শিশুর স্বাস্থ্য

শিশুর পরিচ্ছন্নতার সাত অভ্যাস

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন অঙ্গ বা জিনিস যেমন দেখতে ভালো লাগে, তেমনি এটি জীবাণু থেকেও আমাদের সুরক্ষিত রাখে। ছোট বয়স থেকেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কিছু বিষয় শিশুকে শেখানো প্রয়োজন।
১. দাঁতের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা : দাঁত ও মুখ গহ্বরের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা সব শিশুকেই শেখানো প্রয়োজন। এমনকি শিশুর নতুন দাঁত ওঠার পর থেকে এ বিষয়ে খেয়াল রাখা উচিত। দাঁত পরিষ্কার রাখলে মুখের দুর্গন্ধ, দাঁতের ক্ষয় ইত্যাদি সমস্যা থেকে শিশু সুরক্ষিত থাকবে। দিনে অন্তত দুই বার দুই মিনিট করে দাঁত ব্রাশের অভ্যাস তাকে শিখাতে হবে।
২. নখের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা : নখের ময়লা থেকে অনেক রোগের উৎপত্তি হতে পারে। তাই প্রত্যেক শিশুকে নখ কাটা এবং নখ পরিষ্কারের বিষয়টি শেখানো উচিত। সপ্তাহে অন্তত একবার নখ কাটতে হবে।
৩. গোসল : অনেক শিশু গোসল করতে খুব পছন্দ করে। আবার অনেকে গোসল করাতে গেলে খুব বিরক্তিবোধ করে। তবে শিশুদের মধ্যে নিয়মিত গোসলের অভ্যাস গড়ে তোলা ভালো।
৪. হাত ধোয়া : মা-বাবাদের শিশুদের হাত ধোয়ানোর বিষয়টি ভালোভাবে শেখানো প্রয়োজন। এই অভ্যাস জীবাণুকে দূরে রাখবে এবং অনেক অসুখ থেকে শিশুকে সুরক্ষা দেবে।
৫. পা ধোয়া : দিনে অন্তত দুই বার পা ধোয়ানোর অভ্যাস শিশুর ভেতর গড়ে তুলুন। সাবান দিয়ে পা ধোয়ানোর অভ্যাস করুন। পাশাপাশি জুতা পরিষ্কার রাখতে শেখান।
৬. টয়লেট পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা : মলত্যাগ বা প্র¯্রাবের পর কীভাবে টয়লেট পরিষ্কার করবে এই বিষয়টিও শিশুকে শেখানো প্রয়োজন এবং এরপর সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার অভ্যাসও শেখাতে হবে শিশুকে।
৭. ঘর পরিষ্কার : শিশুর নিজের কিছু কিছু জিনিস যেমন বই, খেলনা বিছানা ইত্যাদি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নর বিষয়টিও শেখান। এসব অভ্যাস শিশুকে রোগ থেকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight