আবদুল্লাহ ইবন হুজাফাহ রা. এর কৃতিত্ব : ইউসুফ আহমেদ

প্রতিটি মুসলমানের উচিত আবদুল্লাহ ইবন হুজাফাহ’র মাথায় চুম্বন করা। -হযরত উমর রা.

হিজরি ১৯ সনে খলীফা উমার রা. রোমানদের বিরুদ্ধে একটি বাহিনী পাঠালেন। এই বাহিনীতে আবদুল্লাহ ইবন হুজাফাহ আস-সাহমীও ছিলেন। রোমের কাইসার মুসলিম মুজাহিদদের ঈমান, বীরত্ব এবং আল্লাহ ও রাসূলের জন্য অকাতরে জীবন বিলিয়ে দেওয়ার বহু কাহিনী শুনতেন। তিনি তাঁর সৈন্যদের নির্দেশ দিয়েছিলেন, কোন মুসলমান সৈনিক বন্দী হলে তাকে জীবিত অবস্থায় তাঁর কাছে পাঠিয়ে দেবে। আল্লাহর ইচ্ছায় হযরত আবদুল্লাহ রোমানদের হাতে বন্দী হলেন।
রোমানরা তাকে তাদের বাদশার নিকট হাজির করে বললো “এ ব্যক্তি মুহাম্মাদের একজন সহচর, প্রথম ভাগেই সে তাঁর দ্বীন গ্রহণ করেছে। আমাদের হাতে বন্দী হয়েছে, আমরা আপনার নিকট উপস্থিত করেছি।” রোমান সম্রাট আবদুল্লাহ ইবন হুজাফাহ রা. এর দিকে দীর্ঘক্ষণ তাকিয়ে থেকে বললো ‘আমি তোমার নিকট একটি বিষয় উপস্থাপন করতে চাই। ’
আবদুল্লাহ! ‘বিষয়টি কি?’
সম্রাট: “আমি প্রস্তাব করছি তুমি খৃষ্টান ধর্ম গ্রহণ কর। যদি তা কর, তোমাকে মুক্তি দেব এবং তোমাকে সম্মানিত করবো।”
বন্দী আবদুল্লাহ খুব দ্রুত ও দৃঢ়তার সাথে বললেন ‘আফসুস! যেদিকে আপনি আহ্বান জানাচ্ছেন তার থেকে হাজার বার মৃত্যু আমার অধিক প্রিয়। ’ সম্রাট: ‘আমি মনে করি তুমি একজন বুদ্ধিমান লোক। আমার প্রস্তাব মেনে নিলে আমি তোমাকে আমার ক্ষমতার অংশীদার বানাবো, আমার কন্যা তোমার হাতে সমর্পণ করবো এবং আমার এ সম্রাজ্য তোমাকে ভাগ করে দেব। ’ বেড়ী পরিহিত বন্দী মৃদু হেসে বললেন- “আল্লাহর কসম, আপনার গোটা সাম্রাজ্য এবং সেই সাথে আরবদের অধিকারে যা কিছু আছে সবই যদি আমাকে দেওয়া হয়, আর বিনিময়ে আমাকে বলা হয় এক পলকের জন্য  মুহাম্মাদের সা. দ্বীন পরিত্যাগ করি, আমি তা করবো না। ”
সম্রাট: ‘তাহলে আমি তোমাকে হত্যা করবো। ’
বন্দী: ‘আপনার যা খুশী করতে পারেন।’
সম্রাটের নির্দেশে বন্দীকে শূলীকাষ্ঠে ঝুলিয়ে কষে বাঁধা হল। দু’হাতে ঝুলিয়ে বেঁধে খৃষ্টধর্ম পেশ করা হল, তিনি অস্বীকার করলেন। তারপর দু’পায়ে ঝুলিয়ে বেঁধে ইসলাম পরিত্যাগের আহবান জানানো হল, তিনি দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করলেন।
সম্রাট তাঁর লোকদের  বলে তাঁকে শূলীকাষ্ঠ থেকে নামিয়ে আনার নির্দেশ দিলেন। তারপর বিশাল এক কড়াই আনিয়ে তার মধ্যে তেল ঢালতে বললেন। সেই তেল আগুনে ফুটানো হল। টগবগ করে যখন তেল ফুটতে লাগলো তখন অন্য দু’জন মুসলমান বন্দীকে আনা হল। তাদের একজনকে সেই উত্তপ্ত তেলের মধ্যে ফেলে দেওয়া হল। ফেলার সাথে তার দেহের গোশত ছিন্নভিন্ন হয়ে হাড় থেকে পৃথক হয়ে গেল।
সম্রাট আবদুল্লাহর দিকে ফিরে তাকে আবার খৃষ্টধর্ম গ্রহণের আহ্বান জানালেন। আবদুল্লাহ এবার পূর্বের চেয়ে আরো বেশী কঠোরতার সাথে প্রত্যাখ্যান করলেন। সম্রাটের নির্দেশে এবার আবদুল্লাহকে সেই উত্তপ্ত তেল ভর্তি কড়াইয়ের কাছে আনা হল। এবার আবদুল্লাহর চোখে অশ্রু দেখা দিল। লোকেরা সম্রাটকে বললো, ‘বন্দী এবার কাঁদছে। ’ সম্রাট মনে করলেন, বন্দী ভীত হয়ে পড়েছে। তিনি নির্দেশ দিলেন, ‘বন্দীকে আমার কাছে নিয়ে এস। ’ তাঁকে আনা হল। এবারও তিনি ঘৃণাভরে খ্রিষ্টধর্ম প্রত্যাখ্যান করলেন। সম্রাট তখন আবদুল্লাহকে লক্ষ্য করে বললেন, ‘তোমার ধ্বংস হোক! তাহলে কাঁদছো কেন?’ আবদুল্লাহ জবাব দিলেন- “আমি একথা চিন্তা করে কাঁদছি যে, এখনই আমাকে এই কড়াইয়ের মধ্যে নিক্ষেপ করা হবে এবং আমি শেষ হয়ে যাব। অথচ আমার বাসনা, আমার দেহের পশমের সমসংখ্যক জীবন যদি আমার হতো এবং সবগুলিই আল্লাহর রাস্তায় এই কড়াই’য়ের মধ্যে বিলিয়ে দিতে পারতাম। ”
এবার খোদাদ্রোহী সম্রাট বললেন- ‘অন্ততঃপক্ষে তুমি যদি আমার মাথায় একটা চুম্বন কর, তোমাকে আমি ছেড়ে দেব। ’
আবদুল্লাহ প্রথমে এ প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করলেন। তবে শর্ত আরোপ করে বললেন, ‘যদি আমার সাথে অন্য মুসলিম বন্দীদেরও মুক্তি দেওয়া হয়, আমি রাজি আছি। ’
সম্রাট বললেন: হ্যাঁ, অন্যদেরও ছেড়ে দেওয়া হবে। ’
আবদুল্লাহ বলেন: ‘আমি মনে মনে বললাম, বিনিময়ে অন্য মুসলিম বন্দীদেরও মুক্তি দেওয়া হবে, এতে কোন দোষ নেই। ’ তিনি সম্রাটের দিকে এগিয়ে গিয়ে তাঁর মাথায় চুম্বন করলেন। রোমান সম্রাট মুসলিম বন্দীদের একত্র করে আবদুল্লাহর হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দিলেন। সর্বমোট বন্দীর সংখ্যা ছিল ৮০ জন।
হযরত আবদুল্লাহ রা. মদীনায় ফিরে এসে খলীফা উমারের রা. নিকট ঘটনাটি আনুপূর্বিক বর্ণনা করলেন। আনন্দে খলীফা ফেটে পড়লেন। তিনি উপস্থিত সেই বন্দীদের প্রতি তাকিয়ে বললেন- ‘প্রতিটি মুসলমানের উচিত আবদুল্লাহ ইবন হুজাফাহ’র মাথায় চুম্বন করা এবং আমিই তার সূচনা করছি।’ এই বলে তিনি উঠে দাঁড়িয়ে তাঁর মাথায় চুম্বন করলেন।

সূত্র : আসহাবে রাসূলের জীবনকথা : দ্বিতীয় খ-।হাদীসের গল্প

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Hit Counter provided by Skylight