দেশ-বিদেশের খবর

বাংলাদেশি বিজ্ঞানীরা উদ্ভাবন করলেন সৌরশক্তি চালিত রিকশা!
প্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশ দ্রুত গিয়ে যাচ্ছে, বর্তমানে বাংলাদেশের রাস্তা ঘাটে অসংখ্য বিদ্যুৎ চালিত মোটরের রিকশা দেখা গেলেও আগামী বছর থেকে দেখা যাবে সৌরশক্তি চালিত রিকশা!
বাংলাদেশের দুইজন গবেষক সরকারী অনুদানে উদ্ভাবন করেছেন বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী সৌরশক্তি চালিত বিশেষ রিকশা! এসব রিকশা চালাতে প্যাডেল কিংবা বিদ্যুৎ চার্জ প্রয়োজন হবেনা, এটি নিজে থেকেই হুডের উপরে থাকা সৌর প্যানেল থেকে সৌর বিদ্যুৎ তৈরি করবে এবং ব্যাটারিতে তা জমিয়ে ব্যবহার করবে মোটর চালাতে।
এ রিকশা খুব সহজেই চার্জ নিবে এবং এতে সোলার প্যানেল হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মাত্র দুটি পাত। ফলে এটি দেখতেও অনেক হালকা পাতলা গড়নের হবে।
সাধারণত রিকশায় যে পরিমাণ বিদ্যুৎ লাগে দুটি সোলার প্যানেল সরাসরি তা তৈরি করতে পারেনা, ফলে আমরা রিকশাকে হালকা করতে বিশেষ কনভার্টার ব্যবহার করেছি যা ২৪ ভোল্টকে ৪৮ ভোল্টে রূপান্তরিত করে।  এছাড়াও এই রিকসাতে মাইক্রো কন্ট্রোলার ব্যবহার করা হয়েছে, যা রিকশা নিয়ন্ত্রণ করতে অত্যন্ত কার্যকরী, চালক চাইলেও রিকশার গতি অপ্রয়োজনীয় ভাবে বাড়াতে পারবেনা”।
ঠিক কবে নাগাদ এই নতুন ধরণের বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী রিকশা বাজারে আসবে তার বিষয়ে উদ্ভাবকরা জানান, আমরা আগামী বছর এই রিকশা বাজারে আনব। এর মূল্য ৭০ হাজারের কাছাকাছি থাকবে।
ইমামের ফতোয়ার ফলে আতঙ্কিত রুশদির ঘৃণ্য ইঁদুরে জীবন
২৫ বছর আগে ১৯৮৯ সালে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ সা., হযরত ইব্রাহিম আ. ও পবিত্র কুরআনের প্রতি অবমাননাকর বই লেখার অপরাধে ইরানের ইসলামী বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনী রহ. ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ মুরতাদ লেখক

সালমান রুশদির বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের ঐতিহাসিক ফতোয়া দিয়েছিলেন।
ইহুদিবাদী ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর আর্থিক সহায়তাপুষ্ট ধর্মত্যাগী ও অত্যন্ত কুরুচির অধিকারী  মুরতাদ রুশদির লেখা  ‘স্যাটানিক ভার্সেস বা শয়তানের পদাবলী’ নামক জঘন্য বইটি প্রকাশিত হওয়ার পর পরই ভারত ও পাকিস্তানের মুসলমানরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদীদের ওপর পুলিশি হামলায় কয়েকজন মুসলমান শাহাদত বরণ করেন। পরে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে নিন্দা ও বিক্ষোভ। আমেরিকা ও বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় সব দেশ এবং শহরের মুসলমানরা ইসলাম অবমাননার বিরুদ্ধে নিন্দা ও প্রতিবাদে ফেটে পড়েন। বাংলাদেশের মুসলমানরা অর্ধ-দিবস হরতালও পালন করেন।
এ অবস্থায় ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম খোমেনী রহ. রুশদির বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের ঐতিহাসিক ফতোয়া দেন। তার এই ফতোয়া বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের আনন্দিত করে। ইসলামী সম্মেলন সংস্থা বা ওআইসিও ইমাম খোমেনী রহ.’র ফতোয়ার প্রতি সমর্থন জানায়।
রুশদিকে গত ২৫ বছর ধরে মৃত্যুর ভয় আর বিশ্বের ১৫০ কোটি মুসলমানের ঘৃণা নিয়ে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে।  ‘আর পরকালের শাস্তি হবে আরো (অকল্পনীয় মাত্রায়) কঠোর।’

সিসিকে নবীর সঙ্গে তুলনা: মিশরের গ্র্যান্ড মুফতির প্রতিবাদ
মিশরের গ্র্যান্ড মুফতি ও দারুল ইফতা’র প্রধান শাওকি আল্লাম দেশটির সেনাপ্রধান ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নবীদের সঙ্গে তুলনা করার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
গত ৫ ফেব্রুয়ারি মিশরের একজন শীর্ষস্থানীয় আলেম  প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবুল ফাত্তাহ আল সিসি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুহাম্মাদ ইব্রাহিমকে আল্লাহর পাঠানো নবী বলে অভিহিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
সা’দিদ্দিন আল হিলালি নামের ওই আলেম আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনামূলক ধর্মীয় আইন বা ফিকাহ বিভাগের প্রধান।

আল্লামা বলেছেন, নবীদের সম্মান অন্যদের ধরা-ছোঁয়ার ঊর্ধ্বে, কারণ তাঁরা আল্লাহর পক্ষ থেকে মনোনীত হন, তাঁরা নিষ্পাপ ও তাঁদের কাছে আল্লাহর বাণী বা ওহি নাজিল হয়।
তিনি বলেন, ‘প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবুল ফাত্তাহ আল সিসি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুহাম্মাদ ইব্রাহিমকে আল্লাহর পাঠানো মুসা আ. ও  হারুন আ.’র মত নবী বলে কোনো মিশরিয়ই ধারণা করতে পারেন না। আল্লাহর নবীদের সঙ্গে  রাজনৈতিক নেতাদের যে কোনোভাবে তুলনা করা অগ্রহণযোগ্য এবং খোদ এই নেতারাই নিজেদের জন্য এমন উচ্চতর সম্মান থাকার বিষয়টি সমর্থন করবেন না।’

মানুষের মাংস বিক্রি নাইজেরিয়ার এক রেস্টুরেন্টে!
ডেইলি মিরর পত্রিকাতে এক প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, নাইজেরিয়ার এক রেস্টুরেন্টে মানুষের মাংস দিয়ে তৈরি বিভিন্ন খাবার বিক্রি করার দায়ে মালিকসহ ১১ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ছাড়া পুলিশ আনামবারা এলাকার ঐ রেস্টুরেন্টে তল্লাশি চালিয়ে কমপক্ষে দু’টি মানুষের মাথা খুঁজে পায়।
পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে আরও বলা হয়, রক্তাক্ত মাথা দু’টি একটি কাগজ দিয়ে মোড়ানো ছিল। পুলিশ বলছে, তেলে ভেজে আলাদা খাবার তৈরি করার জন্যই  মাথা দু’টি রাখা হয়েছিল। এ ছাড়া খাবারের দোকানটি থেকে দু’টি একে রাইফেল, আগ্নেয়াস্ত্র, কয়েক ডজন গোলা বারুদ এবং বেশ ক’টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। এক স্থানীয় বাসিন্দা জানান, রেস্টুরেন্টটিতে সবসময় রহস্যজনক মানুষদের আনাগোনা ছিল।

মাছের দাম ১ লাখ ২৮ হাজার টাকা
চারশ’ বছরের ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলায় যমুনা নদীর ৮০ কেজি ওজনের একটি বাঘাইড় মাছের দাম হাঁকা হয়েছে এক লাখ ২৮ হাজার টাকা। সেই মাছ কেনার সাধ্য না থাকলেও তা একনজর দেখার সাঁধ সবারই ছিল। তাই সেখানে ক্রেতা ও দর্শকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।
মাছ ব্যবসায়ী আব্দুল ওয়াহাব জানান, যমুনা নদী থেকে বাঘাইড় প্রজাতির ৮০ কেজি ওজনের একটি মাছ আনা হয়। প্রতি কেজির দাম ১৬০০ টাকা হিসেবে দাম হাঁকা হয় এক লাখ বিশ হাজার টাকা।

হজ্জযাত্রী পরিবহনের নতুন নিয়মে ক্ষুব্ধ হাব
চলতি বছরে একটি হজ্জ এজেন্সি থেকে সর্বনিম্ন ৫০ থেকে বাড়িয়ে ১৫০ জন পরিবহনের নিয়ম জারি করেছে সৌদি আরব। ১৬ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সৌদি আরবের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। হজ্জ এজেন্সিদের সংগঠন হাবের অভিযোগ, এই নতুন নিয়মে চলতি বছরে হজ্জযাত্রী পরিবহনে বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হবে। সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে এবার এক লাখ ২৭ হাজার হাজি সুযোগ পাবে। ধর্ম মন্ত্রণালয় জানায়, ২০১২ সাল পর্যন্ত দেশে হজ্জ এজেন্সির সংখ্যা ছিল ৪০০টি। আর ২০১৩ সালে আরো নতুন ৯০০টি এজেন্সিকে লাইসেন্স দেয়া হয়েছে।

ব্রিটেনের একটি স্কুলে স্কার্ট নিষিদ্ধ
মেয়েদের স্কার্ট পরাকে ‘অবাস্তব’ এবং ‘অশালীন’ মন্তব্য করে যুক্তরাজ্যের একটি খ্যাতনামা হাইস্কুলে এই পোশাক নিষিদ্ধ করা হয়েছে। স্কার্টের পরিবর্তে ট্রাউজার কিনতে স্কুল কর্তৃপক্ষ অভিভাবকদের আর্থিক সহায়তারও প্রস্তাব দিয়েছে। নর্থফোকের ডিস হাইস্কুল কর্তৃপক্ষ আগামী সেপ্টেম্বর থেকে শুধু ট্রাউজার বা পাজামাকে বাধ্যতামূলক করবে। ইউনিফরম নিয়ে আন্দোলরত একটি সংগঠনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
স্কুলটির প্রধান শিক্ষক জন ‘স্কার্ট এতোটাই খাটো (হেমলাইন) হয়ে যাচ্ছে যে, তা যেমন অবাস্তব এবং তেমনই অশালীন।’

মার্কিন মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সহস্ত্রাধিক মরদেহের সন্ধান
আমেরিকার মিসিসিপি অঙ্গরাজ্যের একটি মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে এক হাজারের বেশি মরদেহের সন্ধান পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর কর্তৃপক্ষ সেখানে খনন কাজ স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছে।
ক্যাম্পাসে একটি নতুন পার্কিং লট তৈরি জন্য খনন কাজ করতে গেলে মরদেহের পাওয়ার এ বিভৎস ঘটনা উন্মোচন হয়ে পড়ে। ধারণা করা হচ্ছে ১০০ বছর আগে আশ্রয়প্রার্থী মানসিক রোগীদের মরদেহ এগুলো।
বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র জ্যাক মাজুরাক জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ক্যাম্পাসটি ১৮৫৫ সাল থেকে ১৯৩৫ সাল পর্যন্ত পাগলাগারদ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। তিনি বলেন, সেখানে মানুষের কঙ্কাল বা মরদেহ পাওয়া অপ্রত্যাশিত কিছু নয়।

মিসরে ৩৬০০ বছরের পুরনো
মমি উদ্ধার
স্পেনের প্রতœতত্ত্ববিদরা মিসরে তিন হাজার ৬০০ বছর আগের পুরনো একটি মমি আবিষ্কার করেছে। দেশটির পুরাকীর্তি মন্ত্রী বৃহস্পতিবার জানান, দেশটির প্রাচীন শহর লাক্সোর থেকে এই মমিটি আবিষ্কৃত হয়। পুরাকীর্তি মন্ত্রী ইব্রাহিম বলেন, ‘মিসরের পুরাকৃর্তি মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় স্পেনের প্রতœতত্ত্ববিদদের একটি দল মমিটি আবিষ্কার করে।’ একটি বিবৃতিতে মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ‘কাঠের বাক্সে সংরক্ষণ করা মমিটি খ্রিস্টপূর্ব ১৬০০ শতকের ফারাও রাজবংশের।’ তিনি আরও বলেন, ‘ভাস্কর্যটিতে হায়ারোগ্লিফির বিভিন্ন অক্ষর খোদাই করা রয়েছে এবং পাখির পালক দ্বারা সজ্জিত।’ রহস্য উন্মোচনের জন্য ভাস্কর্যটি নিয়ে এখন গবেষণা হচ্ছে।
মিসরের পুরাকীর্তি বিভাগের প্রধান আলি আল আসফার বলেন, ‘দু’ মিটার দৈর্ঘ্যরে পাথরটি নিশ্চিত করছে মমিটি অরিজিনাল।’ অন্যদিকে, দেশটির উচ্চ আদালত তিনজন জার্মান নাগরিকসহ ৯ জনকে মূল্যবান পাথর চোরাচালান ও পুরাকীর্তির ক্ষতি করার জন্য অভিযুক্ত করেছে।

এবার আল-আকসা মসজিদ অবমাননা করল ইসরাইলি মন্ত্রী
দখলদার ইসরাইলের আবাসনমন্ত্রী ইউরি অ্যারিয়েল পবিত্র আল-আকসা মসজিদের অবমাননা করেছেন। আল-আকসা ওয়াকফ ও ঐতিহ্যবিষয়ক ফাউন্ডেশন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার বর্ণবাদী মন্ত্রী ইউরি অ্যারিয়েল ৫৭ জন ইহুদিবাদীকে নিয়ে মসজিদে ঢুকে পড়ে। তার ৫৭ জন সাঙ্গপাঙ্গের মধ্যে বেশ কয়েকজন ইহুদি ধর্মযাজকও ছিলেন।
ইহুদিবাদী মন্ত্রীকে মসজিদে ঢুকতে দেখে মুসল্লিরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন এবং তারা বিভিন্ন স্লোগান দেন। আল-আকসা ওয়াকফ ও ঐতিহ্যবিষয়ক ফাউন্ডেশন ইহুদিবাদীদের এ ধরনের অন্যায় পদক্ষেপের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেছে, দখলদারদের ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সব মুসলমানকে সজাগ থাকতে হবে।
এর আগে ইহুদিবাদী ইসরাইলের আবাসনমন্ত্রী ইউরি অ্যারিয়েল আল-আকসা মসজিদের জায়গায় ইহুদি উপাসনালয় নির্মাণের আহ্বান জানিয়েছিলেন।
মুসলিম বিশ্বের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান হচ্ছে আল-আকসা মসজিদ। ফিলিস্তিনিরা বলেছেন, ইতিহাস বিকৃত করে ইহুদিবাদীরা আল-আকসা মসজিদ ধ্বংসের ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে।

ড্রোন পৌঁছে দেবে
সরকারি কাগজপত্র!
ড্রোন প্রায় সব সময় আলোচিত। এতোদিন জঙ্গি দমনে এর ব্যবহারের কথা শোনা গেলেও এবার কাগজপত্র ও পার্সেল পরিবহনে ড্রোনকে কাজে লাগানোর পরিকল্পনার কথা জানা যাচ্ছে। কয়েকদিন আগে অ্যামাজন জানিয়েছিল যে, তারা ড্রোনে করে বাড়ি বাড়ি পার্সেল পৌঁছে দেবে। অবশ্য পরিকল্পনাটা এই দশকের মধ্যে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে ইতিমধ্যেই সন্দেহ প্রকাশ করেছেন প্রকৌশলীরা।
সমপ্রতি এমন আরেকটি খবর দিয়েছে আরব আমিরাত। দেশটির সরকার বলছে, আগামী এক বছরের মধ্যে তারা নাগরিকদের কাছে ড্রোনে করে সরকারি কাগজপত্র পাঠানোর পরিকল্পনা করছে। যে ধরনের ড্রোনে করে বিষয়টা সম্পাদন করা হবে তার একটা ‘প্রোটোটাইপ’ সাংবাদিকদের দেখানো হয়েছে। দেশটির এক মন্ত্রী মোহাম্মদ আল-গেরগাউই জানিয়েছেন, পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা গেলে তা হবে বিশ্বে এ ধরনের প্রথম ঘটনা।
আবদুর রহমান আলশেরকাল নামে আরব আমিরাতের এক প্রকৌশলী ব্যাটারিচালিত এই ড্রোন তৈরি করেছেন। সাদা রঙের এবং আমিরাতের পতাকাশোভিত এই ড্রোনে করে পরিচয়পত্র,  ড্রাইভিং লাইসেন্স বা এই জাতীয় কাগজপত্র পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানা গেছে।
তিনি বলেছেন, আগামী ছয় মাস ড্রোনের কার্যকারিতা ও দক্ষতা বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে এটা দিয়ে কী ধরনের এবং কতটুকু সেবা দেয়া সম্ভব হবে।
তথ্যসূত্র : ইত্তেফাক, নয়াদিগন্ত, রেডিও তেহরান, ইরান বার্তা, বি.বি.সি., সি.এন.এন.।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight