সম্পাদকীয়

তাবলীগ মুসলিম মিল্লাতের অতি পরিচিত একটি শব্দ। যার অর্থ প্রচার ও প্রসার। কিয়ামত পর্যন্ত আগত সকল বিশ্ব মানবের নিকট দ্বীনের দাওয়াত পৌঁছাবার যে গুরু দায়িত্ব মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক সকল উম্মতে মুহাম্মদীর উপর অর্পিত হয়েছে, পরিভাষায় সেটাকেই তাবলীগ বলে।
মূলত রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিশ্বের মানুষের কাছে দ্বীনের এ দায়িত্ব পৌঁছাবার ও প্রচার-প্রসারের মহান দায়িত্ব নিয়েই পৃথিবীতে আগমন করেছিলেন। যেমন আগমন করেছিলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পূর্বে অনেক নবী ও রাসূল।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে তাবলীগের নির্দেশ দিয়ে আল্লাহ তাআলা পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন, হে রাসূল! আপনার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে আপনার উপর যা অবতীর্ণ হয়েছে আপনি তা প্রচার করুন। যদি আপনি তা না করেন তাহলে আপনি আল্লাহর বার্তা প্রচার করলেন না। [সূরা মায়েদা: আয়াত ৬৭]
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হলেন সর্বশেষ নবী। তারপর পৃথিবীতে আর কোন নবী আসবে না। তাই বিদায় হজ্বের সময় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বজ্র কণ্ঠে ঘোষণা করেন,  ‘উপস্থিত লোকেরা যেন দ্বীনের এ দাওয়াত অনুপস্থিত লোকদের নিকট পৌঁছে দেয়’ এর মাধ্যমে সমস্ত উম্মতে মুহাম্মদীই তাবলীগ তথা দ্বীন প্রচারের ব্যাপারে দায়িত্বশীল হয়ে যায়। যে ব্যক্তি দ্বীন সম্পর্কে যা জানে তা অন্যের কাছে পৌঁছে দেয়ার দায়িত্বশীল করে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, আমার পক্ষ থেকে একটি বাণী হলেও মানুষের কাছে পৌঁছে দাও। [সহীহ বুখারী: হাদীস ৩২৭৪; তিরমিযী শরীফ: হাদীস ২৬৬৯; তাহাবী শরীফ: হাদীস ৫৫৭০; সহীহ ইবনে হিব্বান: হাদীস ৬২৫৬]
সাহাবায়ে কেরাম উক্ত নির্দেশের বাস্তবায়ন ঘটিয়েছেন যথাযথভাবে। পরবর্তীতে সর্বযুগেই উলামায়ে উম্মত হাদীসের সফল বাস্তবায়নের জন্য নিজের জীবন বাজী রেখে সংগ্রাম করে গেছেন।
আল্লাহ তাআলা বলেন, আপনি আপনার প্রতিপালকের দিকে আহ্বান করুন হিকমত বা প্রজ্ঞা দ্বারা এবং সুন্দর ওয়াজ-নসীহত দ্বারা এবং তাদের সাথে উৎকৃষ্টতর পদ্ধতিতে আলোচনা-বিতর্ক করুন। [সূরা নাহল: আয়াত ১২৫]
অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, তোমাদের মধ্যে যেন এমন একটি দল হয়, যারা কল্যাণের প্রতি আহ্বান করবে, ভালো কাজের আদেশ দেবে এবং মন্দ কাজ থেকে নিষেধ করবে। আর তারাই সফলকাম। [সূরা আলে ইমরান: আয়াত ১০৪]
আল্লাহ তাআলা আরও বলেন, তোমরাই শ্রেষ্ঠ জাতি মানবজাতির (কল্যাণের) জন্য তোমাদের আবির্ভাব হয়েছে। তোমরা ন্যায় কাজে আদেশ এবং অন্যায় কাজে নিষেধ কর এবং আল্লাহকে বিশ্বাস কর। [সূরা আলে ইমরান: আয়াত ১১০]
আর মুমিন পুরুষ ও নারীরা একে অপরের বন্ধু, তারা ভালো কাজের আদেশ দেয় আর অন্যায় কাজ থেকে নিষেধ করে, আর তারা সালাত কায়েম করে, যাকাত প্রদান করে এবং আল্লাহ ও রাসূলের আনুগত্য করে। এদেরকে আল্লাহ শীঘ্রই দয়া করবেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ পরাক্রমশালী প্রজ্ঞাময়। [সূরা তাওবা: আয়াত ৭১]
সূরা তাওবার ১১২ আয়াতে, সূরা হজ্বের ৪১ আয়াতে, সূরা লুকমানের ১৭ আয়াতে ও অন্যান্য স্থানেও উল্লেখ করা হয়েছে যে, আল্লাহর প্রকৃত মুমিন বান্দাদের বৈশিষ্ট্য হলো সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজের নিষেধ। এ দায়িত্বপালনকারী মুমিনকেই সর্বোত্তম বলে ঘোষণা করা হয়েছে পবিত্র কুরআনে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ঐ ব্যক্তি অপেক্ষা কথায় কে উত্তম যে আল্লাহর প্রতি মানুষকে আহ্বান করে, সৎকাজ করে এবং বলে, আমি তো মুসলিমদের একজন। [সূরা ফুসসিলাত: আয়াত ৩৩]
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, দ্বীন হলো নসীহত। সাহাবীগণ বললেন, কার জন্য? বললেন, আল্লাহর জন্য, তাঁর কিতাবের জন্য, তার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জন্য। মুসলিমগণের নেতৃবর্গের জন্য এবং সাধারণ মুসলিমদের জন্য। [মুসলিম শরীফ]
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ নসীহতের জন্য সাহাবীগণের বাইআত তথা প্রতিজ্ঞা গ্রহণ করতেন। বিভিন্ন হাদীসে জারির ইবনু আবদুল্লাহ রা. মুগিরাহ ইবনু শুবা রা. প্রমুখ সাহাবীগণ বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট বাইয়াত বা প্রতিজ্ঞা করেছি, সালাত কায়েম, যাকাত প্রদান ও প্রত্যেক মুসলিমের নসিহত (কল্যাণ) কামনার উপর। [বুখারী]
এ সমস্ত আয়াত ও হাদীসের দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়েই সকল যুগে ওলামায়ে কেরাম আপন দায়িত্ব পালনে সজাগ সতর্ক ছিলেন। অবশ্য সকল যুগে দাওয়াত ও তাবলীগের পদ্ধতি বা ধারা একই রকম ছিল এমনটা নয়।  যুগ চাহিদার ভিত্তিতে ওলামায়ে কেরাম কুরআন ও হাদীস বর্ণিত মূলনীতির ভিত্তিতে সমাজ ও জাতির জন্য ফলপ্রসু ও কল্যাণকর নতুন পন্থা ও পদ্ধতি উদ্ভাবন করে মানবজাতিকে রাহনুমায়ী করেছেন হেদায়েতের পথে। কখনো মক্তব-মাদরাসা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কখনো ওয়াজ-নসীহতের মাধ্যমে। কখনো লিখনি ও বক্তৃতার মাধ্যমে, কখনো সহীহ হাদীস একত্র করা ও প্রচারের মাধ্যমে। কখনো খানকাহ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে। দাওয়াত ও তাবলীগের এসকল পন্থাই কুরআন হাদীস সমর্থিত।   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight