ধর্ষণ কেন ? নেপথ্যে কী ? : মুফতী মুহাম্মদ শোয়াইব

ভয়ানকরূপে বৃদ্ধি পাচ্ছে ধর্ষণ। কোমলমতি শিশু থেকে অশীতিপর বৃদ্ধ পর্যন্ত কেউই রেহাই পাচ্ছে না ধর্ষণের হাত থেকে। মানব সমাজের মরণব্যাধিরূপে আবির্ভূত ধর্ষণের স্টাইল ও কৌশলেও দিন দিন নতুন নতুন মাত্রা যোগ হচ্ছে। বৃদ্ধি পাচ্ছে তার ভয়াবহতাও। ধর্ষণের পর গলা টিপে বা স্বাস রুদ্ধ করে হত্যা করা এখন অতি মামুলি ব্যাপার। চার থেকে পাঁচ বছরের যে শিশু, সেও অত্যন্ত নির্মমভাবে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে ৩০-৪০ বছরের পাষ- লম্পট দ্বারা। আবার ১৩-১৪ বছরের ছেলে কর্তৃক ধর্ষিতা হচ্ছে ৬০ বছরের নারী। সমাজের নৈতিক দৈন্যতা যে কোন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁঁছেছে, তা বুঝার জন্য এরচে অতিরিক্ত কিছু উপস্থাপনের প্রয়োজন নেই। মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের এক জরিপে দেখা গেছে, ২০১৩ সালে সারা দেশে মোট ধর্ষিতা নারীর সংখ্যা ৮১২ জন। এদের মধ্যে ৮৭ জনকে ধর্ষণ-পরবর্তী সময়ে হত্যা করা হয় এবং আত্মহত্যা করেন ১৪ জন। এ ছাড়াও ২০১৪ সালের আগস্ট থেকে জুন পর্যন্ত ৩০৯টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে সারা দেশে। এর মধ্যে গণধর্ষণের শিকার ৯৮ জন এবং ২৯ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার হয়ে সাতজন আত্মহত্যা করেছেন। আরও ৪৪ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

ধর্ষণের নেপথ্য কারণ কী এই প্রশ্নের জবাবে নারী পুরুষ একে অপরকে দোষারোপ করতে দেখা যায়। পুরুষপক্ষ বলছে, নারীর উগ্র চলাফেরা, নগ্নতা, মিডিয়ায় তাদের কামনাময়ী হয়ে উপস্থাপন পুরুষকে ধর্ষণের দিকে উদ্বুদ্ধ করছে। নারী দিন দিন নারিত্ব সংকটে পড়ছে। নারী তার নারিত্ব বর্জন করে পুরুষের ভূমিকায় আবির্ভূত হতে চাচ্ছে। নারী বুঝে না যে, নারী নারীই। নারী ঘরনি হলে যেভাবে সে পুরুষের চিত্তাকর্ষক, তেমনি বিমানের পাইলট কিংবা কর্পোরেট হাউজের এক্্িরকিউটিভ হলেও সে আপন মহিমায় বিভূষিত। সে নিজেকে আকর্ষণীয় অবয়বে প্রদর্শন করলে বা কোনোভাবে প্রদর্শিত হলে পুরুষ আকর্ষিত হবেই। নারী যদি করা সেন্ট বা সুগন্ধিজাতীয় বস্তু ব্যবহার করে, উগ্র, আপত্তিকর ও যৌন উত্তেজক পোশাক পরিধান করে, অসামাজিক ও অস্বাভাবিক ফ্যাশন ও সাজসজ্জায় সেজেগুজে রাস্তা দিয়ে নিতম্ব দুলিয়ে দুলিয়ে হেটে যায়, পুরুষের কামভাব জেগে উঠবেইÑ এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। এমন সব দৃশ্য দেখার পরও যদি কারও কামনা জাগ্রত না হয়, তবে তার সুস্থ্যতা নিয়েই প্রশ্ন উঠবে। আধুনিকতার স্লোগানে নারী আজ চরম মোহগ্রস্ত ও প্রতারিত। হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার মতোই এক শ্রেণীর প্রতারক পুরুষ নারীকে নিক্ষেপ করছে গভীর অন্ধকূপে। নারী তার মান-ইজ্জত ও সম্ভ্রম হারিয়ে হয়ে পড়েছে চরম নিঃসঙ্গ। নারী আজ দিশে হারিয়ে দিগ্ধিবিদিক ছুটোছুটি করছে। কোথায়ও তার আশ্রয় নেয়ার জায়গা নেই। পথের মোড়ে মোড়ে ঘাপটি মেরে বসে আছে ধোঁকাবাজ লম্পট নরপশু। তারা নারীকে কুড়ে কুড়ে খেতে চায়। কামড়ে খামচে তাদের কামনা নিবারণ করতে চায়। তাদেরকে বানাতে চায় কাম ও লালসাসেবী। তাদের হিং¯্র ছোবল থেকে নারী নিজেকে রক্ষা করতে চায়।

নারীরা আজ পশ্চিমাদের অন্ধ অনুকরণে আকন্ঠ নিমজ্জিত। তাদের মতো স্কার্ট, মিনি স্কার্ট, মাইক্রো স্কার্ট পরে শরীরের আকর্ষণীয় আঙ্গগুলো প্রদর্শন করতে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। আধুনিকা সাজতে গিয়ে নারীরা উগ্র ও যৌন আবেদনময়ী পোশাক পরে পাড়ায় পাড়ায় রাস্তা-ঘাটে ঘুরে বেড়ায়। এসব উদ্ভট সাজ-পোশাকে সে যখন বাইরে বের হয়, পাড়ার বখে যাওয়া উঠতি তরুণরা তাকে দেখে শিশ দেয়, হাততালি দেয়, আশালীন মন্তব্য করে, নোংরা কথা বলে আরও নানাভাবে উত্ত্যক্ত করে। নারীর প্রতি অনৈতিক চিন্তা ও কাজে সরাসরি প্রলুব্ধ হচ্ছে। এতে কর্মক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বা সহকর্মী দ্বারা লাঞ্ছিত হচ্ছে। এমনকি শিক্ষক ও সহপাঠী দ্বারাও হয়রানির শিকার হচ্ছে। ইদানিং ‘লেগিংস’ নামে মেয়েদের অদ্ভুত এক প্যান্টের আবির্ভাব হয়েছে। এগুলো মেয়েদের পদযুগলের সঙ্গে এতই আঁটসাট হয়ে লেগে থাকে যে, তাদের শরীরের অবয়ব স্পষ্টভাবে ফুটে ওঠে। এসব দেখে পুরুষের দৃষ্টি কামার্ত হয়ে ওঠে। পণ্যের বিজ্ঞাপনে নারী যেভাবে আকর্ষণীয় ভঙ্গিতে প্রদর্শিত হচ্ছে, তাতে মূলত নারীই প্রধান পণ্যে পরিণত হচ্ছে। এমনকি যেসব পণ্য নারীর জন্য প্রযোজ্য নয়, সেসব পণ্যের বিজ্ঞাপনেও নারী উত্তেজক রূপে হাজির হচ্ছে। সিনেমার নায়িকা থেকে সাইড নায়িকা, নর্তকী থেকে নিয়ে টিভি সিরিয়াল ও নাটকেও নারী যেভাবে উপস্থাপিত হচ্ছে তাতে নারী ভোগবাদী সমাজপতীদের তাদের ওপর উপগত হওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে। ইন্টারনেট এবং গণমাধ্যমে নারী যৌন আবেদনময়ী ও উপভোগ্য হয়ে উপস্থাপিত হচ্ছে। এসবই ধর্ষণ ও নারীর যৌন হয়রানিকে আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে। মোটকথা ধর্ষণ বৃদ্ধির নেপথ্য কারণ হিসেবে পুরো দোষটা কিন্তু নারীর ঘাড়েই পড়ছে। অর্থাৎ নারীই পুরুষকে তার ওপর উপগত হতে সুযোগ সৃষ্টি করে দিচ্ছে।

অপরদিকে নারী পক্ষ বলছে, নারী যেভাবেই চেলাফেরা করুক সেটা তারা করতেই পারে। পুরুষের মানসিকতা ঠিক করলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। কারণ ৪-৫ বছরের যে নিষ্পাপ শিশুটি ধর্ষিতা হয়, তার তো শারীরিক নগ্নতা প্রদর্শনের কিছু নেই। সেও কিন্তু ধর্ষিতা হচ্ছে। বুঝা গেল নারীর অবাধ নগ্নতা প্রদর্শনই ধর্ষণ বৃদ্ধির আখেরি কথা নয়। পুরুষ নারীর প্রতি আকর্ষিত হওয়ার কারণে যদি ধর্ষণ হয়, তাহলে সমাজের সব পুরুষই ধর্ষণে উদ্বুদ্ধ হত। তা তো হচ্ছে না। সবাইতো নারীকে কামনা করে জোর করে ভোগ করার প্রচেষ্টা চালায় না; বরং অতি অল্প কিছু বিকারগ্রস্ত মানুষ এই জঘন্য কর্মে লিপ্ত হয়। পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা, পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি ও পুরুষরা বলবান হওয়ার কারণে পুরুষরা নারীকে লালসা মেটানোর সবচেয়ে নমনীয় শিকার হিসেবে ভাবে। তাছাড়া ধর্ষকদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত না হওয়ার কারণেও পুরুষ ধর্ষণকর্মে সাহস পেয়ে যায়। নারীকে নিয়ে বাণিজ্যিকীকরণ, বিজ্ঞাপন ও ইভেন্টে নারীকে ক্রমাগত দেহসর্বস্ব যৌন লালসার ভোগ্যপণ্য হিসেবে উপস্থাপন পুরুষকে ধর্ষণের দিকে উদ্বুদ্ধ করে। মোবাইল কোম্পানির সিম বিক্রি থেকে নিয়ে জুস, আচার, কোল্ড ড্রিঙ্কস, দাঁত মাজার পেস্ট, গায়ে মাখার সাবান, বাড়ি তৈরির সিমেন্ট, গাড়ি, বাড়ি সব বিজ্ঞাপনে নারীকে উপস্থাপন করা হয় আবেদনময়ী করে। আবার পত্রিকার কাটটি বাড়াবার জন্য নগ্ন দেহের সুন্দরী মডেলের ছবি প্রচারিত হয়। তাছাড়া মোবাইল ইন্টারনেটে পুরুষরা যে পর্ণো ভিডিও ছড়িয়ে দিচ্ছে, উঠতি তরুণ থেকে শুরু করে অনেক যুবকরাও এসবের প্রতি আসক্ত। তারা এগুলো দেখে দেখে শরীরে যে উত্তাপ অনুভব করে তার বহিঃপ্রকাশ ঘটে ধর্ষণের মাধ্যমে। প্রশ্ন হচ্ছে এ কাজগুলো করছে কারা ? এ কাজগুলো করছে পুরুষরা। আরও খুলে বললে বলতে হয়, আমাদের দেশের কর্পোরেট ব্যবসায়ী ও সমাজের সবচে উঁচুশ্রেণীর শিক্ষিত লোকজন ও কথিত সুশীল সমাজ। সুতরাং ধর্ষণের পেছনের সব দায় নিতে হবে পুরুষদের।

কেউ আবার দোষাদোষি বাদ দিয়ে অন্যভাবে ভাবছেন। তাদের ধারণা, সামাজিক অজ্ঞতা ও কুসংস্কার পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা ও নানা কুসংস্কারকে দায়ি করেন। কেউ কেউ আবার এর সঙ্গে ধর্মকে টেনে আনার জোর প্রচেষ্টা চালান। তারা নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা ও নারী স্বাধীনতায়ও ধর্মকেই বড় প্রতিবন্ধক হিসেবে দেখানোর চেষ্টা চালান। এমনকি সামাজিক কুসংস্কারের মতো ধর্মীয় কুসংস্কার নামেও একটি ধারণাকে সামাজ-হৃদয়ে বদ্ধমূল করার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়।

কিন্তু আফসোসের বিষয় হলো, সমাজের যারা ধর্মকে নারী উন্নতি ও প্রগতির অন্তরায় মনে করেন, তারা কিন্তু সিনেমার পোস্টার, বিলবোর্ড, পত্র-পত্রিকার বিনোদন পাতায় নারীর নগ্ন ছবি প্রদর্শন, অশ্লীল নৃত্য, বিয়ে বর্হিভূত অবৈধ প্রেম ও শারীরিক সম্পর্ক ও অবাধ যৌনতার বিরোধিতা কখনো করেন না বা করতে দেখা যায় না। বরং এগুলোকেই প্রগতি ও আধুনিকতা সাব্যস্ত করে এর বিরোধিতাকারীদের পশ্চাতপদ ও প্রগতিবিরোধী কিংবা মৌলবাদী বলে বিষোদগার করতে দেখা যায়।

আবার কারও ধারণা, ছেলেবন্ধু আর মেয়েবন্ধু নামে যে নারী পুরুষের অবাধ মেলামেশার সংস্কৃতি তৈরী হয়েছে, তাও পুরুষকে ধর্ষণে উদ্বুদ্ধ করে। কারণ প্রতিটি পুরুষ যৌন তাড়নায় কাতর। প্রতিটি পুরুষের ভেতরই বাস করে একজন কুৎসিত ধর্ষণকামী মানুষ। যখনই সে সুযোগ পায় সে তার মোক্ষম সুযোগটি কাজে লাগায় এবং তার আসল রূপে আবির্ভূত হয়। সে শুধু একটি মোক্ষম সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। নারীর কাছ থেকে তার লালসা মেটানোর জন্যই সে শুধু ছেলেবন্ধুর ভান করে। মোটকথা নারী ধর্ষণ দিন দিন বেড়েই চলছে। বিবাহিত নারীদের প্রতি চারজনের একজন স্বামীর নির্যাতনের শিকার। বিশেষত নারীকে পণ্য করে বাজারে তোলার যে সংস্কৃতি চালু হয়েছে তা ধর্ষণ-নির্যাতনের অন্যতম কারণ। ধর্ষণ একটি রিপুতাড়িত লিপ্সা। মানুষ যখন বিপরিত লিঙ্গের প্রতি প্রবল আকর্ষিত হয় তখন সে ধর্ষণে উদ্বুদ্ধ হয়। তবে প্রশ্ন হচ্ছে ধর্ষকরা কি জন্মগতভাবেই ধর্ষণকর্মে অভ্যস্ত হয়? ধর্ষক চাই পুরুষ হোক বা নারী, জন্মগতভাবেই কেউই বোধ হয় ধর্ষণকর্মে উদ্বুদ্ধ হয়ে জন্মগ্রহণ করে না। মূলত পরিবেশ-পরিস্থিতি পারিবারিক অবস্থান, কর্মক্ষেত্রসহ অনেক কিছুর সমন্ময়ে মানুষ ধর্ষণে প্রলুব্ধ হয়ে ওঠে। ধর্ষণ মানুষের সাধারণ কোনো আচরণ নয়। এটি হচ্ছে অস্বাভাবিক আচরণ ও বিকারগ্রস্ততার বহিঃপ্রকাশ। বিকারগ্রস্ত মানুষের পক্ষেই কেবল ধর্ষণের মতো অসামাজিক ও কুরুচিপূর্ণ আচরণ করা সম্ভব। তবে খোঁজ নেয়া দরকার যে, ধর্ষণ কাকে বলে? এবং কেন আমাদের সমাজে ধর্ষণের জঘন্য অপরাধ উত্তর উত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে ? এর নেপথ্য কারণই বা কী ?

 

উইকিপিডিয়া অনুযায়ী ধর্ষণ হলো Rape is a type of sexual assault usually involving sexual intercourse (or other forms of sexual penetration) initiated against one or more individuals without the consent of those individuals. The act may be carried out by physical force, coercion, abuse of authority or against a person who is incapable of valid consent, such as one who is unconscious, incapacitated, or below the legal age of consent.

বাংলাদেশের আইনে ধর্ষণের যেসব সজ্ঞা ও বিবরণ এসেছে :

দ-বিধি ১৮৬০ ঃযব ঢ়বহধষ পড়ফ ১৮৬০ : ধারা ৩৭৫-৩৭৬

  1. A man is said to commit “rape” who except in the case hereinafter excepted, has sexual intercourse with a woman under circumstances falling under any of the five following descriptions:

Firstly. Against her will.

Secondly. Without her consent.

Thirdly. With her onsent, when her consent has been obtained by putting her in fear of death, or of hurt.

Fourthly. With her consent, when the man knows that he is not her husband, and that her consent is given because she believes that he is another man to whom she is or believes herself to be lawfully married.

Fifthly. With or without her consent, when she is under fourteen years of age.

Explanation. Penetration is sufficient to constitute the sexual intercourse necessary to the offence of rape.

Exception. Sexual intercourse by a man with his own wife, the wife not being under thirteen years of age, is not rape.

  1. Whoever commits rape shall be punished with 2[imprisonment] for life or with imprisonment of either description for a term which may extend to ten years, and shall also be liable to fine, unless the woman raped is his own wife and is not under twelve years of age, in which case he shall be punished with imprisonment of either description for a term which may extend to two years, or with fine, or with both.

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এ রয়েছে :   ৯/ (১) যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে, তাহা হইলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রমে কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদ-েও দ-নীয় হইবেন।

ব্যাখ্যা : যদি কোনো পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত (২) (ষোল বৎসরের) অধিক বয়সের কোনো নারীর সহিত তাহার সম্মতি ব্যতিরেকে বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তাহার সম্মতি আদায় করিয়া, অথবা (৩) (ষোল বৎসরের) কম বয়সের কোনো নারীর সহিত তাহার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহা হইলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন।

(২) যদি কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তাহার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদ-ে বা যাবজ্জীবন সশ্রমে কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অনুন্য এক লক্ষ টাকা অর্থদ-েও দ-নীয় হইবেন।

(৩) যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন এবং ধর্ষণের ফলে উক্ত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে বা তিনি আহত হন, তাহা হইলে ঐ দলের প্রত্যেক ব্যক্তি মৃত্যুদ-ে বা যাবজ্জীবন সশ্রমে কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অনুন্য এক লক্ষ টাকা অর্থদ-েও দ-নীয় হইবেন।

(৪) যদি কোনো ব্যক্তি কোনো নারী বা শিশুকেÑ

(ক) ধর্ষণ করিয়া মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদ-েও দ-নীয় হইবেন;

(খ) ধর্ষণের চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক দশ বৎসর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বৎসর সশ্রম কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদ-েও দ-নীয় হইবেন।

(৫) যদি পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন সময়ে কোনো নারী ধর্ষিতা হন, তাহা হইলে যাহাদের হেফাজতে থাকাকালীন উক্তরূপ ধর্ষণ সংঘটিত হইয়াছে, সেই ব্যক্তি বা ব্যক্তিগণ ধর্ষিতা নারীর হেফাজতের জন্য সরাসরিভাবে দায়ী ছিলেন, তিনি বা তাহারা প্রত্যেকে, ভিন্নরূপ প্রমাণিত না হইলে, হেফাজতের ব্যর্থতার জন্য, অনধিক দশ বৎসর সশ্রম কারাদ-ে দ-নীয় হইবেন।

টিকা দুটিতে আছে : “ষোল বৎসরের” শব্দগুলি “চৌদ্দ বৎসরের” শব্দগুলির পরিবর্তে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) আইন, ২০০৩ (২০০৩ সনের ৩০ নং আইন) এর ৩ ধারাবলে প্রতিস্থাপিত।

পবিত্র কুরআনে ধর্ষণকে ‘যিনা’ শব্দে ব্যক্ত করা হয়েছে। শিরক ও হত্যার পর ‘যিনা’ সবচেয়ে জঘন্য গুনাহ। “এবং যারা আল্লাহর সাথে অন্য উপাস্যের ইবাদত করে না, আল্লাহ যার হত্যা অবৈধ করেছেন, সঙ্গত কারণ ব্যতীত তাকে হত্যা করে না এবং ব্যভিচার করে না। যারা একাজ করে, তারা শাস্তির সম্মুখীন হবে। কেয়ামতের দিন তাদের শাস্তি দ্বিগুণ হবে এবং তথায় লাঞ্ছিত অবস্থায় চিরকাল বসবাস করবে। কিন্তু যারা তওবা করে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে, আল্লাহ তাআলা তাদের গুনাহকে পূণ্য দ্বারা পরিবর্তন করে দিবেন। [আলফুরকান : ৬৮-৭০] অন্যত্র মহান আল্লাহ তাআলা বলেন, আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ। [ইসরা, ৩২] ইমাম কুরতুবী রহ. বলেন, ওলামায়ে কেরাম বলেন, ‘যিনা কর না’ এরচেয়ে ‘যিনার কাছেও যেয়ো না’ অনেক বেশী কঠোর বাক্য। এর অর্থ যিনার ভূমিকায় যেসব বিষয় থাকে, সেগুলোও হারাম।

 

ইসলামের দৃষ্টিতে যিনার শাস্তি

ইসলামের দৃষ্টিতে ব্যক্তির পরিবর্তনের কারণে যিনার শাস্তিও পরিবর্তন হয়। যিনাকারী যদি বিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যের পাথর মেরে মৃত্যুদ- দেয়া হবে। আর যদি অবিবাহিত হয় তাহলে তাকে প্রকাশ্যে একশত বেত্রঘাত করা হবে। নারী-পুরুষ উভয়ের জন্য একই শাস্তি প্রযোজ্য হবে। পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হয়েছে, “ব্যভিচারিণী নারী ব্যভিচারী পুরুষ তাদের প্রত্যেককে একশত করে বেত্রাঘাত কর। আল্লাহ তাআলার বিধান কার্যকর করণে তাদের প্রতি যেন তোমাদের মনে দয়ার উদ্রেক না হয়, যদি তোমরা আল্লাহ তাআলার প্রতি ও পরকালের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাক। মুসলমানদের একটি দল যেন তাদের শাস্তি প্রত্যক্ষ করে। [নূর : ২]

 

অনেক প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী মনে করছেন, এসব সামাজিক ব্যাধি ছড়িয়ে পড়ার পেছনে কারণ হলো অশিক্ষা ও দারিদ্র্য। অনেকে আবার এসব সমস্যার মূলে আইনের কঠোর প্রয়োগ না থাকাকেই দায়ী করেন। চলুন দেখা যাক আসল রহস্যটা কোথায় ?

অভিজ্ঞতায় দেখা যায়, ধর্ষণকর্মে সাধারণত পুরুষরাই লিপ্ত হয়। নারীরা সাধারণত ধর্ষকের ভূমিকায় থাকে না। তবে তাদের দ্বারা যেটা হয়, সেটা হলো ধর্ষণকর্মে মৌন সমর্থন বা পুরুষকে উপগত হতে খানিকটা সুযোগ করে দেয়া। তবে নারী সৃষ্টিগত লজ্জা, সামাজিক অবস্থান, পারিবারিক বিধি-নিষেধ ইত্যাদি কারণে সরাসরি বিপরীত লিঙ্গের সঙ্গে উপগত হতে বাধাপ্রাপ্ত হয় বা নিবৃত থাকে। তবে পুরুষ কিছুটা বলবান, সামাজি অবস্থান দৃঢ়, সমাজ পুরুষ শাসিত, সৃষ্টিগতভাবে পুরুষ কিছুটা রুক্ষ স্বভাবের ইত্যাদি কারণ বিবেচনায় পুরুষকেই ধর্ষকের ভূমিকায় দেখা যায়। ব্যতিক্রম যে নেই তা নয়। তবে তার মাত্রা একেবারেই কম। দু’একটি যা হয় তাও অনভিপ্রেত ও অপ্রত্যাশিত। সুতরাং বলা যায়, পুরুষরাই ধর্ষণকর্ম করে থাকে। প্রশ্ন হচ্ছে পুরুষরা তো আর জন্মগতভাবে ধর্ষক হয়ে জন্মগ্রহণ করেন না। তাহলে কেন তারা ধর্ষণের প্রতি আর্কষিত হয়ে পড়েন ?

নারীকে মহান আল্লাহ তাআলা সৃষ্টিগতভাবেই সুন্দর দেহ-সৌরব দিয়ে সৃষ্টি করেছেন। তার চাল-চলন, কথা-বার্তা, হাসি-ঠাট্টা, তার চাহনি সব কিছুতেই একটা আকর্ষণভাব থাকে। সুতরাং নারী যখন তার আকর্ষণীয় বিষয়গুলো প্রদর্শন করে তখন পুরুষরা আকর্ষিত হবেÑ এটা স্বাভাবিক ব্যাপার।

নারীকে পণ্য করে উপস্থাপনের যে প্রবণতা সৃষ্টি হয়েছে তার জন্য দায়ি কারা? মসজিদের ইমাম সাহেব নাকি টিভি টকশোতে নিয়মিত যারা প্রোগ্রাম করে জাতির উন্নত বিবেক সাজেন, সেই কথিত ভদ্র নামের লোকগুলো। একটি মোবাইল কোম্পানি তাদের বিলবোর্ড টানাবে সেখানেও তিন তিনটি মেয়েকে উগ্রবাচনভঙ্গিতে দাঁড় করিয়ে দেয়া হয়েছে। নৌকায় দেয়ার জন্য আলকাতরা কিনলেও সেখানে একটি নারী যৌনআবেদনময়ী ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। আধুনিকতা আমাদের সমাজমানসে এমনভাবে ঢুকেছে যে, এখন সভ্যতা বলতে কিছু নেই। পশ্চিমারা যাই পাঠাচ্ছে আমাদের ছেলেমেয়েরা, যুবক-যুবতীরা সেগুলোকেই দেদারছে গিলছে। যৌনআবেদনময়ী ও আঁটসাট পোশাক পরে, নগ্ন, অর্ধনগ্ন হয়ে ঘুরে বেড়ানোর সংস্কৃতি আমাদের ছেলে-মেয়েরা যেভাবে রপ্ত করেছে তাতে বিপরিত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষিত হওয়ার বহু কারণ রয়েছে। নারীর প্রদর্শনীয় অঙ্গগুলোকে প্রদর্শন করলে পুরুষের ভেতর অবশ্যই কামভাব জাগবে। মোবাইল ইন্টারনেটের এই যুগে পর্ণো ভিডিও খুবই সস্তা একটি অনুষঙ্গ। ইন্টারনেটের কল্যাণে এসব চরিত্র বিধ্বঃসী ভিডিও হাতের নাগালে পেয়ে যুবকরা সেগুলো দেখে দেখে শরীরের ভেতর যে উত্তাপ অনুভব করে তা প্রশমনের জন্য বেঁছে নেয় ধর্ষণের মতো কুকর্ম। সুতরাং ভেতরে চিকিৎসা না করে ওপরে যতই মলম লাগানো হোক, ধর্ষণ তাতে কিছুতেই বন্ধ হবে না।

একটি চরম সত্য কথা হলো, আমাদের বুদ্ধিজীবীরা টিভি-টকশোতে যে যত পদ্ধতি আবিস্কার করেন, কোনো কিছুতেই ধর্ষণ নামক সামাজিক ব্যাধি বন্ধ হবে না। হওয়ার নয়। যার প্রমাণের জন্য কারও চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়ার প্রয়োজন বোধ করি না। সত্য কথা হলো, তরুণ সমাজে যতদিন ইসলাম চর্চিত না হবে, ততদিন এই ধরণের অপরাধগুলো বন্ধ হবে না। ইসলামই হচ্ছে আসল মুক্তির সনদ। অপসংস্কৃতির কৃষ্ণ কালো ধূ¤্রকুঞ্জ যে হারে বাংলাদেশের আকাশ-বাতাসকে গ্রাস করে চলেছে, তা এক কথায় ভয়াবহ। সাথে সাথে মানুষের দৈনন্দিন জীবন থেকে পাল্লা দিয়ে অপসৃত হচ্ছে ধর্মীয় মূল্যবোধ ও নৈতিক আদর্শ। সে শূন্যস্থান পূরণ করছে মানুষের জৈবিক ও পাশবিক চিন্তাধারা। মানুষের সবকিছুতে জৈবিক চিন্তাধারা ঢুকে যাওয়ার কারণে নৈতিক অবক্ষয় ও অধঃপতন এমনভাবে তরান্বিত হচ্ছে, যার কারণে মানুষের মনুষ্যত্বশক্তি লোপ পেয়ে সেখানে আসন গেড়ে বসেছে পাশবিকশক্তি। ফলশ্রোতিতে আজ নারী ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, নারী অপহরণ ইত্যাদি অপরাধগুলো সমাজকে কুরে কুরে খাচ্ছে।

ধর্ষণ এমন এক প্রবণতা যা ধর্মীয়, সামাজিক, ও আদর্শিক সব মাপকাঠিতেই জঘন্যতম অপরাধ। শুধু ইসলামই নয় ; বরং সব ধর্ম ও মানুষের কাছে এটি সর্বাধিক ঘৃণিত বিষয় বলেই বিবেচিত হয়ে আসছে। আমাদের সমাজে এ ধরনের নৈতিক অপরাধ-প্রবণতা দিন দিন বেড়েই চলছে। অপরাধ দমনের জন্য বহু আইন তৈরি করা হচ্ছে; কিন্তু তা অপরাধ দমনে কার্যকর ও ফলপ্রসূ ভূমিকা পালন করতে পারছে না। ইসলামের দৃষ্টিতে অপরাধ দমনের প্রধান ও ফলপ্রসূ ব্যবস্থা হলো তাকওয়া বা আল্লাহর ভয় মানুষের অন্তরে জাগিয়ে তোলা। ইসলাম ব্যক্তির মনমানসিকতায় আল্লাহর ভয় ও পরকালের জবাবদিহিতার প্রত্যয় সৃষ্টি করার প্রতিই বেশী গুরুত্ব দিয়েছে। মানুষকে পরিস্কারভাবে একথা বোঝানোর চেষ্টা করেছে যে, যত সংগোপনেই সে অপরাধ করুক না কেন, আল্লাহ তাআলা তা দেখেন। পরকালে আল্লাহর কাছে এ জন্য তাকে জবাবদিহি করতে হবে। পরকালে ভালো-মন্দ বিচারের মাপকাঠি হবে তাকওয়া বা আল্লাহর ভয়। যার ভেতর আল্লাহর ভয় যত বেশী থাকবে সে তত বেশী আল্লাহর নৈকট্য ও ভালোবাসা লাভ করবে। এ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমাদের মাঝে সে ব্যক্তিই আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয় ও সম্মানিত যে তোমাদের মাঝে অধিক মুত্তাকী।’ [সূরা হুজরাত : ১৩]

মানব জীবনে তাকওয়ার গুরুত্ব ও তাৎপর্য সম্পর্কে মহান আল্লাহ তাআলা আরও বলেন, ‘আর যে ব্যক্তি তার রবের সামনে উপস্থিত হওয়ার ভয় রাখে এবং নিজেকে কু-প্রবৃত্তি থেকে ফিরিয়ে রাখে নিশ্চয় জান্নাত হবে তার আবাস্থল। ’ [সূরা নাযি’আত : আয়াত ৪০-৪১] অন্য আয়াতে আছে, ‘তোমরা আল্লাহকে ভয় কর। আর মনে রেখ, নিশ্চয় তিনি মুত্তাকিদের সঙ্গে আছেন। ’ [সূরা বাকারা : আয়াত ১৯৪] বস্তুত মানুষের মাঝে যদি এই ভয় উপস্থিত থাকে যে, কারও ইজ্জত লুন্ঠন করলে, কাউকে ধর্ষণ করলে, কাউকে উত্তক্ত করলে আল্লাহ তাআলার কাছে একদিন এর জবাব দিতে হবে এবং কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হবে, তবেই সে যাবতীয় অন্যায়-অনাচার থেকে বিরত থাকতে বাধ্য হবে। পাবন্দির সঙ্গে আল্লাহ তাআলার হুকুম মানা তার জন্য সম্ভব হবে। তাই ইসলাম সব ধরনের অপরাধ-প্রবণতা দমনের জন্য মানুষের মনে তাকওয়ার বিজ বপন করার মনোভাব পোষণ করে। কারণ অপরাধ দমনে এটিই কার্যকর ও ফলপ্রসূ ব্যবস্থা। হযরত ওমর রা. এক রাতে মানুষের খোঁজখবর নেয়ার জন্য মদীনার অলিগলিতে টহল দিচ্ছিলেন। হঠাৎ তিনি একটি ঘর থেকে কথাবার্তার শব্দ শুনতে পেলেন। কথাবার্তার ধরন শুনে তার কৌতূহল হল। তিনি ঘরের দেয়াল ঘেঁষে দাঁড়ালেন এবং শুনতে পেলেন, এক বৃদ্ধা তার মেয়েকে বলছে, ‘বেটি ! আজ তো উটের দুধ কম হয়েছে। দুধের সঙ্গে একটু পানি মিশিয়ে দাও। ’ মেয়ে উত্তরে বলল, ‘মা ! আমিরুল মুমিনীন তো দুধের সঙ্গে পানি মেশাতে নিষেধ করেছেন। ’বৃদ্ধা বলল, ‘আমিরুল মুমিনীন কি আমাদের দেখছেন ? তিনি হয়ত নিজ ঘরে ঘুমিয়ে আছেন। তুমি নিশ্চিন্তে পানি মেশাতে পার।’ এবার মেয়ে বলল, ‘মা ! আমিরুল মুমিনীন এখানে নেই এবং তার কোনো লোকও নেই। কিন্তু আল্লাহ তাআলা তো আছেন। তিনি তো দেখছেন। তার কাছে কী জবাব দেব ? এই ঘটনায় আমরা দেখতে পাই যে, একটি সাধারণ মেয়ের অন্তরে মহান আল্লাহ তাআলার ভয় থাকার কারণে রাতের অন্ধকারেও সে অন্যায় থেকে বিরত থেকেছে।

মোটকথা, মানুষের অন্তরে যদি সর্বক্ষণ এই চিন্তা জাগরূক থাকে যে, মহান আল্লাহ তাআলা আমাকে দেখছেন, তাহলেই সে নিজেকে যাবতীয় অন্যায়-অনাচার ও পাপ-পঙ্কিলতা থেকে পূত-পবিত্র রাখতে পারে। এই অনুভূতির নামই তাকওয়া। তাই প্রথমত সামাজিক অপরাধ দমনের জন্য সমাজের সর্বস্তরে তাকওয়া-পরহেযগারী প্রতিষ্ঠা করার প্রতি আমাদের সবাইকেই সচেষ্ট হতে হবে। দ্বিতীয়ত : ধর্ষণ, ব্যভিচার ইত্যাদি নৈতিক অপরাধের ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে মানব জাতিকে রক্ষা করার জন্য ইসলাম এর কঠিন শাস্তির বিধান দিয়েছে। কাজটি যেমন জঘন্য, শাস্তিও তেমন কঠিন। উদ্দেশ্য হলো এই পাপের উৎসমূল চির রুব্ধ করে দেওয়া। ব্যভিচারীর অবস্থাভেদে ব্যভিচারের শাস্তিও একটু ভিন্ন। ব্যভিচারী নারী-পুরুষকে একশ’টি বেত্রাঘাত অবস্থাভেদে পাথর মেরে প্রাণনাশের বিধান দেয়া হয়েছে। যিনাকারী যদি বিবাহিত হয় তাহলে তাদেরকে প্রস্তাঘাতে মৃত্যুদ- দেয়া হবে। আর ব্যভিচারী যদি অবিবাহিত হয়, তাহলে তাদেরকে প্রকাশ্যে একশত বেত্রাঘাত করা হবে। পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘ব্যভিচারী নারী, ব্যভিচারী পুুরুষ, তাদের প্রত্যেককে একশ’ করে বেত্রাঘাত কর। আল্লাহর বিধান কার্যকরকরণে তাদের প্রতি তোমাদের মনে যেন দয়ার উদ্রেক না হয়। যদি তোমরা আল্লাহর প্রতি ও পরকালের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাক। [সূরা নুর : ২] হাদীস শরিফে আছে, অবিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে শাস্তি একশ বেত্রাঘাত এবং এক বছরের জন্য দেশান্তর। আর বিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে একশত বেত্রাঘাত ও রজম (পাথর মেরে মৃত্যুদ-)। [সহিহ মুসলিম] ধর্ষণকারী অবিবাহিত হলে অন্য মাজহাবের ফকিহদের মতে তার শাস্তি হলো দুটি। ১. একশ’ বেত্রাঘাত। ২. এক বছরের জন্য দেশান্তর। অবশ্য হানাফী মাজহাব মতে ধর্ষণকারী যদি অবিবাহিত হয়, তবে তার হদ বা শরীয়ত নির্ধারিত শাস্তি হলো, একশ’ বেত্রাঘাত। আর দেশান্তরের বিষয়টি বিচারকের বিবেচানাধীন। তিনি ব্যক্তি বিশেষে তা প্রয়োগ করতে পারেন। অবশ্য ধর্ষণের মাঝে যেহেতু ধর্ষক অপরাধী হয় আর ধর্ষিতা নির্যাতিত হয়, তাই ধর্ষণের ভেতর শুধু ধর্ষকের শাস্তি হবে। ধর্ষক এখানে দুই ধরনের শাস্তি পাবে। যেহেতু তিনি একদিকে যিনা করে থাকে, অন্য দিকে আবার বলপ্রয়োগ বা ভীতি প্রদর্শন করে থাকে, তাই তিনি দুই ধরনের শাস্তি পাবেন। যিনার শাস্তি পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে। আর ভীতিপ্রদর্শনের জন্য মুহারাবা তথা ভীতি প্রদর্শন করে ডাকাতি করার শাস্তি পাবে। মুহারাবার শাস্তির ব্যাপারে পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা আল্লাহ ও তার রাসুলের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে এবং দেশে হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে সচেষ্ট হয়, তাদের শাস্তি হচ্ছে এই যে, তাদের হত্যা করা হবে অথবা তাদেরকে শূলীতে চড়ানো হবে। অথবা তাদের হস্তদ্বয় বিপরীত দিক থেকে কেটে দেয়া হবে অথবা দেশ থেকে বহিস্কার করা হবে। এটি হলো তাদের জন্য পার্থিব লাঞ্ছনা আর পরকালে তাদের জন্য রয়েছে কঠোর শাস্তি। [সূরা মায়িদা : ৩৩]

মোটকথা ইসলাম ধর্ষণ বন্ধ করার জন্য কঠিন শাস্তির বিধান দিয়েছে। সুতরাং কেউ অপরাধী হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যদি ইসলাম নির্দেশিত শাস্তি প্রয়োগ করা হয়, তবে মানুষ ভয়ে হোক আর যেভাবেই হোক এ ধরনের অনৈতিক কাজ থেকে বিরত থাকতে বাধ্য হবে।

সমাজে দুর্নীতিই এখন নীতি, অশ্লীলতাই এখন শ্লীলতা, অসভ্যতা-বর্বরতাই সভ্যতা হিসাবে পরিগণিত হচ্ছে। আর ন্যায়বিচারের বাণী তো সমাজের সবচেয়ে নিচু তলার বাসিন্দা। সুতরাং এটা সুস্পষ্ট যে, সংস্কৃতির যে শ্লোগান ক্ষণে ক্ষণে উচ্চারিত হচ্ছে সেমিনার-মিডিয়ায় সর্বত্র তা অর্থহীন ফাঁপা কিছু বুলি মাত্র। যার বাস্তবতা নেশা ধরানো রং-তামাশা, আনন্দ-উন্মাদনা উপভোগের মত অমৌল বিষয়কে ঘিরেই পরিবৃত্ত, রিপুচর্চাই যার মূখ্য উদ্দেশ্য। মৌলিক যে সংস্কৃতি মানবের মন ও মননের বিকাশ ঘটায়, চেতনারাজ্যকে রুচিবোধ, আত্মমর্যাদা, সৃজনশীলতার আলোচনায় উদ্ভাসিত করে, সর্বোপরি মানুষকে মানুষ হিসেবে, গড়ে ওঠার প্রেরণায় উজ্জীবিত করে তা দেওয়ার ক্ষমতা প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থায় নেই।

সম্পাদক, মাসিক আরবী ম্যাগাজিন ‘আলহেরা’

3 মন্তব্য রয়েছেঃ ধর্ষণ কেন ? নেপথ্যে কী ? : মুফতী মুহাম্মদ শোয়াইব

  1. Tanbir Ahmad says:

    খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি লেখা। সত্য প্রকাশ করলে অনেকেই রাগ করেন কিন্তু বাস্তবতা প্রকাশ এটা একটি জিহাদ সমতুল্য।

    • Ashole Amader Shomaz Kuprobittike O Karap Kazke Nirutshahito Na Kore Borong Aro Utshahito Kore………Tai Shotto Prokash Kora Shokol Muslimer Emani Dayitto………Tai Prottek Muslimer Uchit Shotto Prokasher Zihade Shamil Howa……….. Thank to All soomuch.

  2. সমরিতা says:

    এ থেকে শিক্ষা নেওয়ার অনেক কিছু আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight