বেহেশতের বাজার -মুছাম্মত : হুরে-ঈন

নিজের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য আমরা কত মেকাপই না করে থাকি। বাজারে গিয় সবচেয়ে দামী মেকাপবক্স ক্রয় করি যেন উন্নত মেকাপ দিয়ে নিজের চেহারা বেশি সৌন্দর্যম-িত করতে পারি। আবার কেউ তো আছে যাদের কাড়ি কাড়ি টাকা আছে তারা তো স্কীন সার্জারীও করে থাকেন সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য। কিন্তু মনের রাখবেন- এই পৃথিবীতে আমরা যতই চেষ্টা করি না কেন, নানা রকমের পোশাকে নানা রকমের অলংকারে সাজতে পারি। শরীরে হয়তো খানিকটা রঙও মাখাতে পারি। পাউডার ছিটাতে পারি। কিন্তু আকৃতি বদলাতে পারি না। যাদের কাড়ি কাড়ি অর্থ আছে তারা অবশ্য আকৃতি বদলের নেশায় প্লাস্টিক সার্জারি করে। কিন্তু কয়েক বছর যেতে না যেতেই এই প্লাস্টিক রূপ এমন বিকৃত আকার ধারণ করে তখন তাকে দেখে ঘৃণা ছাড়া আর কিছুই জাগ্রত হয় না। কিন্তু বেহেশতে আল্লাহ তাআলা একটা বাজার বসাবেন। এই দুনিয়াতে যেমন শুক্রবারে বাজার বসে। ঠিক তেমনি বেহেশতেও শুক্রবারে বাজার বসবে। শুক্রবারে সকলেই আল্লাহ তাআলার দীদারের নেশায় তারা বেহেশতের কথাও ভুলে যাবে। আল্লাহ তাআলার দীদার শেষে যখন তারা ফিরে আসবে তখন পথেই পড়বে শুক্রবারের বাজার। সে বাজারও বড় বিস্ময়কর। একটি বাজার হবে মেয়েদের, আরেকটি ছেলেদের। বাজারে ফ্রেমে বাঁধানো সারি সারি সুন্দর ছবি ঝুলানো থাকবে। প্রতিটি ছবির নিচে লেখা থাকবে- ‘তুমি যদি চাও তাহলে আমি তোমার মধ্যে রূপান্তরিত হতে পারি।’
প্রত্যেকেই ছবিগুলো দেখতে থাকবে আর হাঁটতে থাকবে। দেখতে দেখতে যে ছবিটি তার পছন্দ হবে এবং তার মন যে আকৃতিটির প্রতি আকর্ষণ বোধ করবে তখন সঙ্গে সঙ্গে তার রূপ সেই ছবিটির রূপ ধারণ করবে। বিষয়টি এমন নয় যে তার মাথা কেটে এখানে নতুন আরেকটি মস্তক স্থাপন করা হবে। সেখানে অপারেশনের কোন ঝায়-ঝামেলা নেই। ওদিকে বেগম সাহেবাও ঘুরছেন বাজারে। তারও একটি আকৃতি পছন্দ হয়েছে। আকৃতি দেখে বিষ্ময়ে সে যখন বিমূঢ় তখন লক্ষ্য করবে, তার রূপ সে ছবিটির মতো হয়ে গেছে। পলকে বদলে গেছে তার আকৃতি। স্বামীর আকৃতি বদলে গেছে, এদিকে বদলে গেছে স্ত্রীর আকৃতিও। তারপর উভয়েই ঘরে ফিরে আসবে। কিন্তু তারা একে অপরকে দেখে অপরিচিত ভেবে বিবৃত হবে না। ভাববে না, এ আবার আমার ঘরে কে আসলো? বরং তারা আকৃতি পরিবর্তন সত্ত্বেও একে অপরকে চিনতে পারবে এবং আহ্লাদ করে বলবে, তুমি এই আকৃতি পছন্দ করেছো।
প্রিয় পাঠক পাঠিকা! এখানে পড়ে আছি সাজ সজ্জা আর মেকাপের নেশায়। এই মেকাপকে বিসর্জন দিয়ে যদি কাঙ্খিত দশটি গুনের অলংকারে নিজেকে সজ্জিত করতে পারি। দেখবো আল্লাহ তাআলা আমাদের মনের সকল মেকাপকে বাস্তবে রূপায়িত করবেন। তাহলে আসুন জেনে নেই কী সেই দশটি অংকার যার সাজে সাজতে পারলে জান্নাতের অনন্তকালের এবং বিমোহিত মেকাপে সাজতে পারব? সেই দশটি অলংকার হলো-১. মুসলমান তথা আত্মসমর্পণ করা। ২. আল্লাহর উপর পূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন করা। ৩. আল্লাহ ও তার রাসূলের প্রতি পূর্ণ আনুগত্যশীল হওয়া। ৪. সদা সত্যবাদী হওয়া। ৫. দীনি কাজে ধৈর্যশীল হওয়া, ৬. বিনীত হওয়া, ৭. বেশি বেশি আল্লাহর রাস্তায় দান করা। ৮. আল্লাহর সন্তুষ্টি কল্পে রোযা রাখা। ৯. অন্যায় ও ব্যভিচার থেকে যৌনাঙ্গ হেফাজত করা। ১০. সর্বদায় আল্লাহর জিকির করতে করতে জিহ্বাকে তাজা রাখা। এ সমস্ত গুণে গুণান্বিত ব্যক্তিদের জন্য আল্লাহ রেখে দিয়েছেন ক্ষমা ও মহাপ্রতিদান। [সূরা আহযাব : ৩৫]

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight