কুরআন বিষয়ক বিশেষ জ্ঞান

কুরআন লিপিবদ্ধকরণ

যখন থেকে কুরআন নাযিল শুরু হয়, সেদিন থেকেই আল্লাহর রাসূল তা লিপিবদ্ধ করে রাখার জন্য পারদর্শী সাহাবীদের নিযুক্ত করেন। হযরত যায়দ বিন সাবেত রা. ছাড়া আরো ৪২ জন সাহাবী এ কাজে নিযুক্ত ছিলেন। এ সম্পর্কে রাসূল সা. বলেন, তোমরা আমার কাছে কুরআন ছাড়া অন্য কিছু লেখো না।
মুদ্রণ যন্ত্র আবিষ্কারের আগ পর্যন্ত কুরআন শরীফ হাতেই লেখা হতো। প্রত্যেক যুগেই এমন কিছু নিবেদিত প্রাণ কুরআনের ‘কাতেব’ মজুদ ছিলেন যাঁদের একমাত্র কাজ ছিল কুরআন শরীফ লেখা। কুরআনের প্রতিটি অক্ষরকে সুন্দরভাবে লিপিবদ্ধ করার লক্ষে এটি নিঃসন্দেহে একটি নযীরবিহীন ঘটনা। মুদ্রণযন্ত্র আবিষ্কারের পর ইউরোপের হামবুর্গ নামক স্থানে হিজরী ১১১৩ সনে সর্বপ্রথম কুরআন শরীফ মুদ্রীত হয়। মুসলমানদের মধ্যে সর্বপ্রথম মাওলানা ওসমান রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ শহরে ১৭৮৭ খ্রিষ্টাব্দে কুরআন মুদ্রণের কাজ করেন। প্রায় একই সময় কাযান শহর থেকেও কুরআনের একটি নোসখা মুদ্রিত হয়। ১৭৮৭ খ্রিষ্টাব্দে ইরানের তেহরানে লিথো মুদ্রণ যন্ত্রে প্রথম কুরআন শরীফের একটি কপি মুদ্রিত হয়। এরপর আস্তে আস্তে দুনিয়ার অন্যান্য এলাকাতেও ব্যাপকভাবে ছাপাখানার মাধ্যমে কুরআন মুদ্রণের রেওয়াজ চালু হতে থাকে। মুদ্রণ যন্ত্রের আবিষ্কারের আগে কুরআনের আয়াতসমূহ সাধারণত পাথর, শিলা, শুকনা চামড়া, খেঁজুর গাছের শাখা, বাঁশের টুকরা, গাছের পাতা এবং পশুর চামড়ার উপর লেখা হতো।

কুরআনের শব্দ সংখ্যাÑ
সাহাবায়ে কেরাম রা. তাদের যুগে কুরআনের শব্দ সংখ্যাও নির্ণয় করেছেন। অবশ্য এ সম্পর্কে সরাসরি তাদের সাথে সম্পৃক্ত কোন রেওয়াত পাওয়া যায় না। যা কিছু আছে সবই পরবর্তীকালের। হুমাদা আযরাজের গননা অনুযায়ী কুরআনে শব্দ সংখ্যা রয়েছে- ৭৬৪৩০, আবদুল আযীয ইবনে আবদুল্লাহ রহ. এর গণণা মোতাবেক ৭০৪৩৯, মোজাহেদের গণনা মোতাবেগ ৭৬২৫০। তবে যে সংখ্যাটি সাধারণভাবে প্রসিদ্ধ লাভ করছে তা হচ্ছে ৮৬৪৩০।
কুরআনের আয়াত সংখ্যাÑ
পবিত্র কুরআনে হযরত আয়েশা রা. এর মতে ৬৬৬৬, হযরত ওসমান রা. এর মতে ৬২৩৬, হযরত ইবনে মাসউদ রা. এর মতে ৬২১৮, মক্কার গণণা মতে ৬২১২, বসরার গণণা মতে ৬২২৬, ইরাকের গণণা মতে ৬২১৪ সংখ্যক আয়াত রয়েছে। ঐতিহাসিকদের মতে হযরত আয়েশা রা. এ গণণাই বেশি প্রসিদ্ধ লাভ করেছে।
বিষয়ভিত্তিক আয়াতÑ
জান্নাতের ওয়াদা ১০০০ বার, জাহান্নামের ভয় ১০০০বার; নিষেধ ১০০০বার, আদেশ ১০০০বার; উদাহারণ ১০০০টি, কাহিনী সম্বলিত আয়াত ১০০০টি; হারাম সম্বলিত আয়াত ২৫০টি, হালাল সম্বলিত আয়াত ২৫০টি; আল্লাহর পবিত্রতা সম্বলিত আয়াত ১০০টি এবং বিবিধ আয়াত ৬৬টি পবিত্র  কুরআনে রয়েছে।
মনযিল ও এর বিভক্তিকরণÑ
মনযিল কিভাবে এল তার আলোচনা প্রসংগে অনেকেই এই ঘটনাটি উল্লেখ করেন। আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ ও মুসনাদে আহমদ এর বর্ণনা অনুযায়ী একদিন বণী সাফাবী গোত্রের এক প্রতিনিধি দল রাসূল সা. এর খেদমতে হাযির হলে রাসূল সা. তাদের কাছে আসতে কিছু বিলম্ব হয়। এই দেরী হওয়ার কারণ উল্লেখ করে রাসূল সা. বলেন, আমি কুরআন তেলাওয়াতে ছিলাম, আজকের দিনে নির্ধারিত অংশ পুরো করতে একটু দেরী হয়ে গেছে। প্রথম মনযিল সূরা আল ফাতেহা থেকে সূরা আন নিসা, দ্বিতীয় মনযিল সূরা আল মায়েদাহ থেকে সূরা আত তাওবা, তৃতীয় মনযিল সূরা ইউনুস থেকে সূরা আন নাহল, চতুর্থ মনযিল সূরা বনী ইসরাঈল থেকে সূরা আল ফোরকান, পঞ্চম মনযিল সূরা আশ শুআরা থেকে সূরা ইয়াসীন, ষষ্ঠ মনযিল সূরা সূরা আস সাফফাত থেকে সূরা আল হুজুরাত, সপ্তম মনযিল সূরা ক্বাফ থেকে সূরা আন নাস পর্যন্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight