কবিতাগুচ্ছ

ঘর
সৈয়দা সুফিয়া খাতুন
সারা জীবন কোথায় ছিলাম কোথায় আমার ঘর
শেষ বিকেলে এসে আমি হলাম সবার পর
এই দুনিয়াটা হলো তাসের ঘর একদিন তো ভেঙ্গে
শেষ হয়ে যাবে রবে না কিছুই
যার কাছে টাকা আছে সেই হলো রাজা
টাকা কি আর আসল-নকল যায় আসে না কারো
হালাল-হারাম কিছুই বোঝে না
মরে গেলে সব থাকবে পরে আখেরাতে আমল ছাড়া
কিছুই যাবে না সময় থাকতে ফিরে এসো
আখেরাতের সম্বল গুছিয়ে নাও
হেলায়-খেলায় দিন চলে গেলে আর আসে না ফিরে

একই বৃত্তে চলা
ফাতেমাতুন নূর

একই বৃত্তে পথ চলেছি
অবিরামভাবে
এ চলার কোনো শেষ নেই জানি,
হয়তবা চলতে চলতে থেমে যাবে
ধরণীর বুকে শেষ নিঃশ্বাস
ত্যাগের মুহূর্তেই!
ঘুরছি সবে ঘূর্ণায়মান ঘূর্ণিপাকে
এ ঘোরার শেষ কোথায় কে জানে!
কেউ ঘোরে অর্থের পিছে,
কেউবা নাম, যশে
আবার কেউবা প্রেম,ভালোবাসায়,
ভাগ্যের চাকা ঘুরতে ঘুরতে
কখন যে একই বৃত্তে এসে
থেমে যাবে কেউ জানে না।
ধ্রুবলোকের যতো সৃষ্টিরাজি
সবাই একই বৃত্তে ঘোরে,
যার যার কাজ তা করে যায় অপরিশ্রান্তভাবে!
কাউকে কিছু বলার নেই,
সবই একজনের হুকুমে চলে।
মানবজাতি আমরা যতই ঘুরিফিরি
এদিক সেদিক; একদিন ঠিকই
একই বৃত্তে সবাই এসে মিলিত হবো।

মিস করি
কামরুল আরেফিন
কষ্টে যখন পাই না কাছে
তোমায় ভীষণ মিস করি
আঁধার ভুবন হাতরে শেষে
কল্পনাতে কিস করি।

যোজন যোজন দূর হলেও
তোমার ছোঁয়া ফিল করি
একটি নজর দেখতে শুধু
খুব ব্যথাতুর দিল করি।

ব্যথার দানে জর্জরিত;
তোমায় অনুভব করি
মন যে আমার উড়াল পাখি
বিদেশ ভূঁইয়ে জব করি।

তোমার কোলে মাথা রাখার
ইচ্ছে যত কিল করি
মাগো তোমায় ভেবে ভেবে
বদনখানি নীল করি।

তোমায় মনে পড়ে
মুস্তাকিম আল মুনতাজ
বাবা তোমায় মনে পড়ে সকাল-সন্ধ্যা বেলা
তোমার কথা ভেবে আমার মন যে হয় উতলা,
আছো তুমি অনেক দূরে, পাই না তোমার দেখা।
দূরে কেন চলে গেলে আমায় ফেলে একা।

একলা বসে আপন মনে যখন ভাবি তোমার কথা
দু’চোখ থেকে অশ্রু ঝরে, মনে লাগে ব্যথা।
তোমার কথা ভেবে ভেবে হই যে দিশেহারা,
তোমার জন্য আমার এ মন শুধু পাগলপারা।

চোখ বুঝলে স্বপ্নে দেখি তোমার মিষ্টি মুখ,
মুহূর্তে যাই ভুলে আমি মনের শত দুখ।
ভালবাসার পরশ দিয়ে বুকে রেখো জড়িয়ে,
কভু যেন জীবন থেকে না যাই আমি হারিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight