উপকারী। আপেলে থাকা পটাশিয়াম এবং নানা ভিটামিন পেট ভরা রাখতে সহায়তা করে। মেদভুঁড়ি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সকালের নাশতায় একটা আপেল রাখতে পারেন।

কলা
আপেলের মতোই কলাও পটাশিয়ামসমৃদ্ধ এবং এতে নানা ভিটামিন আছে। ক্ষুধা লাগলে ফাস্টফুডের পেছনে না দৌড়ে একটা-দুটো কলা খেয়ে নিন। খাবারদাবার পরিপাকের জন্যও কলা খুবই উপকারী। নিয়মিত কলা খাওয়ার অভ্যাস করুন। এটা মেদ কমাতে সহায়তা করবে।

আদার রসের উপকারিতা
১. আদার রস খেলে আহারে রুচি আসে এবং ক্ষুধা বাড়ে।
২. আদার রসে মধু মিশিয়ে খেলে কাশি সারে।
৩. আদা মল পরিষ্কার করে।
৪. আদার রসে পেটব্যথা কমে।
৫. আদা পাকস’লী ও লিভারের শক্তি বাড়ায়।
৬. আদা স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।
৭. আদার রস শরীর শীতল করে।
৮. আদা রক্তশূন্যতা দূর করে।

ডায়াবেটিস চিনবেন কিভাবে
১. গলা শুকিয়ে যাওয়া, বারবার পানি পিপাসা, পানি খেলেও পিপাসা না মেটা।
২. বারবার ক্ষুধা লাগা। কোনো কারণ ছাড়াই ওজন কমে যাওয়া।
৩. চোখে দেখতে অসুবিধা।
৪. শরীরের কোথাও কেটে গেলে কিংবা আঘাত পেলে তা তাড়াতাড়ি সারে না।
৫. মেয়েদের মাসিকের সমস্যা দেখা যায়।
৬. বারবার টয়লেটে যাওয়ার প্রবণতা।
৭. ওজন অতিরিক্ত বেড়ে গেলেও ডায়াবেটিস হতে পারে।
৮. ৩৫ বছর বয়স থেকেই নিয়মিত ডায়াবেটিসের চেকআপ করা জরুরি।
৯. ডায়াবেটিস আছে কি না তা জানার জন্য ওরাল গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট জরুরি। এ ছাড়া ব্লাড সুগার পরীক্ষা, প্রস্রাব পরীক্ষা দ্বারাও জানা যাবে আপনার ডায়াবেটিস হয়েছে কি না।

চুলপড়ার নানা কারণ
১. অতিরিক্ত ধূমপান,
২. অধিক সময় সূর্যের আলোতে থাকা,
৩. সুষম খাবারের অভাব,
৪. ভিটামিন ই-এর অভাব,
৫. জিংকের অভাব,
৬. হরমোনের অসামঞ্জস্যতা,
৭. বংশগত কারণ,
৮. খুশকি,
৯. মাথায় তেল না দেয়া,
১০. দুশ্চিন্তা,
১১. রাতজাগা এবং
১২. মেয়েদের সাদা স্রাব এবং মাসিকের গ-গোল।

রোগ প্রতিরোধে পেয়ারা
পেয়ারায় আছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন-এ ২৫০ আই ইউ, থিয়ামিন, ভিটামিন-সি, নিয়াসিন, প্রোটিন ও ক্যালরি। ফলে অনেক রোগ উপশমের ক্ষেত্রে পেয়ারা কাজে লাগে।
যাদের উচ্চ রক্তচাপ আছে তাঁরা নিয়মিত পেয়ারা খান। কারন পেয়ারা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
পেয়ারা রক্ত সঞ্চালন ভালো রাখে বলে হার্টের জন্য পেয়ারা খুবই উপকারী। যারা কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখা নিয়ে সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা নির্দ্বিধায় পেয়ারা খান। পেয়ারা রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় এবং পেয়ারায় থাকা ভিটামিন-সি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের ভূমিকা পালন করে। ফলে হার্ট ভালো থাকে।
ডায়াবেটিসের রোগীদের এক নাম্বার পথ্য হিসেবে পেয়ারার জুড়ি নেই। পেয়ারায় থাকা কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট ও ফাইবার ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
অ্যাজমা, স্কার্ভি, ওবিসিটি ইত্যাদি অসুখ ছাড়াও প্রস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে পেয়ারা।
এছাড়া পেয়ারা পাতায় আছে শক্তিশালী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এই পাতা ওজন কমাতেও সমানভাবে সাহায্য করে। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে তাঁরা এই রোগ সারাতে পেয়ারা পাতার শরণাপন্ন হতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight